চরফ্যাশনে আসামি ধরতে গিয়ে গৃহবধূর মাথা ফাটাল পুলিশ
jugantor
চরফ্যাশনে আসামি ধরতে গিয়ে গৃহবধূর মাথা ফাটাল পুলিশ

  চরফ্যাশন (দক্ষিণ) প্রতিনিধি  

০৭ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চরফ্যাশনে আসামি ইউসুফ আলীর স্ত্রী জাহেদা বেগমকে মারধর করে হেলমেট দিয়ে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে থানার তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ শিবা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রতিবেশী ও স্বজনরা গুরুতর আহত গৃহবধূকে উদ্ধার করে রাতেই চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করে।

জানা যায়, আটককৃত ইউসুফ পালোয়ানের চাচাতো ভাই জাকিরের স্ত্রী আসমা বেগমকে নির্যাতনের অভিযোগ চরফ্যাশন থানায় একটি মামলা করা হয়। ওই মামলা আসামি ইউসুফ পালোয়ান নামের ওই ব্যক্তিসহ আরও ৫ জন আসামি রয়েছে। তাদের গ্রেফতার করতেই ওই বাড়িতে পুলিশ সদস্যরা অভিযানে গিয়েছিল। তবে পুলিশের দাবি আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাকালে ওই নারীর সঙ্গে ঝাপটাঝাপটিতে ঘরের দরজার সঙ্গে আঘাত লেগে তার মাথা ফেটে যায়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধূ জাহেদা জানান, বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওই গ্রামের তার স্বামী ইউসুফ পালোয়ানে বাড়িতে সহকারী পুলিশ পরিদর্শক নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্য ওই বাড়িতে হানা দিয়ে তার স্বামীর বসতঘর ঘিরে ফেলে। কিছু বুঝে উঠার আগেই পুলিশ তার স্বামী ইউসুফ পালোয়ানকে আটক করেন। এ সময় তিনি (জাহেদা বেগম) স্বামীকে আটকের কারণ জানতে চাইলে পুলিশ সদস্যরা গালমন্দ শুরু করেন। ওই সময় তার ছেলে শামিম ঘরেই ছিল। তার ছেলে শামিমও তার বাবাকে আটকের কারণ জানতে চাইলে ছেলেকেও মারধর করে। এ নিয়ে তার সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের তর্ক বাধে। তর্কের জের ধরে পুলিশ সদস্যরা তাকে এলোপাথারি মারধর শুরু করেন। পুলিশ সদস্যদের হাতে থাকা হেলমেট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করেন।

চরফ্যাশন থানার ওসি মনির হোসেন মিয়া জানান, এক নারীর দায়ের করা মামলার আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালায় এবং ইউসুফ নামের এক আসামিকে আটক করে। তবে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ওই নারীকে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়ার অভিযোগ সঠিক নয়।

চরফ্যাশনে আসামি ধরতে গিয়ে গৃহবধূর মাথা ফাটাল পুলিশ

 চরফ্যাশন (দক্ষিণ) প্রতিনিধি 
০৭ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

চরফ্যাশনে আসামি ইউসুফ আলীর স্ত্রী জাহেদা বেগমকে মারধর করে হেলমেট দিয়ে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে থানার তিন পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। বুধবার রাত সাড়ে ৮টায় আবদুল্লাহপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ শিবা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রতিবেশী ও স্বজনরা গুরুতর আহত গৃহবধূকে উদ্ধার করে রাতেই চরফ্যাশন হাসপাতালে ভর্তি করে।

জানা যায়, আটককৃত ইউসুফ পালোয়ানের চাচাতো ভাই জাকিরের স্ত্রী আসমা বেগমকে নির্যাতনের অভিযোগ চরফ্যাশন থানায় একটি মামলা করা হয়। ওই মামলা আসামি ইউসুফ পালোয়ান নামের ওই ব্যক্তিসহ আরও ৫ জন আসামি রয়েছে। তাদের গ্রেফতার করতেই ওই বাড়িতে পুলিশ সদস্যরা অভিযানে গিয়েছিল। তবে পুলিশের দাবি আসামি ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টাকালে ওই নারীর সঙ্গে ঝাপটাঝাপটিতে ঘরের দরজার সঙ্গে আঘাত লেগে তার মাথা ফেটে যায়।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গৃহবধূ জাহেদা জানান, বুধবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে ওই গ্রামের তার স্বামী ইউসুফ পালোয়ানে বাড়িতে সহকারী পুলিশ পরিদর্শক নাজমুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্য ওই বাড়িতে হানা দিয়ে তার স্বামীর বসতঘর ঘিরে ফেলে। কিছু বুঝে উঠার আগেই পুলিশ তার স্বামী ইউসুফ পালোয়ানকে আটক করেন। এ সময় তিনি (জাহেদা বেগম) স্বামীকে আটকের কারণ জানতে চাইলে পুলিশ সদস্যরা গালমন্দ শুরু করেন। ওই সময় তার ছেলে শামিম ঘরেই ছিল। তার ছেলে শামিমও তার বাবাকে আটকের কারণ জানতে চাইলে ছেলেকেও মারধর করে। এ নিয়ে তার সঙ্গে পুলিশ সদস্যদের তর্ক বাধে। তর্কের জের ধরে পুলিশ সদস্যরা তাকে এলোপাথারি মারধর শুরু করেন। পুলিশ সদস্যদের হাতে থাকা হেলমেট দিয়ে তার মাথায় আঘাত করেন।

চরফ্যাশন থানার ওসি মনির হোসেন মিয়া জানান, এক নারীর দায়ের করা মামলার আসামিদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালায় এবং ইউসুফ নামের এক আসামিকে আটক করে। তবে পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ওই নারীকে পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়ার অভিযোগ সঠিক নয়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন