গান আবৃত্তিতে পিট সিগারকে স্মরণ

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ২৫ জুন ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গান আবৃত্তিতে পিট সিগারকে স্মরণ
জাতীয় জাদুঘরে সোমবার শিল্পী শুভেন্দুর হাতে কিংবদন্তি শিল্পী পিট সিগার সম্মাননা স্মারক তুলে দেন রাশেদ খান মেনন এমপি, পাশে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরীসহ অতিথিরা। ছবি: যুগান্তর

সারা বিশ্বের প্রতিবাদের আরেক নাম পিট সিগার। গানে-সুরে তিনি প্রতিবাদ করেছিলেন। গেয়েছিলেন উই শেল ওভারকাম। আমৃত্যু সংগ্রাম করে গেছেন শোষকের বিরুদ্ধে, রাষ্ট্রীয় অন্যায়-অবিচারের বিরুদ্ধে।

মার্কিন মুল্লুকের মেঠো সুরকে সঙ্গী করে ঘুরে বেড়িয়েছেন পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে। গেল ৩ মে ছিল তার জন্মশতবার্ষিকী। এ উপলক্ষে সোমবার ঋষিজ শিল্পীগোষ্ঠী আয়োজন করে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের। যাতে ‘পিট সিগার সম্মাননা পদক’ প্রদান করা হয় পশ্চিমবঙ্গের লোক ও গণসঙ্গীতশিল্পী শুভেন্দু মাইতিকে।

জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন লেখক-গবেষক মফিদুল হক। ঋষিজ সভাপতি ফকির আলমগীরের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি গোলাম কুদ্দুছ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বিভিন্ন গণসঙ্গীত দলের শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘জাগো জাগো সর্বহারা’ ও পিট সিগারের অমর গান ‘উই সেল ওভারকাম’ গান দুটি। এরপর অনুষ্ঠানস্থলে রাখা পিট সিগারের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান অতিথিরা।

রাশেদ খান মেনন বলেন, পিট সিগার মানুষের অধিকার নিয়ে গান গেয়েছেন। তার গানের কথাগুলো উচ্চকিত ছিল না। সাধারণ কথার গান দিয়ে তিনি সাধারণ মানুষের কাছে বার্তা দিয়েছেন।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, পিট সিগার সবসময়ের অনুপ্রেরণা। তিনি সারা বিশ্বের জন্য যা রেখে গেছেন, তা প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম ধরে রাখতে হবে।

শুভেন্দু মাইতি বলেন, ১৯৯৬ সালে ভারতে এলে তার সঙ্গে সময় কাটানোর সুযোগ হয়েছিল। এটা আমার জীবনের জন্য পুণ্য। তিনি আমাকে শিখিয়েছেন, গণসঙ্গীত হল লোকসঙ্গীতের আধুনিকতর রূপ।

মফিদুল হক বলেন, পিট সিগার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে অংশ নিলেও তিনি ছিলেন যুদ্ধবিরোধী। গানকে জীবনের ভেতরে নেয়া যায়; আবার জীবনকে গানের সঙ্গে মেলানো যায়- তিনি সেটি দেখিয়েছেন। ‘উই সেল ওভারকাম’ গানটি চার্চের গান। সে গানটিকে তিনি সংগ্রামী গান হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেছেন।

গোলাম কুদ্দুছ বলেন, গানের মাধ্যমে তিনি যে দাবির কথা বলেছেন, তার দাবিগুলো আজও প্রাসঙ্গিক। লোকশিল্পী হিসেবে মানুষের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াইয়ে কত বড় যে ভূমিকা রাখা যায়, তা তার থেকে শিক্ষা নেয়া যায়।

ফকির আলমগীর বলেন, পিট সিগার বিশ্বের সব নির্যাতিত মানুষের পাশে থাকার আহ্বান জানিয়ে ও তাদের মুক্তিসংগ্রামের পক্ষে চিরকাল গান করে গেছেন। তার দেখানো পথ ধরে আমরা আজও মেহনতি মানুষের পক্ষে আওয়াজ তুলে যাচ্ছি।

অনুষ্ঠানে একক কণ্ঠে সম্মাননাপ্রাপ্ত শিল্পী শুভেন্দু মাইতি গেয়ে শোনান ‘সং অব সোলিডারিটি’র বাংলা অনুবাদ ‘স্বাধীনতা আমাদের জন্মগত অধিকার’। ফকির আলমগীর গেয়ে শোনান ‘নাম তার জন হেনরি’, ‘থ্রো দ্য উইন্টারস’, ‘বাংলার কমরেড বন্ধু’ ও ‘ওয়েলকাম, পিট সিগার’।

ছিল দলীয় পরিবেশনা। এতে উদীচীর শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘সময়ের ভ্রান্তিতে টলো না’ ও ‘হাতুড়িতে পেটাও লোহা’। বহ্নিশিখার শিল্পীরা গেয়ে শোনান ‘হোয়ার হ্যাভ অল দ্য ফ্লাওয়ারস গোন’ ও ‘আজ যত যুদ্ধবাজ’। ঋষিজের শিল্পীদের কণ্ঠে গীত হয় ‘ওরা আমাদের গান গাইতে দেয় না’ ও ‘ভয় কি মরণে রাখিতে সন্তানে’। দলীয় পরিবেশনায় আরও অংশ নেন ক্রান্তি শিল্পীগোষ্ঠী, সত্যেন সেন শিল্পীগোষ্ঠী, আনন্দন, সমস্বর ও ভিন্নধারার শিল্পীরা। অনুষ্ঠানে আবৃত্তি করেন রফিকুল ইসলাম, ইকবাল খোরশেদ, লায়লা আফরোজ ও ঝর্ণা সরকার।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×