যত্রতত্র ব্যাটারি রিকশার গ্যারেজ

মিরপুরে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ টেনে ব্যাটারি চার্জ দেয়ার অভিযোগ

  আফজাল হোসেন ২১ এপ্রিল ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

যত্রতত্র ব্যাটারি রিকশার গ্যারেজ

নগরীর মিরপুরে বেড়েই চলেছে ব্যাটারিচালিত রিকশা। হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এসব ব্যাটারিচালিত রিকশা অলিগলিসহ মূল সড়কে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে।

মিরপুরে যেসব রিকশা চলাচল করে তার ৯৫ ভাগই ব্যাটারিচালিত। মূল সড়ক ছাড়া সাধারণ রিকশা চোখে পড়ে না। রিকশার ব্যাটারি চার্জ দেয়ার জন্য যত্রতত্র গড়ে উঠেছে গ্যারেজ।

এসব গ্যারেজে অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ টেনে ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয়। ডেসকোর কিছু অসাধু কর্মকর্তা, পুলিশ ও ভুয়া সাংবাদিককে ম্যানেজ করে গ্যারেজ মালিকরা অবৈধভাবে ব্যাটারি চার্জ দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। আর সরকার হারাচ্ছে বিরাট অঙ্কের রাজস্ব।

সরেজমিন, মিরপুরের দিয়াবাড়ি, ভাসানটেক বস্তি, বেড়িবাঁধ, বাউনিয়াবাঁধ, রূপনগর, লালমাটিয়া, ৬০ ফিট রোড, বিন্দাবন, শিয়ালবাড়ি, ইস্টার্ন হাউজিং, মাটিকাটা, দারুসসালাম এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বস্তি ও সরকারি খাস জায়গা দখল করে গড়ে উঠেছে চার শতাধিক গ্যারেজ।

প্রতিটি গ্যারেজে গড়ে ২০০-৩০০ রিকশা রয়েছে। মিরপুর ১১ নম্বর লালমাটিয়া এলাকার জোড়পুকুরপাড় সংলগ্ন সরকারি খাস জায়গা দখল করে ২০-২৫টি গ্যারেজ রয়েছে।

এসব গ্যারেজ চারপাশে টিন দিয়ে ঘেরা। অবশ্য বাইরে থেকে দেখে বুঝার উপায় নেই এখানে গ্যারেজ রয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা জানে আলম খোকন যুগান্তরকে বলেন, পুকুরের জায়গা দখল করে এসব গ্যারেজ দেয়া হয়েছে। অপরিচিত কেউ এখানে ঢুকতে পারে না। গ্যারেজে অনেক অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ রয়েছে।

গভীর রাতে ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয়। অভিযোগ রয়েছে, পুলিশ সদস্য ও ডেসকোর কর্মকর্তা প্রতি মাসে এখান থেকে টাকা পান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক গ্যারেজ মালিক বলেন, একটি রিকশায় ৪টি ব্যাটারি থাকে। বৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে এসব ব্যাটারি চার্জ দিলে মাসে অনেক টাকা বিল আসবে।

গ্যারেজে রিকশা রাখা বাবদ প্রত্যেক মাসে ১৫০০ টাকা ভাড়া নেয়া হয়। এর বেশি হলে তো আর কেউ গ্যারেজে রিকশা রাখবে না। তাই বাধ্য হয়েই অবৈধ সংযোগ দিয়ে ব্যাটারি চার্জ দিতে হয়।

রূপনগর আবাসিক ৩৯ নম্বর রোডের মাথায় খোলামেলাভাবেই ঘণ্টা হিসেবে ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয়। ডেসকোর এক লাইনম্যান ও স্থানীয় সরকারদলীয় নেতাকর্মীদের যোগসাজশে এখানে অবৈধভাবে ব্যাটারি চার্জ দেয়া হয়।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, প্রতিনিয়ত অটোরিকশা বাড়ছে। সেই সঙ্গে গ্যারেজও বাড়ছে। অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে গ্যারেজ মালিকরা লাভবান হলেও সরকার হারাচ্ছে লাখ লাখ টাকার রাজস্ব।

তাই ব্যাটারিচালিত রিকশা ও অবৈধ গ্যারেজের ব্যাপারে এখনই কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়া দরকার। আরও দেখা যায়, দুর্বার গতিতে ছুটে চলা এসব রিকশার নিয়ন্ত্রণ নেই। শিশু-কিশোর থেকে বৃদ্ধরাও এ অটোরিকশা চালান।

এতে হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা। কয়েকদিন আগে মিরপুর ১১ নম্বর বাজার এলাকায় ব্যাটারিচালিত রিকশার চাকায় ওড়না প্যাঁচিয়ে এক কলেজ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন।

পল্লবী জোনের এসি (ট্রাফিক) সাইকা ইয়াসমিন পাশা বলেন, ব্যাটারিচালিত রিকশার বিরুদ্ধে প্রায়ই অভিযান পরিচালিত হয়। মূল সড়কে এ ধরনের রিকশা দেখামাত্রই আটক করে তা ডাম্পিং করা হয়।

লোকবল সংকটের কারণে সব জায়গায় অভিযান চালানো যায় না। তবে এ ব্যাপারে পুলিশ সব সময় তৎপর রয়েছে।

ডেসকোর পল্লবী জোনের নির্বাহী প্রকৌশলী ইঞ্জিনিয়ার মো. মন্জুরুল হাসান বলেন, অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার জন্য প্রায়ই বিশেষ অভিযান চালানো হয়। এজন্য জেল-জরিমানা ও মামলা পর্যন্ত হয়।

অনেক সময় আমাদেরও হয়রানির শিকার হতে হয়। তিনি বলেন, গ্যারেজে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে ব্যাটারি চার্জ দেয়ার ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×