পুঠিয়া পৌর মেয়রের বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ

  রাজশাহী ব্যুরো ০৬ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

রাজশাহীর পুঠিয়া পৌরসভার মেয়রের বিরুদ্ধে জোর করে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে। জমির মালিক দাবি করে লাল মোহাম্মদ শিকদার নামে এক ব্যক্তি সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ তুলেছেন। শনিবার সকালে রাজশাহী নগরীর ডিঙ্গাডোবা এলাকায় সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। পুঠিয়ার গোহালী গ্রামে লাল মোহাম্মদের বাড়ি। তিনি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের একজন সহকারী পরিচালক। আর পুঠিয়া পৌরসভার মেয়র রবিউল ইসলাম রবি উপজেলা যুবলীগের সভাপতি। সংবাদ সম্মেলনে লাল মোহাম্মদ বলেন, ‘পুঠিয়ার কাঁঠালবাড়িয়া এলাকায় নিজের নামে আমার সাড়ে ৬ শতক জমি আছে। দীর্ঘ ২২ বছর ধরে আমি নিয়মিত খাজনা পরিশোধ করে জমিটি ভোগদখল করে আসছি। হঠাৎ ১৫ এপ্রিল মেয়র রবি তার দলবল নিয়ে জমিতে গিয়ে আমাকে বলেন, এ জমিটি তিনি কোনো এক ব্যক্তির কাছ থেকে কিনেছেন। এখন এখানে তিনি বহুতল ভবন নির্মাণ করবেন। মেয়রের এ কথা শুনে আমি হতভম্ব হয়ে যাই।’ লিখিত বক্তব্যে লাল মোহাম্মদ আরও বলেন, জমি দখলের প্রতিবাদ করলে মেয়র তাকে বলেন, যে ব্যক্তির কাছ থেকে তিনি জমি কিনেছেন তিনি তাকে জমি বুঝিয়ে দিয়েছেন। এখন জমির মালিকানা দাবি করলে তার এমন পরিস্থিতি করা হবে যা দেখে মানুষ আঁতকে উঠবে। এভাবে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে মেয়র প্রায় ২৫ লাখ টাকা মূল্যের এই জমিটি দখলে নিয়েছেন। ইতিমধ্যে জমিতে তিনি বহুতল ভবন নির্মাণের কাজও শুরু করেছেন। ভুক্তভোগী লাল মোহাম্মদ জানান, ক্ষমতা আর পেশিশক্তির কাছে পরাজিত হয়ে ঘটনার দু’দিন পর তিনি মেয়র রবি, তার ভাই ছবি এবং দুই সহযোগীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন। আদালত জমিটিতে ১৪৪ ধারা জারি করেছেন। কিন্তু আদালতের সেই আদেশ উপেক্ষা করে মেয়র ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। এ নিয়ে পুলিশের সহায়তা চেয়েও পাচ্ছেন না তিনি। তার দাবি, আদালতের আদেশের কপি নিয়ে বারবার থানায় গেলেও পুলিশ এ ব্যাপারে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না। নিজের জমি রক্ষায় লাল মোহাম্মদ সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। পাশাপাশি এভাবে জমি দখল করে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ করায় যুবলীগ নেতা রবির বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ারও দাবি জানান তিনি। জমি দখলের ব্যাপারে জানতে চাইলে মেয়র রবিউল ইসলাম রবি বলেন, দেড় মাস আগে আমার মামাতো ভাই নঈম উদ্দিনের কাছ থেকে জমিটি কিনেছি। লাল মোহাম্মদের জমি আর আমার কেনা জমি আলাদা। আমার বিরুদ্ধে ‘মিথ্যা’ মামলা করা হয়েছে। তাই আমি নির্মাণকাজ অব্যাহত রেখেছি। আর হুমকি দেয়ার অভিযোগও সঠিক না। আদালতের নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে তিনি কিছু জানেন না বলেও দাবি করেন মেয়র।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter