আগৈলঝাড়ায় তিন কর্মকর্তাকে অব্যাহতি
jugantor
আগৈলঝাড়ায় তিন কর্মকর্তাকে অব্যাহতি

  আগৈলঝাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি  

৩০ জুন ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আগৈলঝাড়ায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গাড়ি ভাড়া চাওয়া ও হোটেলে খাবারের টাকা না দেওয়ার ঘটনায় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের দুই সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা ও একজন সাব-ইন্সপেক্টরকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি। অব্যাহতি প্রাপ্তরা হচ্ছেন কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা রোমান হাওলাদার, সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মেহেদী হাসান তনয় ও সাব-ইন্সপেক্টার হানিফ হাওলাদার। কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের বরিশাল সার্কেলের কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, হোটেলে খাবার খেয়ে টাকা না দেওয়া এবং এক ব্যবসায়ীর কাছে গাড়ি ভাড়া দাবি করায় তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ডেপুটি কমিশনারকে প্রধান করে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উল্লেখ্য, আগৈলঝাড়া থানার সামনের চান হোটেলের মালিক চান মিয়া শাহ সাংবাদিকদের বলেন, সোমবার দুপুরে তার হোটেলে চারজন খাবার খান। বিল চাইলে তারা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে নিজেদের কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাট কর্মকর্তা পরিচয় দেন। তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে আইসক্রিম ফ্যাক্টরির মালিক বাবু ফকির তাদের দাবি করা ছয় হাজার টাকা নিয়ে আসেন। এরপর তারা ওই অফিসের কর্মকর্তা কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য তাদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান। আইসক্রিম ফ্যাক্টরির মালিক বাবু ফকির বলেন, ওই চার কর্মকর্তা তার ফ্যাক্টরিতে গিয়ে বরিশাল থেকে গাড়িতে আসা বাবদ ৬ হাজার টাকা দাবি করেন। ওই টাকা নিয়ে চান হোটেলে দেখা করতে বলেন। টাকা নিয়ে চান হোটেলে গিয়ে দেখতে পান ওই কর্মকর্তাদের সঙ্গে হোটেল মালিকসহ আরও কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকদের বাগ্বিতণ্ডা হয়। এ কারণে টাকা না দিয়ে তাদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান বলে জানান বাবু। এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাখাওয়াত হোসেন তাদের অর্থ দাবির ফোন রেকর্ডিং শুনে তাৎক্ষণিক বরিশাল কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বরিশাল সার্কেল অফিসার তারিকুল ইসলামকে বিষয়টি অবহিত করেন। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়। বরিশাল কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের বিভাগীয় কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাকারিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ওই তিনজনকে কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনের পর তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আগৈলঝাড়ায় তিন কর্মকর্তাকে অব্যাহতি

 আগৈলঝাড়া (বরিশাল) প্রতিনিধি 
৩০ জুন ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

আগৈলঝাড়ায় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে গাড়ি ভাড়া চাওয়া ও হোটেলে খাবারের টাকা না দেওয়ার ঘটনায় পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের দুই সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা ও একজন সাব-ইন্সপেক্টরকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। গঠন করা হয়েছে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি। অব্যাহতি প্রাপ্তরা হচ্ছেন কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা রোমান হাওলাদার, সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মেহেদী হাসান তনয় ও সাব-ইন্সপেক্টার হানিফ হাওলাদার। কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের বরিশাল সার্কেলের কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, হোটেলে খাবার খেয়ে টাকা না দেওয়া এবং এক ব্যবসায়ীর কাছে গাড়ি ভাড়া দাবি করায় তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় ডেপুটি কমিশনারকে প্রধান করে তিন সদস্যর তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উল্লেখ্য, আগৈলঝাড়া থানার সামনের চান হোটেলের মালিক চান মিয়া শাহ সাংবাদিকদের বলেন, সোমবার দুপুরে তার হোটেলে চারজন খাবার খান। বিল চাইলে তারা দিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে নিজেদের কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাট কর্মকর্তা পরিচয় দেন। তিনি আরও বলেন, এরই মধ্যে আইসক্রিম ফ্যাক্টরির মালিক বাবু ফকির তাদের দাবি করা ছয় হাজার টাকা নিয়ে আসেন। এরপর তারা ওই অফিসের কর্মকর্তা কি না তা নিশ্চিত হওয়ার জন্য তাদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান। আইসক্রিম ফ্যাক্টরির মালিক বাবু ফকির বলেন, ওই চার কর্মকর্তা তার ফ্যাক্টরিতে গিয়ে বরিশাল থেকে গাড়িতে আসা বাবদ ৬ হাজার টাকা দাবি করেন। ওই টাকা নিয়ে চান হোটেলে দেখা করতে বলেন। টাকা নিয়ে চান হোটেলে গিয়ে দেখতে পান ওই কর্মকর্তাদের সঙ্গে হোটেল মালিকসহ আরও কিছু ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকদের বাগ্বিতণ্ডা হয়। এ কারণে টাকা না দিয়ে তাদের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে নিয়ে যান বলে জানান বাবু। এ ব্যাপারে আগৈলঝাড়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাখাওয়াত হোসেন তাদের অর্থ দাবির ফোন রেকর্ডিং শুনে তাৎক্ষণিক বরিশাল কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বরিশাল সার্কেল অফিসার তারিকুল ইসলামকে বিষয়টি অবহিত করেন। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়। বরিশাল কাস্টমস এক্সসাইজ ও ভ্যাটের বিভাগীয় কর্মকর্তা মোহাম্মদ জাকারিয়া সাংবাদিকদের বলেন, ওই তিনজনকে কার্যক্রম থেকে বিরত রাখা হয়েছে। এ ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদনের পর তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন