ইজারার নামে অর্পিত সম্পত্তি দখল

সিলেটে শতকোটি টাকার ভূমি বন্দোবস্তের পাঁয়তারা প্রভাবশালীদের

  সিলেট ব্যুরো ২১ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

সিলেটে অর্পিত সম্পত্তি লুটপাটের মহোৎসব চলছে। বিভিন্ন সরকারের সময় স্থানীয় ক্ষমতাসীন দলের শীর্ষনেতাদের ছত্রছায়ায় এসব লুটপাট হচ্ছে। শত শত কোটি টাকার অর্পিত সম্পত্তি রয়েছে ভূমিখেকো চক্রের দখলে। লিজ নেয়া ভূমি চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত নিতে তৎপরতা চালাচ্ছে প্রভাবশালীরা। এ আইনের তালিকাভুক্ত দেশত্যাগী সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের পতিত ভূমি অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। এসব ভূমির রক্ষক স্থানীয় প্রশাসন হলেও তা ভূমিখেকোদের মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদে লিজ দেয়া হয়। সিলেটে অর্পিত সম্পত্তির নামে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের ভূমি দখল, লুটপাট চলছে দীর্ঘদিন ধরে। জেলা প্রশাসনের অসৎ কর্মকর্তারা ওইসব ভূমি অবমুক্ত করে দিচ্ছেন ব্যক্তি বিশেষের কাছে। জাল দলিলের মধ্যমে হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে কোটি কোটি টাকার ভূমি। তাদের এসব অপকর্মের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন ধরে সিলেটে আন্দোলন করছে অর্পিত সম্পত্তি আইন প্রতিরোধ আন্দোলনের নেতারা। তাদের আন্দোলনের মুখে ৪ দলীয় জোট সরকারের সময় সিলেটের ঐতিহ্যবাহী সিংহবাড়ীটি রক্ষা পেলেও বর্তমান সরকারের সময় তা আর পুরোপুরি রক্ষা করা যায়নি। সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রীর আত্মীয় পরিচয় দিয়ে কিছু অংশ লিজ নিয়েছে একটি চক্র। বাড়িটির দুই তৃতীয়াংশ অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত থাকলেও চারদলীয় জোট সরকারের সময় জরিপে পুরো বাড়িটা অর্পিত সম্পত্তি হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়। চারদলীয় জোট সরকারের শেষ দিকে গোলাপগঞ্জের ঢাকা দক্ষিণ এলাকায় প্রভাবশালী চক্র সীতেশ চন্দ্র শীলকে উচ্ছেদ করে তার বাড়িটি দখলে নিয়েছে। ভূমির প্রকৃত মালিকরা দেশে থাকা সত্ত্বেও একটি মহল ষড়যন্ত্র করে এ বাড়িটি অর্পিত সম্পত্তি বলে তালিকাভুক্ত করে। একইভাবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগের চেয়ারম্যান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ড. জিসি দেবের বিয়ানীবাজারের পৈতৃক বাড়িটি স্থানীয় প্রভাবশালীরা দখল করে নেয়। শহীদ বুদ্ধিজীবীর বাড়িটি রক্ষায় সিলেটের সুশীল সমাজ প্রশাসনের প্রতি বারবার দাবি জানানোর পরেও বিষয়টি তারা আমলে নেয়নি। সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়কের পাশে পাঠানটুলায় অবস্থিত তারাপুর চা বাগানটি সিলেটবাসীর কাছে এখন ইতিহাস। বাগানটি লিজ নিয়ে শর্ত ভঙ্গ করে প্লট আকারে ভূমি বিক্রি করা হয়েছে। গড়ে উঠেছে সুরম্য স্থাপনা। নগরীর কুয়ারপাড়ে অবস্থিত কয়েক কোটি টাকার কুমারবাড়িটি দখলের প্রক্রিয়া চলছে। এলাকাবাসী এ ভূমিতে একটি গার্লস স্কুল অ্যান্ড কলেজ স্থাপনের উদ্যোগ নিলেও দখলদারদের কারণে পাচ্ছেন না। একইভাবে নগরীর মাছুদিঘীরপাড়ে, বাগবাড়ী এলাকায় কোটি কোটি টাকার অর্পিত সম্পত্তি জাল দলিলের মাধ্যমে লুটপাটের প্রক্রিয়া চলছে। বিয়ানীবাজারে হাজার বছরের ঐতিহ্যের প্রতীক প্রাচীনতম দেবালয় বাসুদেব বাড়ি মন্দিরের প্রায় অর্ধেক ভূমি দখল করেছে প্রভাবশালী চক্র। পঞ্চখণ্ডের পণ্ডিতপাড়ায় অবস্থিত অনিপণ্ডিত সংস্কৃতিক পাঠাগারের কয়েক কোটি টাকার ভূমি অবৈধ দখলে রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, দেশত্যাগী সমথনাথ দাশের প্রায় ৫শ’ একর ভূমি জাল দলিলের মাধ্যমে দখল করে নেয়া হয়। আদালতে বিচারাধীন ভূমি থেকে গোলাপগঞ্জের নিরীহ পরিবারকে জোরপূর্বক উচ্ছেদ করা হয়েছে। জানা গেছে, ভূমির প্রকৃত উত্তরাধিকারীরা তাদের পূর্বপুরুষদের বসতভিটা ফিরে পেতে সরকারের কাছে বারবার দাবি জানালেও সরকার কার্যকর উদ্যোগ নিচ্ছে না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter