হুমকি নেই তবুও ৪ স্তরের নিরাপত্তা শহীদ মিনারে

জঙ্গি হামলার কোনো আশঙ্কা নেই : ডিএমপি কমিশনার * আমরা সব শঙ্কা দূর করতে চাই : র‌্যাব ডিজি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কোনো সুনির্দিষ্ট হুমকি নেই। তার পরও নিরাপত্তার চাদরে মোড়ানো থাকবে শহীদ মিনার এলাকা। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, শহীদ মিনারে চার স্তরের নিরাপত্তা বলবৎ থাকবে। শুধু শহীদ মিনার এলাকায় ডিউটিরত থাকবে ছয় হাজার পুলিশ। আর র‌্যাব ডিজি বেনজীর আহমেদ বলেছেন, সর্বোচ্চ শক্তি দিয়ে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হবে। মঙ্গলবার বেলা ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের নিরাপত্তা ব্যবস্থা পরিদর্শনে যান ডিএমপি কমিশনার আসাদুজ্জামান মিয়া। পরিদর্শন শেষে এক ব্রিফিংয়ে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কোনো সুনির্দিষ্ট হুমকি না থাকলেও সব ধরনের নিরাপত্তা ব্যবস্থাই নেয়া হয়েছে। ওই দিন শহীদ মিনার ও আশপাশের এলাকায় চার স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। মঙ্গলবার রাত থেকে এসব এলাকায় আলপনা আঁকা হবে। তাই যান চলাচল বন্ধ থাকবে। ডিএমপি কমিশনার জানান, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, বিদেশি কূটনীতিকেরা শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করে দোয়েল চত্বর দিয়ে চলে যাবেন। তারা না যাওয়া পর্যন্ত দোয়েল চত্বর, রোমানা চত্বর দিয়ে কাউকে শহীদ মিনারের দিকে না যেতে অনুরোধ করেন তিনি। এদিকে মঙ্গলবার দুপুরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পরিদর্শনে যান র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন-র‌্যাব এর ডিজি বেনজীর আহমেদ। তিনি বলেন, একুশের রাতে সারা দেশ সর্বোচ্চ শ্রদ্ধাভরে শহীদদের সম্মান জানাবে। কেন্দ্রীয়ভাবে শহীদদের সম্মান জানাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একুশের মঞ্চ প্রস্তুত। এ উপলক্ষে একুশের রাতে শান্তিপূর্ণ ও সুশৃঙ্খলভাবে শ্রদ্ধা নিবেদন নিশ্চিত করতে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেবে র‌্যাব।

শহীদ মিনারে যাতায়াতের রুটম্যাপ : মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের লক্ষ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ‘একুশে উদযাপন কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি’ রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থান ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে যাতায়াতের জন্য একটি রুটম্যাপ প্রণয়ন করেছে। রুটম্যাপটি বুধবার রাত ৮টা থেকে কার্যকর হবে। রুটম্যাপ অনুযায়ী, জনসাধারণ রাজধানীর পুরনো হাইকোর্টের সামনের রাস্তা দিয়ে দোয়েল চত্বর ক্রসিং, বাংলা একাডেমি, টিএসসি মোড়, উপাচার্য ভবনের পাশ দিয়ে নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ি মোড়, নিউ মার্কেট ক্রসিং পার হয়ে আজিমপুর কবরস্থানের উত্তর দিকের গেট হয়ে কবরস্থানে প্রবেশ করবেন। শহীদদের কবর জিয়ারতের পর আজিমপুর কবরস্থানের মূল গেট (দক্ষিণ দিকের) দিয়ে বের হয়ে আজিমপুর সড়ক হয়ে পলাশী মোড় ও ফুলার রোড মোড় হয়ে অর্থাৎ সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনে দিয়ে শহীদ মিনারে যাবেন। আজিমপুর কবরস্থানে না গিয়ে বিকল্প পথে যারা শহীদ মিনারে যেতে চান তারা উপাচার্য ভবন পার হয়ে নীলক্ষেত পুলিশ ফাঁড়ি মোড় থেকে বাম দিকের রাস্তা দিয়ে (জহুরুল হক হলের পশ্চিমের রাস্তা) সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা হয়ে শহীদ মিনারে যেতে পারবেন। রাজধানীর নিউ মার্কেট ক্রসিং থেকে হোম ইকোনমিক্স ও ইডেন কলেজের সামনের রাস্তা দিয়েও আজিমপুর (বেবী আইসক্রিম) মোড়, পলাশী মোড় হয়ে সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা হয়ে শহীদ মিনারে যাওয়া যাবে। চানখাঁরপুল এলাকা থেকে বক?শিবাজার মোড় হয়ে প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ পাশের রাস্তা দিয়েও পলাশী মোড় হয়ে সলিমুল্লাহ হল ও জগন্নাথ হলের সামনের রাস্তা দিয়ে শহীদ মিনারে যাওয়া যাবে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য, টিএসসি মোড় থেকে জগন্নাথ হলের পূর্ব পাশের রাস্তা অর্থাৎ শিববাড়ীর পশ্চিম দিক দিয়ে শহীদ মিনারে ও ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে যাওয়ার রাস্তা সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। উপাচার্য ভবন গেট থেকে ফুলার রোড হয়ে ফুলার রোড মোড় পর্যন্ত রাস্তা এবং চানখাঁরপুল থেকে কার্জন হল পর্যন্ত রাস্তা জনসাধারণের যাতায়াতের জন্য সম্পূর্ণ বন্ধ থাকবে। শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণের পর সেখান থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠের সামনের রাস্তা দিয়ে দোয়েল চত্বর ও পেছনের রাস্তা দিয়ে চানখাঁরপুল হয়ে শুধুমাত্র প্রস্থান করা যাবে, শহীদ মিনারের দিকে আসা যাবে না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×