ট্রেনে কাটা পড়ে তিন স্থানে তিনজন নিহত
jugantor
ট্রেনে কাটা পড়ে তিন স্থানে তিনজন নিহত

  চারঘাট (রাজশাহী), বালিয়াকান্দি (রাজবাড়ী) ও সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি  

২১ জানুয়ারি ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীর চারঘাটে ট্রেনে কাটা পড়ে সুজন আহম্মেদ নামের এক মাহেন্দ্রাচালক নিহত হয়েছেন। আড়ানী-বাগমারী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুমড়েমুচড়ে যাওয়া মাহেন্দ্রাটি উদ্ধার করেছে। নিহত সুজন বাঘা উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের সড়কঘাট এলাকার শামসুল হকের ছেলে। জানা যায়, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সুজন আহম্মেদ বাঘা উজেলার আড়ানী এলাকা থেকে মাহেন্দ্রা নিয়ে চারঘাট উপজেলার বাগমারী এলাকার দিকে যাওয়ার সময় বাগমারী লেভেল ক্রসিংয়ের ওপর মাহেন্দ্রাটি আটকে পড়ে। এ সময় রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী তিতুমীর এক্সপ্রেস ট্রেনটি বাগমারী লেভেলক্র সিংয়ের ওপর আটকে পড়া মাহেন্দ্রাটিকে ধাক্কা দিলে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে যায় মাহেন্দ্রাটি। ঘটনাস্থলে মারা যান চালক সুজন।

এদিকে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের গোসাইগোবিন্দপুর গ্রামের শুলাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে ট্রেনে কাটা পড়ে কেসমত আলী শেখ নামে এক প্রতিবন্ধী নিহত হয়েছেন। তিনি ওই ইউনিয়নের স্বর্পবেতেঙ্গা গ্রামের মৃত আসমত শেখের ছেলে। ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ জানান, শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধী কেসমত আলী শেখ বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে রেললাইনের ওপর দিয়ে হাঁটছিলেন। এ সময় গোপালগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনে তিনি কাটা পড়েন।

অপরদিকে পাবনার সুজানগরে ট্রেনের সঙ্গে ট্রলির সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আলম হোসেন নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর ফলে সুজানগরে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল দুয়ে।

ট্রেনে কাটা পড়ে তিন স্থানে তিনজন নিহত

 চারঘাট (রাজশাহী), বালিয়াকান্দি (রাজবাড়ী) ও সুজানগর (পাবনা) প্রতিনিধি 
২১ জানুয়ারি ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীর চারঘাটে ট্রেনে কাটা পড়ে সুজন আহম্মেদ নামের এক মাহেন্দ্রাচালক নিহত হয়েছেন। আড়ানী-বাগমারী এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে দুমড়েমুচড়ে যাওয়া মাহেন্দ্রাটি উদ্ধার করেছে। নিহত সুজন বাঘা উপজেলার পাকুড়িয়া ইউনিয়নের সড়কঘাট এলাকার শামসুল হকের ছেলে। জানা যায়, বুধবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সুজন আহম্মেদ বাঘা উজেলার আড়ানী এলাকা থেকে মাহেন্দ্রা নিয়ে চারঘাট উপজেলার বাগমারী এলাকার দিকে যাওয়ার সময় বাগমারী লেভেল ক্রসিংয়ের ওপর মাহেন্দ্রাটি আটকে পড়ে। এ সময় রাজশাহী থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী তিতুমীর এক্সপ্রেস ট্রেনটি বাগমারী লেভেলক্র সিংয়ের ওপর আটকে পড়া মাহেন্দ্রাটিকে ধাক্কা দিলে চূর্ণবিচূর্ণ হয়ে যায় মাহেন্দ্রাটি। ঘটনাস্থলে মারা যান চালক সুজন।

এদিকে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের গোসাইগোবিন্দপুর গ্রামের শুলাকুড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কাছে ট্রেনে কাটা পড়ে কেসমত আলী শেখ নামে এক প্রতিবন্ধী নিহত হয়েছেন। তিনি ওই ইউনিয়নের স্বর্পবেতেঙ্গা গ্রামের মৃত আসমত শেখের ছেলে। ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ জানান, শারীরিক ও মানসিক প্রতিবন্ধী কেসমত আলী শেখ বুধবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে রেললাইনের ওপর দিয়ে হাঁটছিলেন। এ সময় গোপালগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা রাজশাহীগামী টুঙ্গীপাড়া এক্সপ্রেস ট্রেনে তিনি কাটা পড়েন।

অপরদিকে পাবনার সুজানগরে ট্রেনের সঙ্গে ট্রলির সংঘর্ষের ঘটনায় আহত আলম হোসেন নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এর ফলে সুজানগরে ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল দুয়ে।