আঞ্চলিক সংগঠনের বিরোধ

পানছড়ি বাজার বর্জন করেছেন পাহাড়িরা

  খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খাগড়াছড়ির পানছড়ি বাজার বর্জন করেছেন পাহাড়ি ক্রেতারা। রোববার পানছড়ি সদর উপজেলা বাজারের সাপ্তাহিক হাটের দিন হলেও বাজারে পাহাড়ি ক্রেতা দেখা যায়নি। এতে প্রায় লাখ লাখ টাকা ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন বাজারের ব্যবসায়ীরা। বাজার বর্জন করায় সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েছেন কৃষকরা। কৃষকদের উৎপাদিত পণ্য অবিক্রীত থাকায় তা নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। পানছড়ি বাজার কমিটি সূত্রে জানা গেছে, পানছড়ি বাজারে আঞ্চলিক সংগঠনগুলোর নেতাদের অবস্থানকে কেন্দ্র করে দ্বন্দ্ব-সংঘাত ও বিরোধের সূত্র ধরেই একটি পক্ষ বাজার বর্জন করেছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন সাধারণ পাহাড়ি ও বাঙালি ক্রেতারা। এদিকে পাহাড়িদের পানছড়ি বাজার বর্জনের জন্য প্রসীত খীসার নেতৃত্বাধীন ইউপিডিএফকে দায়ী করেছে ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা থেকে ২৫ কিলোমিটার দূরে পানছড়ি বাজার। সাপ্তাহিক হাটের দিনের শত শত ক্রেতার সমাগমে বাজার মুখরিত থাকার কথা থাকলেও রোববারের চিত্র ছিল সম্পূর্ণ ভিন্ন। বাজারে কেবল গুটিকয়েক বাঙালি ক্রেতা। বাজারকে কেন্দ্র করে কৃষকরা বিভিন্ন ফসল, শাকসবজিসহ কৃষিজপণ্য বাজার নিয়ে আসেন। কিন্তু পাহাড়ি ক্রেতাশূন্য হওয়ায় অধিকাংশ পণ্য নষ্ট হয়ে গেছে। সাধারণত সাপ্তাহিক হাটের দিনকে কেন্দ্র করে বাজারে প্রায় অর্ধকোটি টাকার লেনদেন হয়। বাজারের ব্যবসায়ীরা জানান, এখানকার বেশির ভাগ ক্রেতাই পাহাড়ি। পানছড়ি বাজার বর্জনের ডাকে সাড়া না দেয়ার জন্য সাধারণ জনগণকে আহ্বান জানান ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক)। ইউপিডিএফের (গণতান্ত্রিক) কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লিটন চাকমা স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিবৃতিতে বলা হয়, ‘অপকৌশলের অংশ হিসেবে পানছড়ি বাজার বর্জনের ডাক দেয়া হয়েছে। এই এলাকায় ব্যবসা-বাণিজ্য ও সাধারণের জন্য নিত্যনৈমিত্তিক চাহিদা পূরণের জায়গা হচ্ছে পানছড়ি বাজার। তা সত্ত্বেও বাজার বর্জনের জন্য তারা (ইউপিডিএফ-প্রসীত) যে যুক্তি দেখাচ্ছে, তাতে কোনো সত্যতা নেই। ইউপিডিএফ (প্রসীত) সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের (পিসিপি) খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক অমল ত্রিপুরা বলেন, সাধারণ জনগণ পানছড়ি বাজার বর্জন করেছেন। বাজারে গেলে নিরীহ জনগণকে জেএসএস (এমএন লারমা) ও ইউপিডিএফ (গণতান্ত্রিক) নেতারা নানারকম ভয়ভীতি প্রদর্শন করছে। যেহেতু এখানে জনগণের স্বার্থ জড়িত, তাই এ বাজার বর্জন কর্মসূচিকে সমর্থন করি। পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আবুল হাশেম বলেন, ‘পাহাড়ি সংগঠনগুলোর বিরোধের সূত্র ধরে পাহাড়িরা বাজারে আসেননি। এ বিষয়ে বাজারসংশ্লিষ্ট প্রতিনিধিসহ সাংবাদিক, প্রশাসন ও স্থানীয় নেতাদের নিয়ে বৈঠক করে পরবর্তী করণীয় বিষয় নির্ধারণ করা হবে।’

 

 

আরও পড়ুন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.