ভৈরবে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা ভাড়া নিয়ে দখল
jugantor
ভৈরবে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা ভাড়া নিয়ে দখল

  ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৫ জুলাই ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শাহানা বেগম মিতা। পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া, বাড়ি ভৈরব পৌর শহরের জগনাথপুর গ্রামে। ২০১০ সালে শাহানার মা মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হাফিজা বেগম পাথর বালি ব্যবসায়ী ভৈরব ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসের মালিক মো. সাজ্জাদ হোসেন মামুনের কাছে ৫ বছরের জন্য ১৬ শতক জায়গা ভাড়া দেন। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে ভাড়ার মেয়াদ শেষ হলে তাদের জায়গাটি খালি করে দিতে বলেন জায়গার মালিক। জায়গাটি না ছেড়ে মেশিনপত্র সরাতে আরও ৪ মাস সময় চায় মামুন। পরে শালিসির মাধ্যমে তাকে ৪ মাস সময় বৃদ্ধি করা হয়। সাজ্জাদ হোসেন মামুনের ভাই সাখাওয়াত হোসেন সুজন। তারা দুই ভাই ভৈরবের জগনাথপুর এলাকায়। একসঙ্গে ব্যবসা করে। এরপর সুজন কটুকৌশলে জায়গার সাবেক মালিকের ওয়ারিশদের কাছ থেকে সাব- রেজিস্ট্রারি অফিস থেকে দলিল করে নেয়। এরপর পরিবারের পক্ষ থেকে হাফিজার মেয়ে শাহানা বেগম জায়গাটি ফেরত পেতে কিশোরগঞ্জ যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করেন। এরই মধ্য তার মা হাফিজা বেগম কয়েক মাস আগে মৃত্যুবরণ করে। জায়গার দখল না ছেড়ে এ পরিবারটিকে হয়রানি করতে এখন আবার ১০ জনকে আসামি করে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা করে মামুন। এভাবেই একের পর এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানি করে যাচ্ছে মামুন ও সুজন।

এ বিষয়ে সাজ্জাদ হোসেন মামুনের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, আমি জায়গার ওয়ারিশদের কাছ থেকে বৈধভাবে জায়গা ক্রয় করে ব্যবসা করছি। তাদের দাবি অযৌক্তিক।

ভৈরবে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের জায়গা ভাড়া নিয়ে দখল

 ভৈরব (কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৫ জুলাই ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শাহানা বেগম মিতা। পিতা বীর মুক্তিযোদ্ধা হাবিবুর রহমান ভূঁইয়া, বাড়ি ভৈরব পৌর শহরের জগনাথপুর গ্রামে। ২০১০ সালে শাহানার মা মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী হাফিজা বেগম পাথর বালি ব্যবসায়ী ভৈরব ডেভেলপমেন্ট সার্ভিসের মালিক মো. সাজ্জাদ হোসেন মামুনের কাছে ৫ বছরের জন্য ১৬ শতক জায়গা ভাড়া দেন। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে ভাড়ার মেয়াদ শেষ হলে তাদের জায়গাটি খালি করে দিতে বলেন জায়গার মালিক। জায়গাটি না ছেড়ে মেশিনপত্র সরাতে আরও ৪ মাস সময় চায় মামুন। পরে শালিসির মাধ্যমে তাকে ৪ মাস সময় বৃদ্ধি করা হয়। সাজ্জাদ হোসেন মামুনের ভাই সাখাওয়াত হোসেন সুজন। তারা দুই ভাই ভৈরবের জগনাথপুর এলাকায়। একসঙ্গে ব্যবসা করে। এরপর সুজন কটুকৌশলে জায়গার সাবেক মালিকের ওয়ারিশদের কাছ থেকে সাব- রেজিস্ট্রারি অফিস থেকে দলিল করে নেয়। এরপর পরিবারের পক্ষ থেকে হাফিজার মেয়ে শাহানা বেগম জায়গাটি ফেরত পেতে কিশোরগঞ্জ যুগ্ম জেলা জজ আদালতে মামলা করেন। এরই মধ্য তার মা হাফিজা বেগম কয়েক মাস আগে মৃত্যুবরণ করে। জায়গার দখল না ছেড়ে এ পরিবারটিকে হয়রানি করতে এখন আবার ১০ জনকে আসামি করে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা করে মামুন। এভাবেই একের পর এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানি করে যাচ্ছে মামুন ও সুজন।

এ বিষয়ে সাজ্জাদ হোসেন মামুনের সঙ্গে কথা হলে তিনি জানান, আমি জায়গার ওয়ারিশদের কাছ থেকে বৈধভাবে জায়গা ক্রয় করে ব্যবসা করছি। তাদের দাবি অযৌক্তিক।

 

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন