বড়াইগ্রামে সড়কে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার
jugantor
বড়াইগ্রামে সড়কে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার

  বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি  

১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সড়ক নিমার্ণ

বড়াইগ্রামের নগর ইউনিয়নের বাগডোব থেকে পিঙ্গইন পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক পাকাকরণ কাজে নিুমানের খোয়া ও মাটিযুক্ত বালু ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। যথাযথ মান বজায় রেখে সড়ক নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর।

জানা যায়, এক কোটি ৪৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৫০ টাকা ব্যয়ে ওই সড়ক পাকা করার কাজ বরাদ্দ পায় মেসার্স ইসলাম কন্সট্রাশন। তবে ঠিকাদার সাজেদুর রহমান সাব কন্টাক্ট নিয়ে কাজটি করছেন। সম্প্রতি সড়কটির কাজ শুরু হলে ঠিকাদারের লোকজন নিুমানের ইট খোয়া ও বালু ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ ওঠে। পর্যাপ্ত বালু না দেয়াসহ পুরো সড়কজুড়ে দুই ও তিন নম্বর ইটের খোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। কোথাও কোথাও ময়লা ও মাটিযুক্ত খোয়াও দেওয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় ইটের গুঁড়া দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নিুমানের খোয়া রোলার করার সময় ভেঙে গুঁড়া হয়ে যাচ্ছে। পিঙ্গইন গ্রামের আব্দুস সামাদ ও আব্দুর রহমান জানান, সড়কে এক নম্বর ইট দেয়ার কথা থাকলেও দুই ও তিন নম্বর ইটের খোয়া দেয়া হচ্ছে। আমরা প্রতিবাদ করলেও ঠিকাদারের লোকজন তাতে কর্ণপাত করছে না। অত্যন্ত নিুমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক করায় অল্প দিনেই সড়ক ভেঙে যাবে। কাজের তদারককারী এলজিইডির সার্ভেয়ার আরিফুল ইসলাম জানান, নিুমানের উপকরণ ব্যবহারের অভিযোগটি সঠিক নয়। ভালো মানের খোয়া দিয়েই কাজ করা হচ্ছে। এর আগে কিছু খারাপ ইট খোয়া থাকলেও এখন আর সেগুলো নেই। উপজেলা প্রকৌশলী (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আজিজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমার সঠিক জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বড়াইগ্রামে সড়কে নিম্নমানের নির্মাণসামগ্রী ব্যবহার

 বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি 
১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
সড়ক নিমার্ণ
ছবি: যুগান্তর

বড়াইগ্রামের নগর ইউনিয়নের বাগডোব থেকে পিঙ্গইন পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক পাকাকরণ কাজে নিুমানের খোয়া ও মাটিযুক্ত বালু ব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে। যথাযথ মান বজায় রেখে সড়ক নির্মাণের দাবি এলাকাবাসীর।

জানা যায়, এক কোটি ৪৫ লাখ ২৭ হাজার ৩৫০ টাকা ব্যয়ে ওই সড়ক পাকা করার কাজ বরাদ্দ পায় মেসার্স ইসলাম কন্সট্রাশন। তবে ঠিকাদার সাজেদুর রহমান সাব কন্টাক্ট নিয়ে কাজটি করছেন। সম্প্রতি সড়কটির কাজ শুরু হলে ঠিকাদারের লোকজন নিুমানের ইট খোয়া ও বালু ব্যবহার করছেন বলে অভিযোগ ওঠে। পর্যাপ্ত বালু না দেয়াসহ পুরো সড়কজুড়ে দুই ও তিন নম্বর ইটের খোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। কোথাও কোথাও ময়লা ও মাটিযুক্ত খোয়াও দেওয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় ইটের গুঁড়া দেওয়া হয়েছে। এছাড়া নিুমানের খোয়া রোলার করার সময় ভেঙে গুঁড়া হয়ে যাচ্ছে। পিঙ্গইন গ্রামের আব্দুস সামাদ ও আব্দুর রহমান জানান, সড়কে এক নম্বর ইট দেয়ার কথা থাকলেও দুই ও তিন নম্বর ইটের খোয়া দেয়া হচ্ছে। আমরা প্রতিবাদ করলেও ঠিকাদারের লোকজন তাতে কর্ণপাত করছে না। অত্যন্ত নিুমানের সামগ্রী দিয়ে সড়ক করায় অল্প দিনেই সড়ক ভেঙে যাবে। কাজের তদারককারী এলজিইডির সার্ভেয়ার আরিফুল ইসলাম জানান, নিুমানের উপকরণ ব্যবহারের অভিযোগটি সঠিক নয়। ভালো মানের খোয়া দিয়েই কাজ করা হচ্ছে। এর আগে কিছু খারাপ ইট খোয়া থাকলেও এখন আর সেগুলো নেই। উপজেলা প্রকৌশলী (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আজিজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমার সঠিক জানা নেই। এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন