চট্টগ্রামের হালিশহরে পানিবাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব

দু’দিনে ৩১ জন্ডিস রোগী শনাক্ত : এক মাসে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ৩০২ জন

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ০৪ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নগরীর হালিশহর এলাকায় দেখা দিয়েছে জন্ডিস ও ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ। বৃহস্পতিবার এ এলাকায় নতুন করে আরও ৬ জন জন্ডিস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। তার আগের দিন এ ধরনের ২৫ জন রোগী শনাক্ত করা হয়েছিল। এ নিয়ে দু’দিনে ৩১ জন্ডিস রোগী শনাক্ত করা হল। এদিকে রোগ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়ায় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে গর্ভবতী নারীদের ওই এলাকা থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন চট্টগ্রাম জেলা সিভিল সার্জন আজিজুর রহমান সিদ্দিকী। এছাড়া সেখানে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে চালু করা হচ্ছে একটি অস্থায়ী মেডিকেল ক্যাম্প। রোববার এ ক্যাম্প উদ্বোধন করা হবে। তবে বৃহস্পতিবার থেকেই পানি বিশুদ্ধকরণ বড়ি ও খাবার স্যালাইন বিতরণ শুরু করা হয়েছে। ২ লাখ পানি বিশুদ্ধকরণ বড়ি ও ১ লাখ খাবার স্যালাইন বিতরণ করা হবে। জেলা সিভিল সার্জন এসব তথ্য যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন। নগরীর হালিশহর অপেক্ষাকৃত নিচু এলাকা হিসেবে পরিচিত। এ এলাকায় কয়েক লাখ লোক বসবাস করেন। জেলা সিভিল সার্জন বলেন, ‘দূষিত পানি পান করার কারণে হালিশহরে লোকজন জন্ডিস ও ডায়রিয়া রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এ দূষণ ওয়াসার পাইপ লাইন থেকে হতে পারে, আবার বিভিন্ন বাসাবাড়ির রিজার্ভার দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করার কারণেও হতে পারে। পানির স্যাম্পল কালেকশন করে পরীক্ষার জন্য ঢাকায় রোগতত্ত্ব-রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানে (আইইডিসিআর) পাঠানো হয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে ফলাফল পাওয়া যাবে।’ তবে চট্টগ্রাম ওয়াসার দাবি, তাদের নিজস্ব পরীক্ষায় হালিশহর এলাকার পানিতে জীবাণু পাওয়া যায়নি। ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম ফজলুল্লাহ সাংবাদিকদের জানান, তারা হালিশহর এলাকার বিভিন্ন স্পট থেকে পানি নিয়ে পরীক্ষা করে দেখেছেন। তাতে কোনো জীবাণু পাওয়া যায়নি। তবে কিছু কিছু বাসা-বাড়িতে পানির রিজার্ভারে ময়লা দেখা গেছে। দীর্ঘদিন পরিষ্কার না করার কারণে এসব রিজার্ভার থেকে জীবাণু যাচ্ছে পানিতে। সিভিল সার্জন ডা. আজিজুর রহমান সিদ্দিকী জানান, ‘নগরীর রামপুর, সবুজবাগ, উত্তর আগ্রাবাদ ও উত্তর-মধ্যম হালিশহর এলাকায় জন্ডিস, টাইফয়েড ও ডায়রিয়ার প্রকোপ বেড়েছে। আমাদের ধারণা, ওয়াসার পানির লাইন স্যুয়ারেজ লাইনের সঙ্গে কোথাও সংযুক্ত হয়ে পড়ায় হালিশহর এলাকায় এ রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। তাই পানি অন্তত ৩০ মিনিট ধরে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে খাওয়ার পাশাপাশি তৈজসপত্র ধোয়ার কাজেও ব্যবহার করতে হবে।’

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter