মাকে জবাই করে হত্যা

দৌলতখানে মামলা নিতে পুলিশের গড়িমসি

প্রকাশ : ০৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  ভোলা ও দৌলতখান প্রতিনিধি

ভোলার দৌলতখানে জবাই করে মাকে হত্যা করার ঘটনার সঙ্গে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দিতে গিয়ে শনিবার পুলিশের হয়রানির মুখে পড়েন নিহত বকুল বেগমের মেঝ মেয়ে আমেনা বেগম। শুক্রবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় বকুল বেগমের একমাত্র ছেলে মো. রেজাউল করিম ছুরি দিয়ে গলা কেটে তার মাকে হত্যা করেন। একই সঙ্গে নিজেও আত্মহত্যার চেষ্টা চালান। দৌলতখান থানার ওসি এনায়েত হোসেন জানান, এ ঘটনা রেজাউল করিম একাই ঘটিয়েছে। তাই আসামি একজন হবে। মামলা নিতে তিনি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশের অপেক্ষায় আছেন বলেও জানান। অপরদিকে নিহতের ৫ মেয়ের দাবি, যাদের প্ররোচনায় তার ভাই মা’কে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে তারা কেন আসামি হবে না। পুলিশ সাজানো মামলায় স্বাক্ষর করতে বলে। এমনকি আমেনা বেগমকে সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত থানায় আটকে রাখে বলেও অভিযোগ মেয়েদের। তবে পুলিশ আটকের বিষয়টি অস্বীকার করেছে। এরা জানান, তার ভাই গত দুই মাস বাড়িতে বেকার ছিল। এ অবস্থায় গোপনে বাড়ির ৬ শতাংশ জমি ও ঘর কিনে নেয় ইট-বালুর ব্যবসায়ী হানিফ গংরা। নানা প্রলোভন দেখিয়ে কিছু টাকা ধরিয়ে দিয়ে সাদা স্ট্যাম্পে রেজাউল করিমের স্বাক্ষর নেয়। ফলে এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে হানিফ গ্র“প জড়িত বলেও জানান আমেনা বেগম।