হাজীগঞ্জে স্কুলে জলাবদ্ধতা বিপাকে শিক্ষার্থীরা
jugantor
হাজীগঞ্জে স্কুলে জলাবদ্ধতা বিপাকে শিক্ষার্থীরা

  হাজীগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি  

২৩ অক্টোবর ২০২১, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হাজীগঞ্জ উপজেলার ৭২নং নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এখন পানিবন্দি। বন্যা অথবা বর্ষায় পানিতে তলিয়ে যায়নি। শুধু আটকা পড়ে জলাবদ্ধতায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে খেলার মাঠটি পানিতে ডুবে গেছে। শিক্ষার্থীরা করোনা সংক্রমণের পর বিদ্যালয়ে এসে জলাবদ্ধতার কারণে মাঠে খেলাধুলা করতে পারছে না।

হাজীগঞ্জ উপজেলার ৭নং বড়কুল ইউনিয়নের ৭২নং নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বৃহস্পতিবার দেখা যায় এমন দুর্ভোগের চিত্র।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আদিব, কাউসার, সামিয়া আক্তার যুগান্তরকে জানায়, বৃষ্টি হলে আমাদের খেলার মাঠটি পানির নিচে তলিয়ে যায়। এ সময় স্কুলে এসে হাঁটাচলা এবং খেলাধুলা করা যায় না। আমরা ক্লাসরুমের মধ্যে আটকা পড়ে থাকি। করোনার কারণে বাড়িতে একরকম বদ্ধ হয়ে ছিলাম। স্কুলে এসেও দেখি একই অবস্থা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অলক চন্দ্র দত্ত যুগান্তরকে বলেন, নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে ভবনের চারপাশসহ মাঠ পানিতে তলিয়ে যায়। জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে না। জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থীরা স্কুলে আসতে চাইছে না। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা জরুরি হয়ে পড়েছে। স্কুল কমিটি ও চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহিত করছি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়টির পাশে দুটি পুকুর রয়েছে। আর একটু বৃষ্টি হলেই পানি নামার ব্যবস্থা না থাকায় স্কুল মাঠ এবং কয়েকটি বসতঘরের আঙিনায় পানি জমে যায়। দীর্ঘ এক মাস স্কুল মাঠ এবং বসতবাড়ির আঙিনা পানির নিচে থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থী এবং স্থানীয়দের।

হাজীগঞ্জে স্কুলে জলাবদ্ধতা বিপাকে শিক্ষার্থীরা

 হাজীগঞ্জ (চাঁদপুর) প্রতিনিধি 
২৩ অক্টোবর ২০২১, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

হাজীগঞ্জ উপজেলার ৭২নং নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এখন পানিবন্দি। বন্যা অথবা বর্ষায় পানিতে তলিয়ে যায়নি। শুধু আটকা পড়ে জলাবদ্ধতায় ভোগান্তির শিকার হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। গত কয়েকদিনের বৃষ্টিতে খেলার মাঠটি পানিতে ডুবে গেছে। শিক্ষার্থীরা করোনা সংক্রমণের পর বিদ্যালয়ে এসে জলাবদ্ধতার কারণে মাঠে খেলাধুলা করতে পারছে না।

হাজীগঞ্জ উপজেলার ৭নং বড়কুল ইউনিয়নের ৭২নং নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে বৃহস্পতিবার দেখা যায় এমন দুর্ভোগের চিত্র।

পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থী আদিব, কাউসার, সামিয়া আক্তার যুগান্তরকে জানায়, বৃষ্টি হলে আমাদের খেলার মাঠটি পানির নিচে তলিয়ে যায়। এ সময় স্কুলে এসে হাঁটাচলা এবং খেলাধুলা করা যায় না। আমরা ক্লাসরুমের মধ্যে আটকা পড়ে থাকি। করোনার কারণে বাড়িতে একরকম বদ্ধ হয়ে ছিলাম। স্কুলে এসেও দেখি একই অবস্থা। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক অলক চন্দ্র দত্ত যুগান্তরকে বলেন, নাটেহারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে ভবনের চারপাশসহ মাঠ পানিতে তলিয়ে যায়। জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে না। জলাবদ্ধতার কারণে শিক্ষার্থীরা স্কুলে আসতে চাইছে না। পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করা জরুরি হয়ে পড়েছে। স্কুল কমিটি ও চেয়ারম্যানকে বিষয়টি অবহিত করছি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। স্থানীয়রা জানান, বিদ্যালয়টির পাশে দুটি পুকুর রয়েছে। আর একটু বৃষ্টি হলেই পানি নামার ব্যবস্থা না থাকায় স্কুল মাঠ এবং কয়েকটি বসতঘরের আঙিনায় পানি জমে যায়। দীর্ঘ এক মাস স্কুল মাঠ এবং বসতবাড়ির আঙিনা পানির নিচে থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে শিক্ষার্থী এবং স্থানীয়দের।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন