যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশে কর্মচারীদের দিয়ে মানববন্ধন
jugantor
নাজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুর্নীতি
যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশে কর্মচারীদের দিয়ে মানববন্ধন

  নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি  

২৪ জুন ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পিরোজপুরের নাজিরপুরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচএ) ডাক্তার ফজলে বারীর বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ যুগান্তরে প্রকাশের প্রতিবাদে বুধবার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের প্রধান ফটক আটকিয়ে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও কর্মচারীরা অংশ নেন। এতে বক্তব্য দেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডাক্তার শুভ ওঝাসহ হাসপাতালের কর্মচারীরা।

জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত কর্মচারীদের ডেকে এনে এ মানববন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করা হয়। এতে ওই দিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত হয়।

ওই মানবন্ধনের অংশ নেওয়া ডাক্তার এএইচএম মোস্তফা কায়সার জানান, মানববন্ধনের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। সবাইকে মানববন্ধনে দাঁড়াতে দেখে সেখানে অংশ নেন। শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী সুজন গাইন জানান, তাকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইপিআই টেকনেশিয়ান মো. শহিদুল ইসলাম ট্রেনিংয়ের কথা বলে জরুরিভাবে ডেকে আনেন। পরে মানববন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করান। এ ব্যাপারে ইপিআই টেকনেশিয়ান মো. শহিদুল ইসলামের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, মানববন্ধনে অংশ নিতে তিনি কাউকে বলেননি বা বাধ্য করেননি। জেলা হাসপাতালের সিভিল সার্জন ডাক্তার মো. হাসানাত ইউসুফ জাকির সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, দায়িত্ব বাদ দিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি তার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিচ্ছেন।

নাজিরপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের দুর্নীতি

যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশে কর্মচারীদের দিয়ে মানববন্ধন

 নাজিরপুর (পিরোজপুর) প্রতিনিধি 
২৪ জুন ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পিরোজপুরের নাজিরপুরের স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচএ) ডাক্তার ফজলে বারীর বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সংবাদ যুগান্তরে প্রকাশের প্রতিবাদে বুধবার মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনের প্রধান ফটক আটকিয়ে সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১০টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ও কর্মচারীরা অংশ নেন। এতে বক্তব্য দেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক চিকিৎসক ডাক্তার শুভ ওঝাসহ হাসপাতালের কর্মচারীরা।

জানা গেছে, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্তব্যরত কর্মচারীদের ডেকে এনে এ মানববন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করা হয়। এতে ওই দিন স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সেবা ব্যাহত হয়।

ওই মানবন্ধনের অংশ নেওয়া ডাক্তার এএইচএম মোস্তফা কায়সার জানান, মানববন্ধনের বিষয়ে তিনি কিছু জানেন না। সবাইকে মানববন্ধনে দাঁড়াতে দেখে সেখানে অংশ নেন। শাঁখারীকাঠী ইউনিয়নের স্বাস্থ্য সহকারী সুজন গাইন জানান, তাকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ইপিআই টেকনেশিয়ান মো. শহিদুল ইসলাম ট্রেনিংয়ের কথা বলে জরুরিভাবে ডেকে আনেন। পরে মানববন্ধনে অংশ নিতে বাধ্য করান। এ ব্যাপারে ইপিআই টেকনেশিয়ান মো. শহিদুল ইসলামের কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি জানান, মানববন্ধনে অংশ নিতে তিনি কাউকে বলেননি বা বাধ্য করেননি। জেলা হাসপাতালের সিভিল সার্জন ডাক্তার মো. হাসানাত ইউসুফ জাকির সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হলে তিনি জানান, দায়িত্ব বাদ দিয়ে মানববন্ধনে অংশ নেওয়ার বিষয়টি তার জানা নেই। বিষয়টি খোঁজ নিচ্ছেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন