সুজানগরের সেই অদম্য মুন্নীর পাশে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়
jugantor
যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশ
সুজানগরের সেই অদম্য মুন্নীর পাশে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়
হুইপ নিলেন পড়ালেখার দায়িত্ব * ডিসি শোধ করলেন ভ্যান কেনার টাকা

  পাবনা ও সুজানগর প্রতিনিধি  

০৯ এপ্রিল ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর দারিদ্র্য জয় করে মেডিক্যাল কলেজে চান্স পাওয়া পাবনার সুজানগরের জান্নাতুম মৌমিতা মুন্নীর দুঃখ ঘুচতে বসেছে। মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত মুন্নীর ভাগ্যের চাকা ঘুরতে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় তার মেডিকেল কলেজে ভর্তির ব্যবস্থা করেছে। পাবনার জেলা প্রশাসক মুন্নীর বাবার ঋণ করে কেনা ভ্যানের টাকা পরিশোধের ব্যবস্থা করেছেন। জাতীয় সংসদের হুইপ এবং দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ-সদস্য ইকবালুর রহিম মুন্নীর পড়ালেখার সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি মুন্নী ও তার বাবার সঙ্গে ভিডিও কলের মাধ্যমে কথা বলেছেন। তিনি মুন্নীর এমবিবিএস পাস করা পর্যন্ত যাবতীয় ব্যয় বহন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান মুন্নীর পড়াশোনার সব ব্যবস্থা নিতে এগিয়ে এসেছেন। গত মঙ্গলবার যুগান্তরে ‘মেডিক্যালে চান্স পেয়েও ভর্তি নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় মুন্নী’ শিরোনামে মানবিক স্টোরি ছাপা হলে তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন এবং প্রতিষ্ঠানের নজরে আসে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা পেয়ে বৃহস্পতিবার পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ মুন্নী ও তার পরিবারকে তার দপ্তরে ডেকে পাঠান। সুজানগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রওশন আলী গাড়ির ব্যবস্থা করে পাবনায় জেলা প্রশাসকের দপ্তরে আসার সহায়তা করেন। বেলা দেড়টায় জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদের কার্যালয়ে মুন্নীর বাবা ভ্যানচালক বাকি বিল্লাহ মেয়ে মুন্নীকে নিয়ে আসেন। সঙ্গে ছিলেন যুগান্তরের পাবনা প্রতিনিধি আখতারুজ্জামান আখতার ও সুজানগর উপজেলা প্রতিনিধি আব্দুল আলীম রিপন। এ সময় জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ মুন্নী ও তার বাবাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। জেলা প্রশাসক মুন্নীর বাবার জন্য একটি সরকারি ঘর দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি। এদিকে মুন্নীর ভর্তি-পরবর্তী পড়ালেখা সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত সব ব্যয় বহন করার সহায়তার প্রস্তাব করেছেন বেশ কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। রানার গ্রুপের পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান উজ্জল, গিভেন্সী গ্রুপের চেয়ারম্যান খতিব আব্দুল জাহিদ, দেশের বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. খাজা নাজিমুদ্দিন, ঢাকার প্রতিষ্ঠান সাইল্যান্স হ্যান্ডস সাপোর্ট সোসাইটিসহ দেশ-বিদেশের অনেক ব্যক্তি, সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান মুন্নীর পড়ালেখার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য যোগাযোগ করেন। এছাড়া সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিনুর ইসলাম শাহিন, ইউএনও রওশন আলী মুন্নীর পরিবারে প্রতি বিশেষ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। মুন্নীর পরিবার যুগান্তরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মুন্নী পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার উদয়পুর গ্রামের বাকী বিল্লাহ ও রওশন আরা খাতুনের মেয়ে। তিনি এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ দিনাজপুরে এ বছর চান্স পেয়েছেন।

যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশ

সুজানগরের সেই অদম্য মুন্নীর পাশে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়

হুইপ নিলেন পড়ালেখার দায়িত্ব * ডিসি শোধ করলেন ভ্যান কেনার টাকা
 পাবনা ও সুজানগর প্রতিনিধি 
০৯ এপ্রিল ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর দারিদ্র্য জয় করে মেডিক্যাল কলেজে চান্স পাওয়া পাবনার সুজানগরের জান্নাতুম মৌমিতা মুন্নীর দুঃখ ঘুচতে বসেছে। মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত মুন্নীর ভাগ্যের চাকা ঘুরতে শুরু করেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় তার মেডিকেল কলেজে ভর্তির ব্যবস্থা করেছে। পাবনার জেলা প্রশাসক মুন্নীর বাবার ঋণ করে কেনা ভ্যানের টাকা পরিশোধের ব্যবস্থা করেছেন। জাতীয় সংসদের হুইপ এবং দিনাজপুর-৩ আসনের সংসদ-সদস্য ইকবালুর রহিম মুন্নীর পড়ালেখার সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে তিনি মুন্নী ও তার বাবার সঙ্গে ভিডিও কলের মাধ্যমে কথা বলেছেন। তিনি মুন্নীর এমবিবিএস পাস করা পর্যন্ত যাবতীয় ব্যয় বহন করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। এছাড়া বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান মুন্নীর পড়াশোনার সব ব্যবস্থা নিতে এগিয়ে এসেছেন। গত মঙ্গলবার যুগান্তরে ‘মেডিক্যালে চান্স পেয়েও ভর্তি নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় মুন্নী’ শিরোনামে মানবিক স্টোরি ছাপা হলে তা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ বিভিন্ন ব্যক্তি, সংগঠন এবং প্রতিষ্ঠানের নজরে আসে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের নির্দেশনা পেয়ে বৃহস্পতিবার পাবনার জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ মুন্নী ও তার পরিবারকে তার দপ্তরে ডেকে পাঠান। সুজানগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রওশন আলী গাড়ির ব্যবস্থা করে পাবনায় জেলা প্রশাসকের দপ্তরে আসার সহায়তা করেন। বেলা দেড়টায় জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদের কার্যালয়ে মুন্নীর বাবা ভ্যানচালক বাকি বিল্লাহ মেয়ে মুন্নীকে নিয়ে আসেন। সঙ্গে ছিলেন যুগান্তরের পাবনা প্রতিনিধি আখতারুজ্জামান আখতার ও সুজানগর উপজেলা প্রতিনিধি আব্দুল আলীম রিপন। এ সময় জেলা প্রশাসক কবীর মাহমুদ মুন্নী ও তার বাবাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। জেলা প্রশাসক মুন্নীর বাবার জন্য একটি সরকারি ঘর দেওয়ার প্রতিশ্রুতিও দেন তিনি। এদিকে মুন্নীর ভর্তি-পরবর্তী পড়ালেখা সম্পন্ন হওয়া পর্যন্ত সব ব্যয় বহন করার সহায়তার প্রস্তাব করেছেন বেশ কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। রানার গ্রুপের পক্ষে আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান উজ্জল, গিভেন্সী গ্রুপের চেয়ারম্যান খতিব আব্দুল জাহিদ, দেশের বিশিষ্ট মেডিসিন বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. খাজা নাজিমুদ্দিন, ঢাকার প্রতিষ্ঠান সাইল্যান্স হ্যান্ডস সাপোর্ট সোসাইটিসহ দেশ-বিদেশের অনেক ব্যক্তি, সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান মুন্নীর পড়ালেখার দায়িত্ব নেওয়ার জন্য যোগাযোগ করেন। এছাড়া সুজানগর উপজেলা চেয়ারম্যান শাহিনুর ইসলাম শাহিন, ইউএনও রওশন আলী মুন্নীর পরিবারে প্রতি বিশেষ সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। মুন্নীর পরিবার যুগান্তরের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। মুন্নী পাবনা জেলার সুজানগর উপজেলার উদয়পুর গ্রামের বাকী বিল্লাহ ও রওশন আরা খাতুনের মেয়ে। তিনি এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ দিনাজপুরে এ বছর চান্স পেয়েছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন