বাঘায় রোগাক্রান্ত পশুর মাংসের রমরমা ব্যবসা

  বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কমদামে ক্রয় করা রোগাক্রান্ত পশু রাতের আঁধারে জবাই করে দিনের বেলায় তা সুস্থ-সবল পশুর মাংস হিসেবে বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফলে সহজ-সরল ক্রেতারা ন্যায্য দামে এসব মাংস ক্রয় করে প্রতারিত হচ্ছে। আর এভাবে ক্রেতা ঠকিয়ে লাভবান হচ্ছে অসাধু মাংস ব্যবসায়ীরা। জানা যায়, রোববার বাঘা উপজেলা সদর হাটে অসুস্থ একটি এ গরু রাতে জবাই করে মাংস বিক্রি করেন স্থানীয় কয়েকজন মাংস ব্যবসায়ী। গরু জবাই করেন স্থানীয় কসাইরা। বিষয়টি বাজার পাহারাদারদের নজরে এলে মাংস ব্যবসায়ীরা স্থানীয়ভাবে সমাঝোতা করেন। এর আগে বাঘা মাজার গেটে মরা গরু জবাই করে মাংস বিক্রির অভিযোগে স্থানীয় দুই কসাইকে ভ্রাম্যমাণ আদালত ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। তারপরও বিষয়টি থেমে নেই। মাংস কেনার ব্যাপারে ক্রেতাদের মধ্যে ভীতির সৃষ্টি হয়েছে। কসাইরা সুযোগ বুঝে সুস্থ গরুর সঙ্গে অসুস্থ গরু জবাই করে বিক্রি করে। এভাবেই বাজারে বিক্রি হচ্ছে রোগাক্রান্ত গরু ও ছাগলের মাংস। সাপ্তাহিক হাট-বাজার ছাড়াও স্থানীয় বাজারে প্রতিদিন জবাই করা হয় গরু, মহিষ, ছাগলসহ বিভিন্ন পশু। এর মধ্যে বেশিরভাগ পশু বাইরে থেকে জবাই করে বাজারে আনা হয়। কোনো পশু অসুস্থ হলে পশুর মালিক মাংস ব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগাযোগ করে। একটি মূল্য ৫০ হাজার টাকা হলেও ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা কমমূল্যে ক্রয় করে মাংস ব্যবসায়ীরা। এই পশু জবাই করে বাজারে মাংস বিক্রি করা হয়। তবে এর অধিকাংশই চলে যায় স্থানীয় খাবার হোটেলে। জবাই করা পশুর যেসব অংশ মানুষের খাবার অযোগ্য সেগুলো এখন আর বাদ দেয়া হয় না। পশু জবাই ও মাংসের মান নিয়ন্ত্রণ আইন মতে, পশু জবাইয়ের আগে ভেটেরিনারি কর্মকর্তা কর্তৃক পশুটি জবাইয়ের উপযোগী বলে সনদপত্র থাকতে হবে। কিন্তু বিধি মোতাবেক পরীক্ষা ছাড়াই পশু জবাই করে মাংস বিক্রি করা হচ্ছে দেদার। বিধান লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী, কারাদণ্ড অথবা অর্থদণ্ড, কিংবা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হওয়ার বিধান থাকলেও এ আইনের তোয়াক্কা করছেন না এসব মাংস ব্যবসায়ী। উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জন আবদুল কাদির বলেন, প্রায়ই কসাইরা পশু পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য আসে না। নিয়মিত মনিটরিং না থাকায় সুযোগ নিচ্ছেন সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। অসুস্থ পশুর মাংস খেলে মানুষের বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, বাজারে রোগাক্রান্ত গরু, মহিষ, ছাগলের মাংস বিক্রি হলে সঙ্গে সঙ্গে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে এ বিষয়ে সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter