সাটুরিয়ায় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বদলি
jugantor
চাকরির প্রলোভনে যৌন হয়রানি
সাটুরিয়ায় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বদলি

  সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি  

২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাটুরিয়ায় উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নারীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাকরি দেয়ার প্রলোভনে ফেলে ওই নারীকে যৌন হয়রানি করেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসান। এ ঘটনায় মানিকগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী নারী। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে তাকে কর্মস্থল থেকে বদলির আদেশ দেন কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, গবাদি পশুর ভ্যাকসিন নেয়ার বিষয়ে পরামর্শ নিতে সাটুরিয়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসানের কার্যালয়ে আসেন ওই নারী। ভ্যাকসিন দেয়ার আশ্বাসে নারীর মোবাইল ফোন নম্বর চেয়ে রাখেন কর্মকর্তা। এরপর মাঝেমধ্যে মোবাইল ফোনে কৌশলে আলাপচারিতা করে সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতা বাড়ান। এক পর্যায়ে নারীকে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যৌন উত্তেজক কথাবার্তা চালিয়ে যান। নিষেধ সত্ত্বেও বিভিন্ন সময়ে আপত্তিকর অশ্লীল প্রস্তাব জানালে কথাগুলো রেকর্ড করেন ওই নারী। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে মানিকগঞ্জ জেলা কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ডা. আ. রাজ্জাককে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ভুক্তভোগী নারী তদন্ত কমিটির কাছে তার লিখিত বক্তব্য ও ২২ মিনিটের অডিও রেকর্ডের সিডি জমা দেন। মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে মানিকগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুল ইসলাম জানান, ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে সাটুরিয়া উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসানকে বদলির আদেশ দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

চাকরির প্রলোভনে যৌন হয়রানি

সাটুরিয়ায় প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বদলি

 সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি 
২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সাটুরিয়ায় উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নারীকে যৌন হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। চাকরি দেয়ার প্রলোভনে ফেলে ওই নারীকে যৌন হয়রানি করেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসান। এ ঘটনায় মানিকগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন ভুক্তভোগী নারী। অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে তাকে কর্মস্থল থেকে বদলির আদেশ দেন কর্তৃপক্ষ। জানা গেছে, গবাদি পশুর ভ্যাকসিন নেয়ার বিষয়ে পরামর্শ নিতে সাটুরিয়া উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসানের কার্যালয়ে আসেন ওই নারী। ভ্যাকসিন দেয়ার আশ্বাসে নারীর মোবাইল ফোন নম্বর চেয়ে রাখেন কর্মকর্তা। এরপর মাঝেমধ্যে মোবাইল ফোনে কৌশলে আলাপচারিতা করে সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতা বাড়ান। এক পর্যায়ে নারীকে চাকরি দেয়ার প্রলোভনে যৌন উত্তেজক কথাবার্তা চালিয়ে যান। নিষেধ সত্ত্বেও বিভিন্ন সময়ে আপত্তিকর অশ্লীল প্রস্তাব জানালে কথাগুলো রেকর্ড করেন ওই নারী। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে মানিকগঞ্জ জেলা কৃত্রিম প্রজনন কেন্দ্রের উপ-পরিচালক ডা. আ. রাজ্জাককে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। ভুক্তভোগী নারী তদন্ত কমিটির কাছে তার লিখিত বক্তব্য ও ২২ মিনিটের অডিও রেকর্ডের সিডি জমা দেন। মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে মানিকগঞ্জ জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মাহবুবুল ইসলাম জানান, ঘটনার প্রাথমিক সত্যতা পেয়ে সাটুরিয়া উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মেহেদী হাসানকে বদলির আদেশ দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

যুগান্তর ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন