মুজিবনগরে চার নেতার ভাস্কর্যের অনার বোর্ডে ইতিহাস বিকৃতি
jugantor
মুজিবনগরে চার নেতার ভাস্কর্যের অনার বোর্ডে ইতিহাস বিকৃতি

  মেহেরপুর প্রতিনিধি  

২৮ নভেম্বর ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মেহেরপুরের মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ গ্রহণ করে। স্বাধীনতা উত্তর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান লিখিত নির্দেশ দিয়েছিলেন মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করার। সেই নির্দেশে মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করা হয়। কিন্তু সেখানে সাদা পাথরে নির্মিত জাতীয় নেতাদের ভাস্কর্যে ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে এএইচএম কামরুজ্জামান এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে ক্যাপ্টেন মনসুর আলী হিসেবে দেখানো হয়েছে। ভাস্কর্যের পাশে অনার বোর্ডে এমন ভুল ভাস্কর্য স্থাপনের পরও অনার বোর্ডে শোভা পাচ্ছে। এ মারাত্মক ভুলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে এবং ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। নতুন প্রজন্মের যারা এ জাতীয় নেতাদের অবয়বের সঙ্গে পরিচিত নয় তারা ভাস্কর্য দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছেন। যারা অনার বোর্ডে লিখেছেন তাদের কারও চোখে এ ভুল কেন ধরা পড়ল না এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। অর্থনীতিবিষয়ক লেখক এমএ খালেক বাংলাদেশের স্বাধীনতার পবিত্রভূমি প্রথম সরকারের শপথের স্থান মুজিবনগরে এসে অনার বোর্ডে এমন বিকৃত পরিচয় দেখে ক্ষুব্ধ হয়েছেন। কেন এত বছরেও ভুল ধরা পড়ল না, দেখেও কেন দেখা হচ্ছে না। পরিকল্পিত না অজ্ঞতাপ্রসূত এমনই প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। তিনি কাদের ভুলে এটি ঘটেছে, তার দায় নির্ধারণ এবং অনার বোর্ডে পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন।

শুক্রবার মুজিবনগর দেখতে আসা রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নিলিমা নিলা জানান, দীর্ঘ ২০ বছর আগে নির্মিত ভাস্কর্যে কেন এত বছর বহন হচ্ছে ভুল অনার বোর্ড?

মুজিবনগরে চার নেতার ভাস্কর্যের অনার বোর্ডে ইতিহাস বিকৃতি

 মেহেরপুর প্রতিনিধি 
২৮ নভেম্বর ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

মেহেরপুরের মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ গ্রহণ করে। স্বাধীনতা উত্তর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান লিখিত নির্দেশ দিয়েছিলেন মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করার। সেই নির্দেশে মুজিবনগরকে মূল্যায়ন করা হয়। কিন্তু সেখানে সাদা পাথরে নির্মিত জাতীয় নেতাদের ভাস্কর্যে ক্যাপ্টেন মনসুর আলীকে এএইচএম কামরুজ্জামান এবং এএইচএম কামরুজ্জামানকে ক্যাপ্টেন মনসুর আলী হিসেবে দেখানো হয়েছে। ভাস্কর্যের পাশে অনার বোর্ডে এমন ভুল ভাস্কর্য স্থাপনের পরও অনার বোর্ডে শোভা পাচ্ছে। এ মারাত্মক ভুলে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হচ্ছে এবং ইতিহাস বিকৃত করা হয়েছে। নতুন প্রজন্মের যারা এ জাতীয় নেতাদের অবয়বের সঙ্গে পরিচিত নয় তারা ভাস্কর্য দেখে বিভ্রান্ত হচ্ছেন। যারা অনার বোর্ডে লিখেছেন তাদের কারও চোখে এ ভুল কেন ধরা পড়ল না এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। অর্থনীতিবিষয়ক লেখক এমএ খালেক বাংলাদেশের স্বাধীনতার পবিত্রভূমি প্রথম সরকারের শপথের স্থান মুজিবনগরে এসে অনার বোর্ডে এমন বিকৃত পরিচয় দেখে ক্ষুব্ধ হয়েছেন। কেন এত বছরেও ভুল ধরা পড়ল না, দেখেও কেন দেখা হচ্ছে না। পরিকল্পিত না অজ্ঞতাপ্রসূত এমনই প্রশ্ন তুলেছেন তিনি। তিনি কাদের ভুলে এটি ঘটেছে, তার দায় নির্ধারণ এবং অনার বোর্ডে পরিবর্তনের দাবি জানিয়েছেন।

শুক্রবার মুজিবনগর দেখতে আসা রাজশাহী বিশ্ব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নিলিমা নিলা জানান, দীর্ঘ ২০ বছর আগে নির্মিত ভাস্কর্যে কেন এত বছর বহন হচ্ছে ভুল অনার বোর্ড?