বড়াইগ্রামে পাঁচ বছর তালাবদ্ধ ইসিজি মেশিন
jugantor
বড়াইগ্রামে পাঁচ বছর তালাবদ্ধ ইসিজি মেশিন

  অহিদুল হক, বড়াইগ্রাম (নাটোর)  

০৬ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড়াইগ্রামে ৩১ শয্যার জনবল দিয়েই চলছে ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। হাসপাতালের স্টোররুমে ৫ বছর ধরে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়েছে অত্যাধুনিক ইসিজি মেশিন। টেকনিশিয়ান না থাকায় এটি রোগীদের কোনো কাজে আসছে না। এছাড়া এক্সরে মেশিনটি ১৫ বছর ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। তাই হাসপাতালে সেবা না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে রোগীদের। হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার ও কনসালটেন্টের ১৭টি মঞ্জুরিকৃত পদ থাকলেও বর্তমানে কর্মরত আছে মাত্র ৯ জন। এছাড়া ১৭ জন স্বাস্থ্য সহকারী, একমাত্র প্রধান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, নার্সিং সুপারভাইজার, পরিসংখ্যানবিদ ও জুনিয়র মেকানিক্স এবং দুজন এমএলএসএসের পদ শূন্য রয়েছে।

জানা যায়, পাঁচ বছর আগে হাসপাতালে একটি ইসিজি মেশিন দেয়া হয়েছে। তবে ইসিজি টেকনেশিয়ান না থাকায় শোভাবর্ধন করা ছাড়া মেশিনটি কোনো কাজেই লাগছে না। হাসপাতালে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট থাকলেও এক্স-রে মেশিন ১৫ বছর ধরে নষ্ট হয়ে আছে। একটি অ্যাম্বুলেন্স এক যুগ ধরে বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামান বলেন, টেকনিশিয়ান পেলে ইসিজি সেবা চালু করা হবে।

বড়াইগ্রামে পাঁচ বছর তালাবদ্ধ ইসিজি মেশিন

 অহিদুল হক, বড়াইগ্রাম (নাটোর) 
০৬ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

বড়াইগ্রামে ৩১ শয্যার জনবল দিয়েই চলছে ৫০ শয্যার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। হাসপাতালের স্টোররুমে ৫ বছর ধরে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়েছে অত্যাধুনিক ইসিজি মেশিন। টেকনিশিয়ান না থাকায় এটি রোগীদের কোনো কাজে আসছে না। এছাড়া এক্সরে মেশিনটি ১৫ বছর ধরে নষ্ট হয়ে পড়ে আছে। তাই হাসপাতালে সেবা না পেয়ে ফিরে যেতে হচ্ছে রোগীদের। হাসপাতালে মেডিকেল অফিসার ও কনসালটেন্টের ১৭টি মঞ্জুরিকৃত পদ থাকলেও বর্তমানে কর্মরত আছে মাত্র ৯ জন। এছাড়া ১৭ জন স্বাস্থ্য সহকারী, একমাত্র প্রধান সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর, নার্সিং সুপারভাইজার, পরিসংখ্যানবিদ ও জুনিয়র মেকানিক্স এবং দুজন এমএলএসএসের পদ শূন্য রয়েছে।

জানা যায়, পাঁচ বছর আগে হাসপাতালে একটি ইসিজি মেশিন দেয়া হয়েছে। তবে ইসিজি টেকনেশিয়ান না থাকায় শোভাবর্ধন করা ছাড়া মেশিনটি কোনো কাজেই লাগছে না। হাসপাতালে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট থাকলেও এক্স-রে মেশিন ১৫ বছর ধরে নষ্ট হয়ে আছে। একটি অ্যাম্বুলেন্স এক যুগ ধরে বিকল হয়ে পড়ে রয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. আসাদুজ্জামান বলেন, টেকনিশিয়ান পেলে ইসিজি সেবা চালু করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

ঘটনাপ্রবাহ : বেহাল স্বাস্থ্যসেবা