বাঘায় আবাদি জমিতে চলছে পুকুর খনন
jugantor
বাঘায় আবাদি জমিতে চলছে পুকুর খনন

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি  

১১ মে ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাঘায় অপরিকল্পিতভাবে আবাদি জমিতে চলছে পুকুর খনন। এ নিয়ে স্থানীয়রা বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ করলেও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। সরেজমিন সোমবার সকালে উপজেলার বলিহার বিলে দেখা গেছে, চলছে পুকুর খননের মহা উৎসব। এছাড়া ভেঁকু দিয়ে পুকুর খনন করা হচ্ছে চাকিপাড়া বিলে, বাউসা ইউনিয়নের মধ্যে মাঝপাড়া, দিঘার চুনির বিল, কামারপাড়া বিল ও পীরগাছা, মনিগ্রাম ইউনিয়নের হেলালপুর, কলাবাড়িয়া ও হাবাসপুর এবং বাজুবাঘা ইউনিয়নের হিজলপল্লী, বারখাদিয়া ও নওটিকা এলাকায়। এসব এলাকায় অপরিকল্পিতভাবে অসংখ্য পুকুর খনন করা হচ্ছে। ফলে বর্ষা মৌসুমে বিলে বিভিন্ন উৎপাদিত ফসলি জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। পুকুর খননে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে প্রায় ৫০ হাজার বিঘা জমিতে আবাদ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে পুকুর কাটার কারণে শত শত বিঘা জমিতে রোপণ করা আম গাছের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। গত ৩-৪ বছর ধরে পুকুর খননের কারণে এলাকার কৃষকরা ফসল ফলাতে পারছেন না। ফলে শত শত কৃষক মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অনেকের দাবি, নিচু জমিতে ফসল হয় না। তাই পুকুর খনন করা হয়েছে। ইউএনও পাপিয়া সুলতানা জানান, যেখানে পুকুর খনন হচ্ছে, সেখানে গিয়ে অভিযান চালিয়ে ভেঁকু সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

বাঘায় আবাদি জমিতে চলছে পুকুর খনন

 বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি 
১১ মে ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বাঘায় অপরিকল্পিতভাবে আবাদি জমিতে চলছে পুকুর খনন। এ নিয়ে স্থানীয়রা বিভিন্ন স্থানে অভিযোগ করলেও কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে না। সরেজমিন সোমবার সকালে উপজেলার বলিহার বিলে দেখা গেছে, চলছে পুকুর খননের মহা উৎসব। এছাড়া ভেঁকু দিয়ে পুকুর খনন করা হচ্ছে চাকিপাড়া বিলে, বাউসা ইউনিয়নের মধ্যে মাঝপাড়া, দিঘার চুনির বিল, কামারপাড়া বিল ও পীরগাছা, মনিগ্রাম ইউনিয়নের হেলালপুর, কলাবাড়িয়া ও হাবাসপুর এবং বাজুবাঘা ইউনিয়নের হিজলপল্লী, বারখাদিয়া ও নওটিকা এলাকায়। এসব এলাকায় অপরিকল্পিতভাবে অসংখ্য পুকুর খনন করা হচ্ছে। ফলে বর্ষা মৌসুমে বিলে বিভিন্ন উৎপাদিত ফসলি জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। পুকুর খননে বর্ষা মৌসুমে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়ে প্রায় ৫০ হাজার বিঘা জমিতে আবাদ করা সম্ভব হয়নি। এদিকে পুকুর কাটার কারণে শত শত বিঘা জমিতে রোপণ করা আম গাছের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। গত ৩-৪ বছর ধরে পুকুর খননের কারণে এলাকার কৃষকরা ফসল ফলাতে পারছেন না। ফলে শত শত কৃষক মানবেতর জীবনযাপন করছেন। অনেকের দাবি, নিচু জমিতে ফসল হয় না। তাই পুকুর খনন করা হয়েছে। ইউএনও পাপিয়া সুলতানা জানান, যেখানে পুকুর খনন হচ্ছে, সেখানে গিয়ে অভিযান চালিয়ে ভেঁকু সরিয়ে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন