পটিয়ায় মাকে হত্যায় ভাইয়ের নামে বোনের মামলা
jugantor
পটিয়ায় মাকে হত্যায় ভাইয়ের নামে বোনের মামলা
কেন ব্যাংকে গেলি বলেই গুলি করা হয়

  চট্টগ্রাম ব্যুরো  

১৮ আগস্ট ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটিয়ায় ছেলের গুলিতে মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক মাঈনুদ্দিন মোহাম্মদ মাঈনুকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে নিহত জেসমিন আক্তারের মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা বাদী হয়ে পটিয়া থানায় এ মামলা দায়ের করেন। পটিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ রেজাউল করিম মজুমদার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। জানা গেছে, মাঈনুকে জিজ্ঞেস না করেই ব্যাংকে যাওয়ার অপরাধে প্রথমে বোন নিপাকে গুলি করে মাঈনু। সেই গুলি মিস ফায়ার হয়। বোনকে বাঁচাতে এলে মায়ের মাথায় গুলি করে মাঈনু। তার পর প্রতিবেশীকে খবর দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে মায়ের মৃত্যু হয়।

মামলার এজাহারে থেকে জানা যায়, গত ১৩ জুলাই পটিয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ও নিপার বাবা শামশুল আলম মাস্টার মারা যান। মৃত্যুর আগে তিনি পটিয়ার ব্র্যাক ব্যাংকের শাখায় ১৩ লাখ এবং জনতা ব্যাংকের শাখায় ৩ লাখ টাকা রেখে যান। এরমধ্যে ব্র্যাক ব্যাংক একাউন্টের নমিনি ছিলেন মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা এবং জনতা ব্যাংকে একাউন্টের নমিনি ছিলেন সামশুল আলম মাস্টারের স্ত্রী জেসমিন আক্তার। মঙ্গলবার সকালে ব্যাংক থেকে টাকা তোলার জন্য ঘর থেকে বের হয় জেসমিন আক্তার ও তার মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা। এ খবর পেয়ে বাসায় অপেক্ষা করতে থাকে মাঈনু। দুপুরে তারা বাসায় ফিরতেই তাকে জিজ্ঞেস না করে কেন ব্যাংকে গেল জানতে চায় মাঈনু। একপর্যায়ে কোমর থেকে পিস্তল বের করে প্রথমে বোনকে উদ্দেশ্য লক্ষ্য করে গুলি করা হয়। সেটি মিস ফায়ার হয়। পরের গুলিটি করা হয় জেসমিন আক্তারকে উদ্দেশ্য করে। সেটি মা জেসমিন আক্তারের ডান চোখের নিচে গিয়ে লাগে। ঘটনা দেখে শারমিনের চিৎকারে আশপাশের মানুষ ছুটে আসলে কৌশলে মাঈনু পালিয়ে যায়।

পটিয়ায় মাকে হত্যায় ভাইয়ের নামে বোনের মামলা

কেন ব্যাংকে গেলি বলেই গুলি করা হয়
 চট্টগ্রাম ব্যুরো 
১৮ আগস্ট ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

পটিয়ায় ছেলের গুলিতে মায়ের মৃত্যুর ঘটনায় ঘাতক মাঈনুদ্দিন মোহাম্মদ মাঈনুকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে নিহত জেসমিন আক্তারের মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা বাদী হয়ে পটিয়া থানায় এ মামলা দায়ের করেন। পটিয়া থানার ওসি মোহাম্মদ রেজাউল করিম মজুমদার বিষয়টি নিশ্চিত করেন। জানা গেছে, মাঈনুকে জিজ্ঞেস না করেই ব্যাংকে যাওয়ার অপরাধে প্রথমে বোন নিপাকে গুলি করে মাঈনু। সেই গুলি মিস ফায়ার হয়। বোনকে বাঁচাতে এলে মায়ের মাথায় গুলি করে মাঈনু। তার পর প্রতিবেশীকে খবর দিয়ে পালিয়ে যায়। এতে মায়ের মৃত্যু হয়।

মামলার এজাহারে থেকে জানা যায়, গত ১৩ জুলাই পটিয়া পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান ও নিপার বাবা শামশুল আলম মাস্টার মারা যান। মৃত্যুর আগে তিনি পটিয়ার ব্র্যাক ব্যাংকের শাখায় ১৩ লাখ এবং জনতা ব্যাংকের শাখায় ৩ লাখ টাকা রেখে যান। এরমধ্যে ব্র্যাক ব্যাংক একাউন্টের নমিনি ছিলেন মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা এবং জনতা ব্যাংকে একাউন্টের নমিনি ছিলেন সামশুল আলম মাস্টারের স্ত্রী জেসমিন আক্তার। মঙ্গলবার সকালে ব্যাংক থেকে টাকা তোলার জন্য ঘর থেকে বের হয় জেসমিন আক্তার ও তার মেয়ে শায়লা শারমিন নিপা। এ খবর পেয়ে বাসায় অপেক্ষা করতে থাকে মাঈনু। দুপুরে তারা বাসায় ফিরতেই তাকে জিজ্ঞেস না করে কেন ব্যাংকে গেল জানতে চায় মাঈনু। একপর্যায়ে কোমর থেকে পিস্তল বের করে প্রথমে বোনকে উদ্দেশ্য লক্ষ্য করে গুলি করা হয়। সেটি মিস ফায়ার হয়। পরের গুলিটি করা হয় জেসমিন আক্তারকে উদ্দেশ্য করে। সেটি মা জেসমিন আক্তারের ডান চোখের নিচে গিয়ে লাগে। ঘটনা দেখে শারমিনের চিৎকারে আশপাশের মানুষ ছুটে আসলে কৌশলে মাঈনু পালিয়ে যায়।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন