চসিকের কোবে আবাসন প্রকল্প

মামলায় আটকে আছে ৪৩ গ্রাহকের স্বপ্ন

  চট্টগ্রাম ব্যুরো ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন (চসিক) নগরীর খুলশী এলাকায় একটি আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয় ২০০০ সালের দিকে। এর কয়েক বছর পর কোবে আবাসন প্রকল্পের নামে প্লট বিক্রি শুরু করে। কিন্তু তা ওই পর্যন্তই। প্লট বিক্রির ১৪ বছর পেরিয়ে গেলেও এখনও ৪৩ গ্রাহক তাদের প্লটে ঘর নির্মাণ করতে পারছেন না। প্লটের সীমানা নিয়ে একটি শিল্প গ্র“পের সঙ্গে মামলার কারণে তা আটকে আছে। ফলে শহরে নিজের একটি বাড়ির স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে গেছে বছরের পর বছর। তবে ওই শিল্প গ্র“পের সঙ্গে সিটি কর্পোরেশনের সমঝোতার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। চসিক সূত্র মতে, নগরীর উত্তর খুলশী এলাকায় চসিক কোবে সিটি আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়। চসিকের নিজস্ব ২ দশমিক ৯৪ একর জায়গায় ওই আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়নের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। প্রকল্পে প্লটের সংখ্যা নির্ধারণ করা হয় ৫০টি। সেই ধারাবাহিকতায় ২০০৫ সাল থেকে প্লট বিক্রি শুরু করে সিটি কর্পোরেশন। তখন এ প্রকল্পের আড়াই কাঠা, তিন কাঠা ও চার কাঠা আয়তনের ৪৩টি প্লট বিক্রি করা হয়। কাঠাপ্রতি ছয় লাখ টাকা দরে বিক্রি করে এ প্রকল্পে আয় হয়েছিল সাত কোটি ১১ লাখ ৮৪ হাজার টাকা। কিন্তু সীমানা বিরোধ নিয়ে কর্পোরেশনের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে আবুল খায়ের গ্রুপের মামলা চলার কারণে প্রকল্পের উন্নয়ন কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এরই মধ্যে পেরিয়ে গেছে এক যুগ। কিন্তু চসিক এর মধ্যে অর্ধেক প্লট তৈরি করতে পেরেছে। এখনও কিছু প্লটের সীমানা দেয়াল নির্মাণ ও মাটি ভরাটের কাজ বাকি আছে। প্রকল্পের অভ্যন্তরীণ সড়ক ও নালার কাজও শেষ হয়নি। মামলার কারণে এ প্রকল্পটিও বছরের পর বছর ধরে ঝুলে আছে। উত্তর খুলশী কোবে সিটি প্লট মালিক সমিতির সভাপতি জাকির হোসেন বলেন, ২০০৫ সালে তিন কাটা জমির বিপরীতে চসিককে প্রায় ১৮ লাখ টাকা পরিশোধ করেছি। ইতিমধ্যে পেরিয়ে গেছে ১২ বছর। প্লট বুঝে পাব দূরে থাক, কখন পাব সে নিশ্চয়তাও পাচ্ছি না। অথচ শহরে নিজের জমির ওপর একটি বাড়ি হবে সেই আশায় তখন প্লট কেনায় আগ্রহী হয়েছিলাম। কিন্তু মামলার কারণে আটকে আছে প্লট গ্রহীতাদের বাড়ি করার স্বপ্ন। তবে সিটি কর্পোরেশনের সহকারী এস্টেট অফিসার এখলাসুর রহমান যুগান্তরকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে এ আবাসন প্রকল্পের বাস্তবায়ন ঝুলে আছে আবুল খায়ের গ্র“পের সঙ্গে সীমানা বিরোধ সম্পর্কিত মামলার কারণে। ইতিমধ্যে আমাদের সঙ্গে আবুল খায়ের গ্র“পের আলোচনা হয়েছে। উভয় পক্ষ সম্মত হয়েছি একটি সমঝোতা চুক্তি করার জন্য। চসিক থেকে একটি খসরা সমঝোতা চুক্তিপত্র তাদের কাছে পাঠানো হয়েছে। আমরা এখন তাদের মতামতের অপেক্ষায়। মতামত পেলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। তা ছাড়া সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে প্লট গ্রহীতাদের দখল হস্তান্তর ও দলিল সম্পাদন করা হয়েছে ইতিমধ্যে। এখন শুধু মামলার কারণে তারা সেখানে বাড়ি নির্মাণ করতে পারছে না। তবে সমঝোতা চুক্তি হয়ে গেলে সেই অনিশ্চয়তা কেটে যাবে।

 

 

আরও পড়ুন

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.