বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে জরিমানা

প্রকাশ : ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর ডেস্ক

রমজান উপলক্ষে জিনিসপত্রের দাম স্থিতিশীল রাখতে বিভিন্ন স্থানে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়েছে। এ সময় নানা অভিযোগে কয়েকজনকে জরিমানা করা হয়। সোমবার সন্ধ্যা ও মঙ্গলবার এ অভিযান চালানো হয়। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

সিলেট ব্যুরো : সিলেটে মঙ্গলবার দুপুরে জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সুরাইয়া আক্তার লাকির নেতৃত্বে একটি মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হয় জিন্দাবাজার এলাকায়। এ সময় মেয়াদ উত্তীর্ণ পণ্যদ্রব্য বিক্রি করার কারণে ও মূল্য তালিকা টানানো না থাকার ফলে সহির প্লাজার রিফাত অ্যান্ড কোংকে সতর্ক ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এর আগে সোমবার রাতে বন্দর বাজারের ফুলকলিকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

যশোর ব্যুরো : যশোরে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতরের বাজার তদারকি অভিযানে তিন দোকান মালিককে সাত হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। মঙ্গলবার সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি বাজারে এ অভিযান চালানো হয়। ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর যশোরের সহকারী পরিচালক মো. সোহেল শেখের নেতৃত্বে অভিযান পরিচালিত হয়। মো. সোহেল শেখ জানান, ছোলা, দোকানে মূল্য তালিকা প্রদর্শন না করায় চুড়ামনকাটি বাজারের

আল-আমিন স্টোরের মালিক ইমান আলীকে দুই হাজার ও রাকিব স্টোরের মালিক রওশন আলীকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। একই বাজারে মেয়াদ উত্তীর্ণ বিস্কুট, লাচ্ছি জুস, থাই ফুড বিস্কুট বিক্রির জন্য সংরক্ষণের দায়ে সৌরভ ভ্যারাইটিসের মালিক সুকুমার কুণ্ডকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) : নাগরপুর সদর ইউএনও আসমা শাহীন ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) সাবরিন চৌধুরীর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়। মেয়াদ উত্তীর্ণ খাদ্যসামগ্রী মজুদ রাখার দায়ে ৪ দোকানির কাছ থেকে ১৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। জরিমানা আদায়কৃত দোকানগুলো হল- সুমন স্টোর, মেহেদি স্টোর, সুনীল সাহা স্টোর ও খান এন্টারপ্রাইজ।

পলাশ (নরসিংদী) : পলাশ ও ঘোড়াশালে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করেন ইউএনও ভাস্কর দেবনাথ বাপ্পি। এ সময় প্রশাসনের উপস্থিতি টের পেয়ে অনেক হোটেল মালিক ও ওষুধের দোকানদার দোকান বন্ধ করে পালিয়ে যায়। এ সময় অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা পরিবেশে খাবার তৈরি ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি করার দায়ে পলাশ বাজারের শংকর হোটেলকে ৩০ হাজা, ঘোড়াশালের শাহী হোটেলকে নগদ ১০ হাজার ও মেয়াদ উত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রির দায়ে অনামিকা ফার্মেসিকে ১৫ হাজার ও বাতেন স্টোরকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

চরভদ্রাসন (ফরিদপুর) : চরভদ্রাসনের ইউএনও কামরুন নাহারের নেতৃত্বে মঙ্গলবার দুপুরে সদর বাজারের মাংস হাটায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়েছে। এ সময় অতিরিক্ত মূল্যে মুরগি বিক্রির দায়ে উপজেলা সদর বাজারের ব্যবসায়ী শেখ মামুন ও আমির হোসেন ফকিরকে ৫শ’ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

সখীপুর (টাঙ্গাইল) : সখীপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৬ ব্যবসায়ীকে ২২ হাজার ৭শ’ টাকা জরিমানা করেছেন। সোমবার সন্ধ্যায় ইউএনও মৌসুমী সরকার রাখী ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আয়শা জান্নাত তাহেরা সখীপুর পৌরশহরের বিভিন্ন দোকানে অভিযান চালিয়ে এ অর্থাদণ্ডাদেশ দেন। অর্থদণ্ডাদেশপ্রাপ্তরা হলেন- পৌরশহরের ব্যবসায়ী পরিমল দাস, হরিপদ সরকার, শ্রীদাম, আমিনুল হক, আনিসুর রহমান ও সজল মিয়া।