পীরগাছায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি
jugantor
প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষার্থী ৩
পীরগাছায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি

  পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি  

০৫ অক্টোবর ২০২২, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শিক্ষকরা স্কুলে আসেন আর যান, মাস শেষে মাইনা নেন, শিক্ষার্থীরা আসেন না স্কুলে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক নিজের ইচ্ছামতো স্কুল পরিচালনা করেন, স্থানীয় কাউকেই তিনি মূল্যায়ন করেন না। শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার সুযোগ দেন না, শিক্ষার্থীদের শ্রেণি কক্ষ হতে বের হইতে দেন না। সহকারী শিক্ষকরা জানান, হাজিরা খাতা স্বাক্ষরের জন্য স্কুলে যান, অন্যথায় না। ঘটনাটি পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর মাস্টারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। সরজমিনে ২৯ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় বিদ্যালয়ের ভিন্ন চিত্র। ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক পদ সংখ্যা ৫, কর্মরত ৪ জন। শিক্ষার্থী পাওয়া গেছে ৩ জনকে। ৩য় শ্রেণিতে ২ ও ৪র্থ শ্রেণিতে ১ জন শিক্ষার্থী। ৫ম শ্রেণির শ্রেণি কক্ষে তালা ঝুলছে। প্রতি বছর শিশু শ্রেণির বরাদ্দ নিলেও নেই সেই শিশু শ্রেণি। সংবাদ সংগ্রহে ওই স্কুলে গেলে প্রতিবেশীদের মাধ্যমে জানাজানি হলে প্রায় দুই/আড়াইশ নারী পুরুষ আকস্মিকভাবে বিদ্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে প্রধান শিক্ষক মহসিন আলীর অপসারণের দাবি করেন।

প্রাথমিক স্কুলে শিক্ষার্থী ৩

পীরগাছায় প্রধান শিক্ষকের অপসারণ দাবি

 পীরগাছা (রংপুর) প্রতিনিধি 
০৫ অক্টোবর ২০২২, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

শিক্ষকরা স্কুলে আসেন আর যান, মাস শেষে মাইনা নেন, শিক্ষার্থীরা আসেন না স্কুলে। শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের অভিযোগ প্রধান শিক্ষক নিজের ইচ্ছামতো স্কুল পরিচালনা করেন, স্থানীয় কাউকেই তিনি মূল্যায়ন করেন না। শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার সুযোগ দেন না, শিক্ষার্থীদের শ্রেণি কক্ষ হতে বের হইতে দেন না। সহকারী শিক্ষকরা জানান, হাজিরা খাতা স্বাক্ষরের জন্য স্কুলে যান, অন্যথায় না। ঘটনাটি পীরগাছা উপজেলার তাম্বুলপুর মাস্টারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের। সরজমিনে ২৯ সেপ্টেম্বর বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় বিদ্যালয়ের ভিন্ন চিত্র। ওই বিদ্যালয়ে শিক্ষক পদ সংখ্যা ৫, কর্মরত ৪ জন। শিক্ষার্থী পাওয়া গেছে ৩ জনকে। ৩য় শ্রেণিতে ২ ও ৪র্থ শ্রেণিতে ১ জন শিক্ষার্থী। ৫ম শ্রেণির শ্রেণি কক্ষে তালা ঝুলছে। প্রতি বছর শিশু শ্রেণির বরাদ্দ নিলেও নেই সেই শিশু শ্রেণি। সংবাদ সংগ্রহে ওই স্কুলে গেলে প্রতিবেশীদের মাধ্যমে জানাজানি হলে প্রায় দুই/আড়াইশ নারী পুরুষ আকস্মিকভাবে বিদ্যালয়ের সামনে জড়ো হয়ে প্রধান শিক্ষক মহসিন আলীর অপসারণের দাবি করেন।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন