পানছড়িতে সাত বছরেও চালু হয়নি পানি সরবরাহ প্রকল্প

  খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

খাগড়াছড়ির পানছড়িতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরে আওতাধীন প্রকল্প সাত বছরের আলোর মুখ দেখেনি। প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার প্রায় ৭ বছর পেরিয়ে গেলেও কাজ শেষ করতে পারেনি সংস্থাটি। এতে সরকারের ২৮ লাখ টাকা গচ্চা যাওয়ার পথে।

স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, প্রায় ৬-৭ বছর আগে পানি সরবরাহের লক্ষ্যে পানির লাইন স্থাপন করা হয়। এছাড়া পানির পাম্প হাউস স্থাপনের জন্য জায়গাও দেয়া হয়েছে। হাউস বানালেও গত সাত বছরে পাম্প স্থাপন না করায় সুপেয় বিশুদ্ধ পানি থেকে বঞ্চিত এলাকাবাসী। এলাকাবাসী অভিযোগ তুলেছে, দীর্ঘদিন ধরে বিদ্যুতের লো-ভোল্টেজের সমস্যা থাকলেও বর্তমানে তা নেই। তারপরও পানির সরবারাহ প্রকল্প চালু না করার জন্য উপজেলা জনস্বাস্থ্য অধিদফতরকে দূষলেন স্থানীয়রা। এতে প্রায় ৪ শতাধিক পরিবার বর্তমানে সুপেয় পানির অভাবে ভুগছে। খাগড়াছড়ি জেলার থেকে প্রায় ৩০ কিমি. দূরে পানছড়ির লোগাং ইউনিয়ন। লোগাংয়ের নিভৃত পল্লী শান্তিনগর, এখানে প্রায় ৪টি গ্রাম। এলাকাবাসীর সুবিধার্থে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ প্রকল্প স্থাপনের উদ্যোগ গ্রহণ করে খাগড়াছড়ি জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর। সরেজমিন দেখা যায়, পানির সরবরাহের জন্য প্রায় ৪০০ ফুট গভীর নলকূপ স্থাপন করা হয়। এছাড়া উত্তর শান্তিনগর, দক্ষিণ শান্তিনগর, পূর্ব শান্তিনগর, পশ্চিম শান্তিনগর এলাকায় পানি সরবরাহের পাইপ স্থাপন করা হয়েছে। পানির পাম্প বসানোর জন্য প্রায় ৩ বছর আগে পাকা ঘরও স্থাপন করা হয়েছে। কিন্তু পাম্প না বসায় পানি সরবরাহ শুরু হয়নি। ভবিষ্যতেও এ প্রকল্পের কাজ করা হবে না শঙ্কা প্রকাশ করেছে স্থানীয়রা। শান্তিনগর গ্রামের বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম জানান, প্রায় ৬-৭ বছর পানির লাইন স্থাপন করেছে। কিন্তু এখনও পানি পাচ্ছি না। ভবিষ্যতে কখনও পানি পাবে কিনা এ নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেন তিনি। জানা যায়, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল আওতায় গ্রামীণ এলাকায় (শান্তিনগর) বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ লাইন স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়। বাংলাদেশ সরকার ও জাতিসংঘের সাহায্য সংস্থা ইউনিসেফের অর্থায়নে ২০১১-১২ অর্থবছরে শুরু হওয়া এ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ২৮ লাখ টাকা। প্রকল্পের প্রায় ৭ বছর পেরিয়ে গেলেও তা এখনও বাস্তবায়িত হয়নি। গ্রামের বাসিন্দা মরিয়ম আক্তার ও ইকবাল হোসেন জানান, বিদ্যুৎ লো-ভোল্টেজের সমস্যা জানান সত্ত্বেও এখানে পাম্প স্থাপন করা হয়েছে। পরে বিদ্যুতের লো-ভোল্টেজের সমস্যা দূর হওয়ার পর পানির পাম্পটি চালু হয়নি। এলাকাবাসী অভিযোগ করেন জনস্বাস্থ্য বিভাগের উদাসীনতার কারণে প্রকল্পটি মুখথুবড়ে পড়েছে। পানছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবুল হাশেম জানান, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরকে বলা হয়েছে। এছাড়া উপজেলার মাসিক সমন্বয় মিটিং বিষয়টি একাধিকবার তোলা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter