নৌকার পালে ঐক্যের হাওয়া

  আবদুর রশিদ রেনু, সিলেট ব্যুরো ২৭ জুলাই ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নৌকার পালে ঐক্যের হাওয়া

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জোর প্রচারণায় নেমেছেন মেয়র প্রার্থীরা। কাগজে-কলমে মেয়র পদে ৭ জন প্রার্থী হলেও মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতায় রয়েছেন ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরান ও বিএনপি মনোনীত প্রার্থী সদ্য সাবেক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল ঐক্যবদ্ধভাবে নৌকার পক্ষে মাঠে নেমেছেন।

স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় নেতারা জোট প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের সমর্থনে ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের দু’জন প্রার্থী থাকায় জোটের ভোট বিভক্ত হয়ে পড়েছে। বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী ও জোটের শরিক জামায়াতের মহানগর আমীর অ্যাডভোকেট এহসানুল মাহবুব জুবায়ের সিলেট নাগরিক ফোরামের ব্যানারে মেয়র প্রার্থী হয়েছেন।

২০ দলীয় জোটভুক্ত হওয়ার পর জামায়াত ধানের শীষের জোটের ওপর ভর করেই বিভিন্ন নির্বাচনী এলাকা থেকে বিজয়ী হয়ে সংসদে গিয়েছিল। তাদের ভোটের ঐক্য এবার সিলেট সিটিতে ভেঙে গেছে। শুধু বিএনপি-জামায়াত নয় জোটের শরিক অন্যান্য দলের নেতারাও দুই প্রার্থীর পক্ষ নিয়েছেন।

স্থানীয় লোকজন মনে করছেন এবার সিলেটে নৌকার পালে ঐক্যের হাওয়া লাগলেও ধানের শীষের ভোটে দেখা দিয়েছে বিভক্তি। দলীয় প্রতীক নিয়ে সরাসরি ভোটযুদ্ধে নামায় উভয় দলের নেতাকর্মীরা ভোর থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত ঘুরছেন নগরীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে। সিলেটের বাইরে থেকে বিশেষ করে সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলা থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা প্রচারণা চালাচ্ছেন নৌকা ও ধানের শীষের পক্ষে।

সিলেট সিটি নির্বাচনে ১৪ দল মনোনীত প্রার্থী বদরউদ্দীন আহমদ কামরানের নৌকা মার্কার সমর্থনে বুধবার সকালে নগরীর বন্দর বাজার এলাকায় গণসংযোগ করেন ১৪ দলীয় জোটের নেতারা।

গণসংযোগকালে উপস্থিত ছিলেন সাবেক শিল্পমন্ত্রী কমরেড দিলীপ বড়ুয়া, বাংলাদেশ গণআজাদী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট এসকে সিকদার, বাংলাদেশ গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য এজাজ আহমদ মুক্তা মঞ্জু, বাংলাদেশ কর্মসংস্থান আন্দোলনের চেয়ারম্যান মো. দেলোয়ার হোসাইন, গণআজাদী লীগের যুগ্ম মহাসচিব মুহাম্মদ আবদুল হাই সবুজ, সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক ফখরুল ইসলাম সোহাগ, সিলেট মহানগর সভাপতি আবদুল জলিল, সিনিয়র সহ-সভাপতি মোমেদ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মো. শহীদ আলী।

নগরীর দক্ষিণ সুরমার কদমতলীস্থ ফল মার্কেটে অনুষ্ঠিত পথসভায় বদরউদ্দিন আহমদ কামরান বলেন, সিলেট হল শান্তি ও সম্প্রীতির জনপদ। এখানে আমরা সবাই শান্তিপূর্ণ পরিবেশে বসবাস করছি।

তবে কিছু লোক সর্বদাই সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতির বিঘœ ঘটাতে চায়। তারা সুযোগ পেলে এ সময় অপতৎপরতা শুরু করে। সিলেট সিটি নির্বাচন প্রশ্নবিদ্ধ করতে তারা ইতিমধ্যেই সন্ত্রাস, জ্বালাও-পোড়াওসহ বিভিন্ন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটাচ্ছে। তাদের ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে। ব্যক্তিকে প্রত্যাখ্যান করতে হবে স্বাধীনতা, উন্নয়ন ও সম্প্রীতির প্রতীক নৌকাকে বিজয়ী করার মাধ্যমে।

এদিকে বুধবার নগরীর আরামবাগস্থ আমান উল্লাহ কনভেনশন সেন্টার হয়ে খরাদিপাড়া, মণিপুরীপাড়া, শিবগঞ্জের লামাপাড়া, গোলাপবাগ, সবুজবাগ, টিলাগড়ের শাপলাবাগ, রাজপাড়া, বোরহান উদ্দিন রোড এবং গোপাল টিলায় গণসংযোগ করেন বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী।

এ সময় তিনি বলেন, নগরীর উন্নয়নের জন্যই মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলাম। কিন্তু পাঁচ বছরের তিন বছরই আমার থেকে কেড়ে নেয়া হল। যার কারণে নগরীর সার্বিক উন্নয়ন পুরোপুরি নিশ্চিত করা যায়নি। তবুও যেটুকু সময় পেয়েছি নগরীর উন্নয়ন করেছি। আমি আমার কাজের মাধ্যমে প্রমাণ করেছি, প্রবল ইচ্ছা ও আন্তরিকতা থাকলে ১৭ বছর নয়, দুই বছরেও মানুষের সেবায় পরিপূর্ণ নিয়োজিত রাখা সম্ভব।

গণসংযোগে অংশ নেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. সাখাওয়াত হাসান জীবন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা আবদুল মালিক চৌধুরী, মহানগর সভাপতি মাওলানা খলিরুর রহমান, সহ-সভাপতি প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মহানগর খেলাফত মজলিশের সহ-সভাপতি আবদুল

হান্নান তাপাদার, সিলেট মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি সুদীপ রঞ্জন সেন বাপ্পু, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মুফতি নেহাল উদ্দিন, সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক আমিরুজ্জামান চৌধুরী।

এছাড়া রাজপাড়ায় এবং গোপাল টিলায় গণসংযোগকালে আরিফুল হক চৌধুরীর সঙ্গে জাতীয়তাবাদী সামাজিক সাংস্কৃতিক সংস্থার (জাসাস) কেন্দ্রীয় নেতারা অংশ গ্রহণ করেন। ধানের শীষের সমর্থনে মাঠে নামেন বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা গাজী মাজহারুল আনোয়ার, জাসাসের সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক হেলাল খান, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন রোকন, সহ-সভাপতি চিত্রনায়িকা শাহরিয়ার ইসলাম শায়লা, চিত্রনায়িকা শাহিনূর, শেখ রুনা, মহানগর জাসাসের সাধারণ সম্পাদক তাজ উদ্দিন মাসুম, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ হারুন, এএসএম আবদুল্লাহ আরিফ, জহির হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক রায়হান এইচ খান, জেলা সেক্রেটারি জয়নাল আহমদ রানু, জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম মহানগরের সেক্রেটারি আবু বকর সিদ্দিক সরকার, জেলা ছাত্রদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক এখলাসুর রহমান মুন্না, জেলা ছাত্র জমিয়তের আহ্বায়ক কায়সার মাহমুদ আকবরী, যুব জমিয়ত নেতা মুশতাক ফুরকানী, সদর জমিয়ত সেক্রেটারি মাওলানা হেলাল আহমদ।

ঘটনাপ্রবাহ : রাজশাহী-বরিশাল-সিলেট সিটি নির্বাচন ২০১৮

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter