ডেমরায় ঈদ ও ইফতার পার্টির নামে চাঁদাবাজি

  মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া ২৪ মে ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চাঁদাবাজি

নগরীর ডেমরায় প্রতিবছর রোজার মাস আসতেই ঈদ ও ইফতার পার্টির নামে শুরু হয় বিভিন্ন সংগঠনের নিয়ন্ত্রণহীন চাঁদাবাজি। এতে ক্ষুব্ধ হন এখানকার ব্যবসায়ী ও সুশীল সমাজ।

চাঁদাবাজদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন তারা। স্থানীয় প্রভাবশালী ও রাজনৈতিক নেতাদের টেলিফোনে তারা চাঁদা দিতে বাধ্য হচ্ছেন। এ বিষয়ে প্রশাসন যেন নির্বিকার হয়ে পড়েছেন। কারণ ইফতার পার্টির নামে চাঁদা আদায়ের বিষয়ে কোনো অভিযোগ থানায় নেয়া হচ্ছে না।

ডেমরা ও আশপাশের অঞ্চলে বিভিন্ন অসাধু ভুঁইফোড় রাজনৈতিক সংগঠন, ক্লাব, সামাজিক সংগঠন, বিভিন্ন সমিতি, ভুয়া মানবাধিকার সংস্থা ও নামে-বেনামে সাংবাদিক সংগঠন সময় ভেদে ইফতার পার্টির আয়োজন করে। এসব নাম করে চাঁদা তোলা হয়।

বিভিন্ন সংগঠনের নামে কতিপয় অসাধু মৌসুমি চাঁদাবাজ রমজান মাস এলে ডেমরা ও আশপাশের এলাকায় সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিদের বাধ্য করছেন চাঁদা দিতে। না দিলেই চলছে বিভিন্ন ঝামেলাসহ ভয়ভীতি প্রদর্শন। ডেমরায় নিয়ন্ত্রণহীন চাঁদাবাজি বন্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন এখানকার সচেতন মহল।

রোজা শুরুর পর ডেমরা ও আশপাশের এলাকায় ফুটপাতসহ বিভিন্ন ব্যবসা সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে নানা কৌশলে চাঁদা আদায় করছে তারা। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি বেকায়দায় রয়েছেন ফুটপাতের হকার ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। সংগঠনের পাশাপাশি সন্ত্রাসী, পুলিশ, ভুয়া সাংবাদিকসহ প্রভাবশালী ব্যক্তিকেও তাদের চাঁদা দিতে হচ্ছে।

অন্যথায় উচ্ছেদের হুমকি থেকে মারধরসহ সবই চলছে। পুলিশ প্রশাসনসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীগুলোর পক্ষ থেকে বহুমুখী উদ্যোগ নিলেও নানা ফাঁকফোকরে চাঁদাবাজরা তাদের কাজ ঠিকই চালিয়ে যাচ্ছে। এদিকে সরকারিভাবে ইফতার পার্টি ও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নামে-বেনামে বিভিন্ন সংগঠনের চাঁদাবাজির দোকান (ভুঁইফোড় সংগঠন) বন্ধের কঠোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

দেখা গেছে, ডেমরায় ছোট-মাঝারি ও বড় মিলে সাড়ে ৪ শতাধিক সরকারি-বেসরকারি শিল্প কারখানাসহ বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। আর সংগঠনের নামে মৌসুমি চাঁদাবাজরা প্রায় সব প্রতিষ্ঠানে রোজার শুরু থেকেই যাওয়া শুরু করেছে বলে তাদের অভিযোগ।

ডেমরা জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. রবিউল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, চাঁদাবাজি প্রতিরোধে ডেমরা জোন এলাকায় ইতিমধ্যেই বিশেষ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে পুলিশ। স্থানীয় কতিপয় অসাধু রাস্তার পাশে বা ফুটপাতে দোকান বসিয়েও চাঁদাবাজি করে। ইতিমধ্যে যাত্রাবাড়ীতে ফুটপাত থেকে দোকান উচ্ছেদ করা হয়েছে, যা অব্যাহত থাকবে। আর কোনো প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তি যদি আমাদের কাছে চাঁদাবাজির বিষয়ে অভিযোগ করেন তাহলে তাদের নাম গোপন রেখে অবশ্যই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×