বন বিভাগের উচ্ছেদ বন্ধে মানববন্ধন
jugantor
কুয়াকাটায় ২২ জেলে পরিবার
বন বিভাগের উচ্ছেদ বন্ধে মানববন্ধন

  কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি  

২২ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুয়াকাটার গঙ্গামতি সাগরপাড়ের বেলাভূমে বসবাস করা ২২ জেলে পরিবারের সদস্যরা বনবিভাগের উচ্ছেদ প্রক্রিয়া বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে গঙ্গামতির চরের দুর্গম এলাকায় এ মানববন্ধন করা হয়। দরিদ্র জেলেদের দাবি, তারা বাপ-দাদার আমল থেকে খড়কুটোর ছাউনি দিয়ে বনের পাশে অনেক কষ্টে বসবাস করে আসছেন। ২১ সেপ্টেম্বর সকালে বনবিভাগের গঙ্গামতির বিট অফিসার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক মানুষ অতর্কিত তাদের ঘরদুয়ার ভাঙতে শুরু করে। বাধা দিলে তাদের মারধর করা হয়। চালচুলা পর্যন্ত ভাঙচুর করা হয়েছে। হুমকি দেয়া হয়েছে বাসাবাড়ি ছেড়ে না গেলে আগুনে পুরিয়ে ফেলার। বর্তমানে এসব পরিবারের সদস্যরা আছেন চরম আতঙ্কে। এমনকি মহিপুর থানায় তাদের ২২ পরিবারের ৪০ সদস্যের নামে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। জেলে পরিবারের সদস্যদের দাবি, আগে তাদের পুনর্বাসন করা হোক।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলে মো. সালাম মুসল্লি, ফারুক মুসল্লি, শহিদুল ইসলাম, শাহবুদ্দিন ও ইলিয়াস প্রমুখ। বনবিভাগের গঙ্গামতির বিট অফিসার মো. মোশাররফ হোসেন এ প্রসঙ্গে যুগান্তরকে বলেন, বনের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা তুলছিল যা উচ্ছেদ করা হয়েছে। ভাঙচুর ও হামলার দাবি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

কুয়াকাটায় ২২ জেলে পরিবার

বন বিভাগের উচ্ছেদ বন্ধে মানববন্ধন

 কুয়াকাটা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি 
২২ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

কুয়াকাটার গঙ্গামতি সাগরপাড়ের বেলাভূমে বসবাস করা ২২ জেলে পরিবারের সদস্যরা বনবিভাগের উচ্ছেদ প্রক্রিয়া বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে গঙ্গামতির চরের দুর্গম এলাকায় এ মানববন্ধন করা হয়। দরিদ্র জেলেদের দাবি, তারা বাপ-দাদার আমল থেকে খড়কুটোর ছাউনি দিয়ে বনের পাশে অনেক কষ্টে বসবাস করে আসছেন। ২১ সেপ্টেম্বর সকালে বনবিভাগের গঙ্গামতির বিট অফিসার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে অর্ধশতাধিক মানুষ অতর্কিত তাদের ঘরদুয়ার ভাঙতে শুরু করে। বাধা দিলে তাদের মারধর করা হয়। চালচুলা পর্যন্ত ভাঙচুর করা হয়েছে। হুমকি দেয়া হয়েছে বাসাবাড়ি ছেড়ে না গেলে আগুনে পুরিয়ে ফেলার। বর্তমানে এসব পরিবারের সদস্যরা আছেন চরম আতঙ্কে। এমনকি মহিপুর থানায় তাদের ২২ পরিবারের ৪০ সদস্যের নামে অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। জেলে পরিবারের সদস্যদের দাবি, আগে তাদের পুনর্বাসন করা হোক।

প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলে মো. সালাম মুসল্লি, ফারুক মুসল্লি, শহিদুল ইসলাম, শাহবুদ্দিন ও ইলিয়াস প্রমুখ। বনবিভাগের গঙ্গামতির বিট অফিসার মো. মোশাররফ হোসেন এ প্রসঙ্গে যুগান্তরকে বলেন, বনের জায়গায় অবৈধ স্থাপনা তুলছিল যা উচ্ছেদ করা হয়েছে। ভাঙচুর ও হামলার দাবি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন