কলাপাড়ায় খাস জমিতে স্থাপনা নির্মাণে বাধা
jugantor
কলাপাড়ায় খাস জমিতে স্থাপনা নির্মাণে বাধা

  কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি  

২৭ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার মনষাতলী গ্রামের এক দরিদ্র পরিবারের নিজস্ব জমিতে নির্মাণাধীন ঘর ভেঙে দেয়ার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উত্তর মনসাতলী গ্রামের ভূমিহীন কৃষক আ. হাইসহ কয়েকটি পরিবার। তাদের পক্ষে বুধবার বেলা ১১টায় এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আবুল বশার। তিনি জানান, তার বাবার বন্দোবস্ত পাওয়া এক একর ৪৪ শতক জমিতে তার বোন আকলিমা বেগম ঘর তোলার কার্যক্রম করছিলেন। এ সময় মহিপুর ভূমি অফিসের পিয়ন আব্দুর রাজ্জাক প্রথমে মোবাইল ফোনে ঘর তুলতে নিষেধ করেন। পরের দিন ২৪ জানুয়ারি, বিষয়টি জানতে চাইলে ওই পিয়ন ৪০ হাজার টাকা দাবি করেন। যা না দেয়ায় ২৫ জানুয়ারি কলাপাড়ার সহকারী কমিশনার ভূমিকে ভুল বোঝানো হয়েছে এবং নির্মাণাধীন ঘরের মালামাল ভাঙচুর ও তছনছ করা হয়েছে। ভূমি অফিসের ওই পিয়ন কোন টাকা পয়সা চায়নি বলে তিনি দাবি করেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মণ্ডল জানান, ওটা সম্পূর্ণ খাস জমি। যেখানে বেকু মেশিনে মাটি কেটে প্লট করে ঘর তোলার চেষ্টা করছিল। স্থানীয় ভূমি সহকারী কর্মকর্তারা গিয়ে মৌখিকভাবে নিষেধ করলে আবুল বশার গালাগাল করে। এমনকি স্থানীয় এক ব্যক্তি এ বিষয়ে সরকারি কাজে সহায়তা করলে তাকে মারধর করা হয়েছে।

কলাপাড়ায় খাস জমিতে স্থাপনা নির্মাণে বাধা

 কলাপাড়া (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি 
২৭ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটুয়াখালীর কলাপাড়ার মনষাতলী গ্রামের এক দরিদ্র পরিবারের নিজস্ব জমিতে নির্মাণাধীন ঘর ভেঙে দেয়ার অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন করেছেন উত্তর মনসাতলী গ্রামের ভূমিহীন কৃষক আ. হাইসহ কয়েকটি পরিবার। তাদের পক্ষে বুধবার বেলা ১১টায় এ সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন আবুল বশার। তিনি জানান, তার বাবার বন্দোবস্ত পাওয়া এক একর ৪৪ শতক জমিতে তার বোন আকলিমা বেগম ঘর তোলার কার্যক্রম করছিলেন। এ সময় মহিপুর ভূমি অফিসের পিয়ন আব্দুর রাজ্জাক প্রথমে মোবাইল ফোনে ঘর তুলতে নিষেধ করেন। পরের দিন ২৪ জানুয়ারি, বিষয়টি জানতে চাইলে ওই পিয়ন ৪০ হাজার টাকা দাবি করেন। যা না দেয়ায় ২৫ জানুয়ারি কলাপাড়ার সহকারী কমিশনার ভূমিকে ভুল বোঝানো হয়েছে এবং নির্মাণাধীন ঘরের মালামাল ভাঙচুর ও তছনছ করা হয়েছে। ভূমি অফিসের ওই পিয়ন কোন টাকা পয়সা চায়নি বলে তিনি দাবি করেন। সহকারী কমিশনার (ভূমি) জগৎবন্ধু মণ্ডল জানান, ওটা সম্পূর্ণ খাস জমি। যেখানে বেকু মেশিনে মাটি কেটে প্লট করে ঘর তোলার চেষ্টা করছিল। স্থানীয় ভূমি সহকারী কর্মকর্তারা গিয়ে মৌখিকভাবে নিষেধ করলে আবুল বশার গালাগাল করে। এমনকি স্থানীয় এক ব্যক্তি এ বিষয়ে সরকারি কাজে সহায়তা করলে তাকে মারধর করা হয়েছে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন