মিটফোর্ড হাসপাতাল

বেতন বোনাসের টাকা কর্তন ২শ’ কর্মচারীর

  যুগান্তর রিপোর্ট ১২ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

নগরীর স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে নিয়োগ পাওয়া ২শ’ কর্মচারীর বেতন ও বোনাস থেকে টাকা কেটে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এসব কর্মচারী। কর্মচারীদের অভিযোগ, নিয়োগ করা প্রতিষ্ঠান ধলেশ্বর সিকিউরিটি কোম্পানি বেতন ও বোনাসের টাকা থেকে ৫ হাজার টাকা করে কেটে রাখে। এতে তাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে সঙ্গীন অবস্থায় ঈদ করতে হয়েছে। আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে নিয়োগ পাওয়া কয়েকজন কর্মচারী যুগান্তরকে বলেন, আমরা সর্বোচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েও দালালের খপ্পরে পড়ে সরকারি চাকরি মনে করে মোটা অঙ্কের টাকা দিয়ে এ হাসপাতালে চাকরি নিয়েছি। চাকরি নেয়ার পর বুঝতে পারি, আউটসোর্সিং পদ্ধতিতে আমাদের নিয়োগ দেয়া হয়েছে। তবুও মূল টাকা উঠানোর আশায় এখানে পড়ে রয়েছি। কিন্তু নিয়োগ করা কোম্পানি ও হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা জাকির হোসেন ও ৪র্থ শ্রেণীর কর্মচারী সমিতির সভাপতি মোজাফফর হোসেন বাবুলের সমন্বয়ে গড়ে উঠা সিন্ডিকেট প্রতি মাসে বেতন থেকে ২ হাজার ৫০০ টাকা করে কেটে রাখছে। এছাড়া পবিত্র ঈদুল ফিতরের বোনাস থেকে ২ হাজার ২০০ টাকা করে কর্তন করে রেখেছে। প্রশাসনিক কর্মকর্তা জাকির হোসেন ও কর্মচারী নেতা বাবুল জোর করে কর্মচারীদের বেতন বইয়ে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা বুঝিয়া পেয়েছি মর্মে স্বাক্ষর করতে বাধ্য করছে। অথচ প্রতি মাসে কর্মচারীদের ১৩ হাজার টাকা করে দেয়া হচ্ছে। বোনাসের টাকা থেকেও এভাবেই জোর করে ৮ হাজার ২শ’ টাকা স্বাক্ষর নিয়ে ৬ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে বলে জানান কর্মচারীরা। হাসপাতালের কয়েকজন ৪র্থ শ্রেণীর নিয়মিত কর্মচারী যুগান্তরকে বলেন, কয়েকদিন আগে আউটসোর্সিং কর্মচারীদের বেতন থেকে টাকা কর্তন করে রাখার বিষয়ে যুগান্তরে সংবাদ প্রকাশের পর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কর্মচারীদের নামে বেতন- বোনাসের টাকা ব্যাংক চেকের মাধ্যমে ইস্যু করে। কিন্তু প্রশাসনিক কর্মকর্তা জাকির হোসেন ব্যাংকে অনলাইনে সমস্যা দেখিয়ে কর্মচারীদের কাছ থেকে চেক নিয়ে তাতে স্বাক্ষর করিয়ে রাখে। পরে ঈদের আগের দিন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী ক্লাবে বসে কর্মচারীদের টাকা কেটে রেখে বাকি টাকা বিলি করে বলে জানান ওই কর্মচারীরা। হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা জাকির হোসেন যুগান্তরকে বলেন, ব্যাংকের অনলাইনে সমস্যা থাকায় কোনো চেক ক্যাশ করতে পারছিল না কর্মচারীরা। এজন্য ঈদের আগে কর্মচারীদের বেতন-বোনাসের টাকা প্রদান করতে কোম্পানিকে অনুরোধ করে চেকে সই নিয়ে বেতন ও বোনাস পরিশোধ করা হয়েছে। তবে টাকা কেটে নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন তিনি। চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতির সভাপতি মোজাফফর হোসেন বাবুল যুগান্তরকে বলেন, কোম্পানি এত টাকা খাটিয়ে কিছু লাভতো করতেই পারে। এতে দোষের কি ঈদের আগে বেতন-বোনাসের টাকা দিয়ে কোম্পানি বরং কর্মচারীদের উপকার করেছে বলে জানান তিনি। স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ব্রায়ান বঙ্কিম হালদার যুগান্তরকে বলেন, কর্মচারীদের বেতন ও বোনাসের টাকা কেটে নেয়ার অধিকার কারও নেই। ঈদ আনন্দ থেকে কর্মচারী ও তাদের পরিবার বঞ্চিত হওয়ার ঘটনা দুঃখজনক। কেউ অনিয়ম করলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×