কার্জন হলের শতবর্ষী মঞ্চে নাট্যোৎসব

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ২১ মার্চ ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

কার্জন হলের শতবর্ষী মঞ্চে নাট্যোৎসব
ফাইল ছবি

দেশের নানা জেলায় কিছু নাট্যমঞ্চ শতবর্ষ অতিক্রম করেছে। এসব মঞ্চে শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে ‘বাংলাদেশের শতবর্ষী নাট্যমঞ্চে নাট্যোৎসব-২০১৯’ চলছে। যার অংশ হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলের নাট্যমঞ্চে ৬টি নাট্যদলের পরিবেশনায় নাট্যোৎসব অনুষ্ঠিত হল।

মূলত এটি ছিল ৬টি নাটকের কোলাজ। এতে অংশ নেয়া নাটকগুলো হল- লোকনাট্য দলের ‘মুজিব মানে মুক্তি’, শিল্পকলা একাডেমির ‘হ্যামলেট’, ঢাকা পদাতিকের ‘কথা ৭১’, থিয়েটার আর্ট ইউনিটের ‘জনম দুঃখী মা’, ঢাকা থিয়েটারের ‘রাই কথকতা’ ও আরণ্যক নাট্যদলের ‘মাটির মহাজন’। প্রতিটি নাটকের বিশেষ কিছু অংশ মঞ্চস্থ হয়েছে।

বুধবার সন্ধ্যা ৭টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কার্জন হলে উৎসব শুরু হয়। শুরুতে ছিল সংক্ষিপ্ত অলোচনা অনুষ্ঠান। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ঢাকা জেলা প্রশাসক আবু সালেহ মো. ফেরদৌস খান। অতিথি ছিলেন মঞ্চসারথি আতাউর রহমান। দেশের ২৬টি জেলার ৩৫টি নাট্যমঞ্চে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

দেশের শতবর্ষী নাট্যমঞ্চগুলোর ইতিহাস ঐতিহ্য ও অবদানকে দেশবাসীর সামনে উপস্থাপনের লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি একটি গ্রন্থও প্রকাশ করেছে। এ গ্রন্থের মধ্য দিয়ে দেশের ঐতিহ্যবাহী ও শতবর্ষ অতিক্রান্ত ৩৫টি মঞ্চের ইতিহাস তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে।

ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়াকে নিয়ে জাদুঘরে সেমিনার : জাতীয় জাদুঘরের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো ‘ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া : বাংলাদেশের আধুনিক পরমাণু বিজ্ঞানের প্রাণপুরুষ’ শীর্ষক সেমিনার। বুধবার বিকালে জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ।

এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল। মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন থিংকট্যাঙ্ক জন্মভূমি রিসার্চ সেন্টারের কর্মাধ্যক্ষ আসিফ কবীর।

আলোচক ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর সাবেক বিশেষ সহকারী অধ্যাপক সেলিমা খাতুন এবং বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. নঈম চৌধুরী। সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য অধ্যাপক ড. সুলতানা শফি। স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন জাদুঘরের মহাপরিচালক মো. রিয়াজ আহমেদ।

লাইসা আহমেদ লিসার গানের সিডির মোড়ক উন্মোচন : বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের নিবেদনে বুধবার শিল্পী লাইসা আহমদ লিসার গানের সিডির মোড়ক উন্মোচন করা হল। অতুলপ্রসাদ সেনের গানের ‘কে গো গাহিলে’ অ্যালবামের মোড়ক উন্মোচন করেন গবেষক ও প্রাবন্ধিক অধ্যাপক গোলাম মুরশিদ। এ সময় উপস্থিত ছিলেন- বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের ও মহাপরিচালক লুভা নাহিদ চৌধুরী এবং শিল্পী লাইসা আহমদ লিসা।

অধ্যাপক গোলাম মুরশিদ বলেন, অতুলপ্রসাদ নিজের বেদনাকে গানের কথায় ও সুরে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে পেরেছেন। এটাই মহৎ সাহিত্যের গুণ। রবীন্দ্রসঙ্গীত যেমন বাংলার প্রধান গান তার চেয়ে অনেক কম গান লিখেও অতুলপ্রসাদের গান বাংলার প্রধান ধারার গান হিসেবে বিবেচিত হয়। লিসার সম্পর্কে তিনি বলেন, বুলবুলি পাখির গান গাওয়া যেমন ধর্ম তেমনি লিসার ধর্মও গান গাওয়া।

বিশ্ব পুতুলনাট্য দিবসের আয়োজন : বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির উদ্যোগে শুরু হয়েছে ‘জাতীয় পুতুলনাট্য উৎসব-২০১৯’। আগামী ২৩ মার্চ পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার এক্সপেরিমেন্টাল থিয়েটার হল ও স্টুডিও থিয়েটার হলে উৎসবের প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে।

সারা দেশ থেকে ২৪টি দল এ উৎসবে অংশগ্রহণ করেছে। আগামী ২১ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় জাতীয় নাট্যশালার পরীক্ষণ থিয়েটার হলে বিশ্ব পুতুলনাট্য দিবস উপলক্ষে আলোচনা, সম্মাননা প্রদান ও পুতুলনাট্য প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে। আয়োজনটি সবার জন্য উন্মুক্ত।

বিশ্ব শিশু-কিশোর ও যুবনাট্য দিবসের আয়োজন : বিশ্ব শিশু-কিশোর ও যুবনাট্য দিবস-২০১৯ উপলক্ষে বুধবার বিকালে একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে শিশু-কিশোর ও যুবদের অংশগ্রহণে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সহযোগিতায় পিপলস থিয়েটার অ্যাসোসিয়েশন আয়োজন করেছে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানমালা।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×