সুবিধাবঞ্চিত নারীদের স্বাবলম্বী করতে চান প্রার্থীরা
jugantor
ডিএসসিসি কাউন্সিলর নির্বাচন ২০২০: সংরক্ষিত ওয়ার্ড ২১ ও ২২
সুবিধাবঞ্চিত নারীদের স্বাবলম্বী করতে চান প্রার্থীরা

  মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া  

৩১ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দক্ষ জনশক্তিবহুল ওয়ার্ড গড়তে চান ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত ২১ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে সুবাধাবঞ্চিত নারীদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলে স্বাবলম্বী করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তারা। এছাড়াও ভোটারদের অধিকার ও সেবা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, বিধাবা, মাতৃত্বকালীন ও গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা নিশ্চিত করতেও কাজ করবেন বলে অঙ্গীকার করেছেন ওইসব প্রার্থী।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ওয়ার্ড ২১ : সাধারণ ৭০, ৭১ ও ৭২ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ ওয়ার্ড। এখানে ভোটার সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৫২ হাজার হলেও ৩ লাখ মানুষের বসবাস। এটি সংসদীয় ঢাকা-৫ ও ঢাকা-৯ আসনভুক্ত রয়েছে। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ৩ জন। ওয়ার্ডটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও মান্ডা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার সেলিনা খান (চশমা)। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হলেন- মুগদা থানা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক কাজী রয়দা সুলতানা (আনারস)। স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন- সাবেক মান্ডা ইউনিয়ন পরিষদের ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাবেক মেম্বার নুরজাহান গোলে (বই)। নুরজাহান গোলে যুগান্তরকে বলেন, আমি এ এলাকায় মহিলা মেম্বার থাকাকালীন অনেক উন্নয়নসহ এখনও মানুষের সেবায় নিয়োজিত রয়েছি। ইতিমধ্যে একটি ক্লাব ভিত্তিক সাংগঠনিকভাবে এলাকার বাল্য বিবাহ, যৌতুক, মাদক-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছি। কাজী রয়দা সুলতানা যুগান্তরকে বলেন, প্রায় ১৪ বছর রাজনীতি ও মানুষের সেবায় কাজ করে যাচ্ছি। ‘ইনসিডিন’ নামে একটি সংস্থার মাধ্যমে এতিম শিশুদের নিয়ে কাজ করছি। নিজের বাসার নিচেই ৮-১০ বছরের শিশুদের রাত্রিবাসের ব্যবস্থা করেছি। বিত্তবানদের সহযোগিতায় হ্যাপি হোম্স নামে একটি সামাজিক সংগঠনের দায়িত্ব নিয়ে অবহেলিত মেয়েদের লেখাপড়া ও বসবাসের ব্যবস্থা করেছি।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ২২ : সাধারণ ৬৭, ৬৮ ও ৬৯ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত ২২ নম্বর ওয়ার্ড। এখানে ভোটার সংখ্যা প্রায় ৬৬ হাজার হলেও ৪ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ১১ জন। এটি সংসদীয় ঢাকা-৫ আসনভুক্ত এলাকা। ওয়ার্ডটির আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হলেন- মহিলা শ্রমিক লীগের ডেমরা থানা সভাপতি শাহনাজ বেগম শেফালী (বেহালা)। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হলেন- স্থানীয় মহিলা দল নেত্রী মলি আক্তার (স্টিল আলমারি)। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর হোসনে আরা শাহীন (চশমা), সাবেক সারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান রাজিয়া আলম মমতাজ (মোবাইল ফোন) ও সাবেক ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মেম্বার মোছা. সুলতানা বেগম (গ্লাস), মাহাফুজা আক্তার (বই), সাবেক ডেমরা ইউনিয়ন সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বার কামরুন নাহার কামরুন (জিপ গাড়ি), সমাজসেবিকা রানু (আপেল), তাছলিমা আক্তার (ডলফিন), মোসা. শাহিনুর আক্তার (হেলিকপ্টার) ও হোসনে আরা বেগম (আনারস)।

ডিএসসিসি কাউন্সিলর নির্বাচন ২০২০: সংরক্ষিত ওয়ার্ড ২১ ও ২২

সুবিধাবঞ্চিত নারীদের স্বাবলম্বী করতে চান প্রার্থীরা

 মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া 
৩১ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ

দক্ষ জনশক্তিবহুল ওয়ার্ড গড়তে চান ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত ২১ ও ২২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা। এক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রশিক্ষণ কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করে সুবাধাবঞ্চিত নারীদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলে স্বাবলম্বী করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তারা। এছাড়াও ভোটারদের অধিকার ও সেবা প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি বয়স্ক, প্রতিবন্ধী, বিধাবা, মাতৃত্বকালীন ও গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা নিশ্চিত করতেও কাজ করবেন বলে অঙ্গীকার করেছেন ওইসব প্রার্থী।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ওয়ার্ড ২১ : সাধারণ ৭০, ৭১ ও ৭২ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ ওয়ার্ড। এখানে ভোটার সংখ্যা প্রায় সাড়ে ৫২ হাজার হলেও ৩ লাখ মানুষের বসবাস। এটি সংসদীয় ঢাকা-৫ ও ঢাকা-৯ আসনভুক্ত রয়েছে। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ৩ জন। ওয়ার্ডটিতে আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হলেন বর্তমান কাউন্সিলর ও মান্ডা ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার সেলিনা খান (চশমা)। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হলেন- মুগদা থানা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক কাজী রয়দা সুলতানা (আনারস)। স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন- সাবেক মান্ডা ইউনিয়ন পরিষদের ১,২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাবেক মেম্বার নুরজাহান গোলে (বই)। নুরজাহান গোলে যুগান্তরকে বলেন, আমি এ এলাকায় মহিলা মেম্বার থাকাকালীন অনেক উন্নয়নসহ এখনও মানুষের সেবায় নিয়োজিত রয়েছি। ইতিমধ্যে একটি ক্লাব ভিত্তিক সাংগঠনিকভাবে এলাকার বাল্য বিবাহ, যৌতুক, মাদক-সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছি। কাজী রয়দা সুলতানা যুগান্তরকে বলেন, প্রায় ১৪ বছর রাজনীতি ও মানুষের সেবায় কাজ করে যাচ্ছি। ‘ইনসিডিন’ নামে একটি সংস্থার মাধ্যমে এতিম শিশুদের নিয়ে কাজ করছি। নিজের বাসার নিচেই ৮-১০ বছরের শিশুদের রাত্রিবাসের ব্যবস্থা করেছি। বিত্তবানদের সহযোগিতায় হ্যাপি হোম্স নামে একটি সামাজিক সংগঠনের দায়িত্ব নিয়ে অবহেলিত মেয়েদের লেখাপড়া ও বসবাসের ব্যবস্থা করেছি।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ২২ : সাধারণ ৬৭, ৬৮ ও ৬৯ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত সংরক্ষিত ২২ নম্বর ওয়ার্ড। এখানে ভোটার সংখ্যা প্রায় ৬৬ হাজার হলেও ৪ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন ১১ জন। এটি সংসদীয় ঢাকা-৫ আসনভুক্ত এলাকা। ওয়ার্ডটির আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী হলেন- মহিলা শ্রমিক লীগের ডেমরা থানা সভাপতি শাহনাজ বেগম শেফালী (বেহালা)। বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী হলেন- স্থানীয় মহিলা দল নেত্রী মলি আক্তার (স্টিল আলমারি)। স্বতন্ত্র প্রার্থীরা হলেন- বর্তমান কাউন্সিলর হোসনে আরা শাহীন (চশমা), সাবেক সারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান রাজিয়া আলম মমতাজ (মোবাইল ফোন) ও সাবেক ১, ২ ও ৩ নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মেম্বার মোছা. সুলতানা বেগম (গ্লাস), মাহাফুজা আক্তার (বই), সাবেক ডেমরা ইউনিয়ন সংরক্ষিত আসনের মহিলা মেম্বার কামরুন নাহার কামরুন (জিপ গাড়ি), সমাজসেবিকা রানু (আপেল), তাছলিমা আক্তার (ডলফিন), মোসা. শাহিনুর আক্তার (হেলিকপ্টার) ও হোসনে আরা বেগম (আনারস)।