৬৪ নম্বর ওয়ার্ড: চাঁদাবাজিমুক্ত ওয়ার্ডের ওয়াদা প্রার্থীদের

  আহমদুল হাসান আশিক ও খোরশেদ আলম শিকদার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

৬৪ নম্বর ওয়ার্ড: চাঁদাবাজিমুক্ত ওয়ার্ডের ওয়াদা প্রার্থীদের
ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ৬৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীরা চাঁদাবাজ ও দুর্নীতিমুক্ত ওয়ার্ড গড়ার অঙ্গীকার করে মানুষের কাছে ভোট প্রার্থনা করছেন। এ ওয়ার্ডে রয়েছে অসংখ্য মিল-কারখানা।

বালু ভরাটের কারণে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে ফসল উৎপাদন। যুবসমাজ হচ্ছে মাদকাসক্ত। ওয়ার্ডে নেই খেলার মাঠ, কমিউনিটি সেন্টার, পাবলিক টয়লেট, সরকারি হাসপাতাল। সড়কবাতি না থাকায় সন্ধ্যা ঘনাতেই হয় অন্ধকার।

ডিএসসিসি ৬৪ নম্বর ওয়ার্ডে নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করে প্রার্থীদের একাধিক নির্বাচনী ক্যাম্প রয়েছে। মাইক্রোফোন ব্যবহার সংক্রান্ত নির্বাচন কমিশনের (ইসি) বিধিনিষেধ উপেক্ষা করেই দুপুর ২টার আগে ও রাত ৮টার পরেও প্রচারণা চালাচ্ছে একাধিক প্রার্থী।

এতে বিদ্যালয়ে পাঠদানে বাধাসহ রাতে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের লেখাপড়া বিঘ্ন ঘটছে। নানা আচরণবিধি ভঙ্গ করলেও কেউ তাদের বাধা দিচ্ছে না।

ডিএসসিসি ৬৪ নম্বর ওয়ার্ড যাত্রাবাড়ী ও ডেমরা থানায় অবস্থিত। সাবেক মাতুয়াইল ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের কোনাপাড়া, পুরাতন পাড়াডগাইর, ৫নং ওয়ার্ডের আইআর টিউবস ফ্যাক্টরি, ধার্মিকপাড়া, সিটি মিলস, মল্লিকপাড়া, ৬নং ওয়ার্ডের পাড়াডগাইর নতুনপাড়া এলাকা নিয়ে গঠন করা হয়েছে।

ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা ২৪ হাজার ৫৪১ জন। ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে ৬ জন প্রার্থী লড়ছেন। তারা হলেন- ঢাকা-৫ আসনের এমপির ভাই ও শহীদ হাফিজুর রহমান অলি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল (লাটিম), ডেমরা থানা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি সিফাত সাদেকীন চপল (ঘুড়ি), ডেমরা থানা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. কামরুজ্জামান খান সুমন (ঠেলাগাড়ি), মাতুয়াইল ইউপির ৪নং ওয়ার্ডের মেম্বার আসফাকুর রহমান ভুট্টু (মিষ্টি কুমড়া), সাবেক ছাত্র, যুব ও আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল আলীম খান (ঝুড়ি) ও মো. জাহাঙ্গীর আলম হাওলাদার (ট্রাক্টর)।

ঢাকা-৫ আসনের এমপি হাবিবুর রহমান মোল্লার ভাই মাসুদুর রহমান মোল্লাকে ঘিরে বাকি ৫ প্রার্থীর নানা অভিযোগ। তিনি এমপির ভাই হিসেবে নির্বাচনে এখনই প্রভাব খাটাচ্ছেন। ভোটের দিন নির্বাচন সুষ্ঠু হতে দেবেন না এমন আশঙ্কাও রয়েছে।

তবে এমপির ভাই মাসুদুর রহমান মোল্লা বাবুল যুগান্তরকে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যত অভিযোগ রয়েছে তার একটিও সত্য নয়। আমি সবার সঙ্গে হাসিমুখে চলাফেরা করি। মানুষের বিপদে-আপদে সন্ধ্যা কী, মধ্যরাত কী, যখনই ডাকে তখনই যাই।

এমপির ভাই হিসেবে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কোনো প্রভাব খাটাই না, নির্বাচনের দিন প্রভাব খাটানোর কোনো পরিকল্পনা আমার নেই। তিনি আরও বলেন, এমপির ভাই হয়ে বাসিন্দাদের উন্নয়নে ব্যাপক কাজ করেছি ভাইকে দিয়ে।

সে জন্য বাসিন্দাদের আবেদনে আমি কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছি। আমি আশাবাদী, বাসিন্দাদের ভোটে আমি নির্বাচিত হব। নির্বাচিত হলে এলাকায় মাদক, চাঁদাবাজ, সন্ত্রাসমুক্ত ওয়ার্ড উপহার দেব।

কোনাপাড়ার আবদুল বারেক মজুমদার রোড এলাকার বাসিন্দা তানহা জামান খান যুগান্তরকে বলেন, ওয়ার্ডে মশা, জলাবদ্ধতা, মাদকসহ নানা সমস্যার মধ্যে বসবাস করছি। বাঁশেরপুল এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে ড্রেনের ম্যানহোলের ঢাকনা লাগানো হয়নি।

যার ফলে প্রায়ই পথচারীরা বিশেষ করে শিশুরা ড্রেনেজের খোলা ম্যানহোলে পড়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। তিনি আরও বলেন, কয়েক মাস আগে ড্রেনেজে পড়ে একটি শিশু মারা যাওয়ার খবরও শুনেছি।

ডেমরা থানা ছাত্রলীগের সবেক সভাপতি সিফাত সাদেকীন (চপল) বলেন, ওয়ার্ডের বাসিন্দারা পরিবর্তন চায়। তিনি বলেন, বাসিন্দাদের দীর্ঘদিন ধরে সেবা করে আসছি। আরও কাছে গিয়ে সেবা করতে জনগণের দাবি ও নিজের প্রত্যাশায় কাউন্সিলর প্রার্থী হয়েছি।

সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট হলে জনগণ আমাকে ভোট দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন। নির্বাচিত হলে শিক্ষার মানোন্নয়ন, জলাবদ্ধতা নিরসন, বিশুদ্ধ পানির সমস্যা সমাধান, অলিগলিতে এলইডি লাইট স্থাপন ও রাস্তা সংস্কার করব।

আসফাকুর রহমান ভুট্টু যুগান্তরকে বলেন, ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচিত হওয়ার আগে থেকেই বাসিন্দাদের সেবা করে আসছি। কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে সড়কবাতি, সিসি ক্যামেরা স্থাপন, সড়ক উন্নয়ন ও জলাবদ্ধতা নিরসন করে মডেল ওয়ার্ড উপহার দেব।

মো. কামরুজ্জামান খান সুমন বলেন, ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়েছি। মাদকের বিরুদ্ধে না বলে মাদকবিরোধী সংগঠন আলোর যাত্রা ফাউন্ডেশন গঠন করেছি। মানুষের সহযোগিতায় কাজ করার জন্য হেলফ ফর হিউম্যান সংগঠন করেছি।

অনেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করেছি। কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে প্রথমে মাদকমুক্ত ওয়ার্ড গড়ব।

আবদুল আলীম যুগান্তরকে বলেন, নির্বাচিত হলে খেলার মাঠ, শিশুপার্ক, সরকারি হাসপাতালসহ ওয়ার্ডকে তিনটি ইউনিটে ভাগ করে কাজ করব। সিটি কর্পোরেশনের উন্মুক্ত বাজেট ঘোষণা করব।

ঘটনাপ্রবাহ : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন

আরও
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×