৬৭ নম্বর ওয়ার্ড: পরিকল্পিত উন্নয়ন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চান প্রার্থীরা

  নুরুল আমিন ও মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

৬৭ নম্বর ওয়ার্ড: পরিকল্পিত উন্নয়ন ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চান প্রার্থীরা
ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) নবসৃষ্ট ৬৭ নম্বর ওয়ার্ডে পরিকল্পিত উন্নয়ন ও জননিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চান কাউন্সিলর প্রার্থীরা। শিক্ষার মানোন্নয়ন করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর বিষয়ে নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করার প্রতিশ্রুতিও তাদের।

সব ধরনের নাগরিক সেবাপ্রাপ্তির বিষয়টি নিশ্চিত করতে চান প্রার্থীরা। তাছাড়া নানা প্রতিবন্ধকতা দূর করে জলাবদ্ধতা নিরসন, মশক ও বেওয়ারিশ কুকুর নিধন, ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ, সরকারি চিকিৎসাসেবার মান উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন প্রার্থীরা।

নানা প্রতিশ্রুতি ও আশার কথা জানালেও ভোটাররা সৎ ও যোগ্য ব্যক্তিকে নির্বাচিত করতে চান।

ডিএসসিসির নবসম্পৃক্ত ৬৭ নম্বর ওয়ার্ড ডেমরার সাবেক সারুলিয়া ইউনিয়নের ২, ৩ ও ৪নং ওয়ার্ড এলাকা। ডেমরা থানাধীন শুকুরসী জোকা, সান্দিরা জোকা তিতাস কলোনি, সান্দিরা জোকা মৌজার অংশ (পূর্ব-পশ্চিম বক্সনগর ও করিম কলোনি), সারুলিয়া টেংরা (দক্ষিণ, পশ্চিম ও বাহির টেংরা) এ ওয়ার্ডে পড়েছে। এখানে দেড় লক্ষাধিক মানুষের বসবাস হলেও ভোটার রয়েছেন ২৭ হাজার ৬৮০ জন।

এ ওয়ার্ডের বাসিন্দারা নানা সমস্যায় জর্জরিত। ওয়ার্ডের বেশিরভাগ এলাকায় খানাখন্দ সড়ক, অতিরিক্ত মশা-মাছি, বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব, নোংরা পরিবেশ, যত্রতত্র ময়লার ভাগাড়সহ নানা নাগরিক সমস্যায় রয়েছেন বাসিন্দারা।

দুর্বল স্যুয়ারেজ ব্যবস্থার কারণে সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সড়কে অতিরিক্ত ধুলাবালি থাকায় চলাচলে দুর্ভোগে পড়েন এলাকাবাসী। এখানে কোনো কমিউনিটি সেন্টার, পার্ক-শিশু পার্ক, স্টেডিয়াম, পাবলিক টয়লেট ও পাবলিক লাইব্রেরিসহ কোনো বিনোদন কেন্দ্র নেই।

এ ওয়ার্ড এলাকায় ঘনবসতি ও ঘিঞ্জি পরিবেশে চলাচলে দুর্ভোগে পড়ছেন বাসিন্দারা। নেই কোনো সড়কবাতি। অধিকাংশ এলাকায় সন্ধ্যা নামতেই বিদঘুটে অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে পড়ে। তবে ডিএসসিসি কিছু উন্নয়নমূলক কাজ ইতিমধ্যে শুরু করছে।

৬৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা হলেন- সাবেক বৃহত্তর মাতুয়াইল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ১৩নং ওয়ার্ড সভাপতি মোহাম্মদ আলী (টিফিন ক্যারিয়ার), সারুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদের ৩নং ওয়ার্ড মেম্বার আবদুল মালেক খান (ঘুড়ি), বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ও সমাজসেবক মো. ইবরাহীম (লাটিম), সারুলিয়া ইউনিয়নের সাবেক ৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মতিউর রহমান (ঠেলাগাড়ি), সারুলিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এসএম রেজা চৌধুরী সেলিম (ঝুড়ি), ডেমরা থানা কৃষক লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইউনুছ মিয়া বাহার (ট্রাক্টর), মো. নুরুল আলম মজুমদার (ব্যাডমিন্টন র‌্যাকেট) ও মো. মজিবুর রহমান দুলাল (রেডিও)। এ ওয়ার্ডে ৮ জন প্রার্থীর প্রচার-প্রচারণায় সরগম হয়ে উঠেছে এলাকা।

মোহাম্মদ আলী যুগান্তরকে বলেন, মসজিদ-মাদ্রাসা, স্কুল-কলেজসহ বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানে কমিটিতে থেকে সেবা দিয়ে আসছি। এবার ৬৭নং ওয়ার্ডটিকে সুপরিকল্পিতভাবে ঢেলে সাজানোর পরিকল্পনা হাতে নিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচন করছি।

নির্বাচিত হলে ৬৭ নম্বর ওয়ার্ডকে একটি অদ্বিতীয় ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলব। মনিটরিংয়ের ভিত্তিতে প্রকৃত শিক্ষাব্যবস্থার উন্নয়ন করে অবহেলিত এ ওয়ার্ডে শিক্ষার হার শতভাগে নিয়ে আসব।

বিশুদ্ধ পানি সরবরাহে গভীর নলকূপ স্থাপন, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়ন, ডাম্পিং স্টেশন নির্মাণ, পার্ক- স্টেডিয়াম, গণপাঠাগার, সুষ্ঠু স্যুয়ারেজ ব্যবস্থাসহ রাস্তা নির্মাণ, কমিউনিটি সেন্টার ও হাসপাতাল নির্মাণ করব। সার্বিক নিরাপত্তাকল্পে সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হবে।

আবদুল মালেক খান যুগান্তরকে বলেন, ৮ বছর ধরে জনগণের কাক্সিক্ষত প্রত্যাশা পূরণের মধ্য দিয়ে সফল মেম্বার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। এবার সিটি কর্পোরেশনের সার্বিক সহযোগিতা ও বরাদ্দের ভিত্তিতে জনগণের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ৬৭নং ওয়ার্ডকে একটি আধুনিক নাগরিক সুবিধা সংবলিত ওয়ার্ডে পরিণত করাই আমার মূল লক্ষ্য।

কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে এখানকার স্থানীয় প্রভাবে আধিপত্য বিস্তার ও এলাকার অভ্যন্তরীণ কোন্দলসহ উল্লেখযোগ্য সমস্যা দূর করার জন্য প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়েছি। এলাকার সার্বিক উন্নয়নে আজও ভূমিকা রেখে চলেছি।

স্থায়ী জলাবদ্ধতা ও মাদক-সন্ত্রাস দূর করে ওয়ার্ডের প্রকৃত উন্নয়ন করতে চেষ্টা করব। মো. মতিউর রহমান যুগান্তরকে বলেন, কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে অবশ্যই ৬৭ নম্বর ওয়ার্ডের উন্নয়ন পরিকল্পিতভাবেকরব। ওয়ার্ডে পঞ্চায়েত কমিটি গঠন করে মাদক-সন্ত্রাস প্রতিরোধ নয়, নির্মূল করে ছাড়ব।

তাছাড়া অন্যান্য সব অপরাধ শক্ত হাতে দমনসহ সব প্রতিবন্ধকতা ও সমস্যা দূর করে ৬৭নং ওয়ার্ডকে বসবাসযোগ্য একটি আধুনিক ওয়ার্ড হিসেবে গড়ে তুলব।

ঘটনাপ্রবাহ : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×