ভালুকায় হামলায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৫ কর্মী আহত
jugantor
ভালুকায় হামলায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৫ কর্মী আহত

  ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি  

২৯ জানুয়ারি ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আগামী ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ৬ষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে ভালুকা উপজেলার কাচিনা ইউনিয়নের বাটাজোর বাজারে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৫ কর্মীর ওপর হামলা ও প্রার্থীর মার্কেটের দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খালেকজ্জামান তালুকদার হুমায়ুন (আনারস) জানান, শুক্রবার দুপুরে আমি বাটাজোর চাঙ্গারিরপার এলাকা উঠান বৈঠক করতে গেলে আ.লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মুশফিকুর রহমান লিটনের (নৌকা) যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ছেলেরা উঠান বৈঠকে বাধা দেয়। অপর দিকে লিটনের বেশ কিছু কর্মী সমর্থক মোটরসাইকেল নিয়ে বাটাজোর বাজারে আমার নির্বাচনি অফিসের সামনে আমার তালুকদার মার্কেটের সব দোকান পাট বন্ধ করে দেন এবং দোকানদারদের হুমকি ধমকি দিয়া যান। এ সময় আমার দুই কর্মী এজেন্ট নিয়োগের জন্য আমার নির্বাচনি অফিসে তাদের নৌকার অফিসে ধরে নিয়ে মারধর করে আহত করে। আহতরা হলেন, হাবিবুর রহমান, মতিন, নজরুল ইসলাম, বিপ্লব, আব্দুল মতিন ও দেলুয়ার হোসেন।

মুশফিকুর রহমান লিটন (নৌকা) জানান, হামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। কে বা কারা আমার নির্বাচনকে নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিতভাবে এসব ঘটনা করছে আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

ভালুকায় হামলায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৫ কর্মী আহত

 ভালুকা (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি 
২৯ জানুয়ারি ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আগামী ৩১ জানুয়ারি অনুষ্ঠিতব্য ৬ষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে ভালুকা উপজেলার কাচিনা ইউনিয়নের বাটাজোর বাজারে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ৫ কর্মীর ওপর হামলা ও প্রার্থীর মার্কেটের দোকানপাট বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী খালেকজ্জামান তালুকদার হুমায়ুন (আনারস) জানান, শুক্রবার দুপুরে আমি বাটাজোর চাঙ্গারিরপার এলাকা উঠান বৈঠক করতে গেলে আ.লীগ সমর্থিত চেয়ারম্যান প্রার্থী মুশফিকুর রহমান লিটনের (নৌকা) যুবলীগ ও ছাত্রলীগের ছেলেরা উঠান বৈঠকে বাধা দেয়। অপর দিকে লিটনের বেশ কিছু কর্মী সমর্থক মোটরসাইকেল নিয়ে বাটাজোর বাজারে আমার নির্বাচনি অফিসের সামনে আমার তালুকদার মার্কেটের সব দোকান পাট বন্ধ করে দেন এবং দোকানদারদের হুমকি ধমকি দিয়া যান। এ সময় আমার দুই কর্মী এজেন্ট নিয়োগের জন্য আমার নির্বাচনি অফিসে তাদের নৌকার অফিসে ধরে নিয়ে মারধর করে আহত করে। আহতরা হলেন, হাবিবুর রহমান, মতিন, নজরুল ইসলাম, বিপ্লব, আব্দুল মতিন ও দেলুয়ার হোসেন।

মুশফিকুর রহমান লিটন (নৌকা) জানান, হামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। কে বা কারা আমার নির্বাচনকে নষ্ট করার জন্য পরিকল্পিতভাবে এসব ঘটনা করছে আমি তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছি।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন