বুড়িগঙ্গার তীরে উচ্ছেদকালে হামলা : ম্যাজিস্ট্রেট আহত

বৃহস্পতিবার ৯০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ

  কেরানীগঞ্জ প্রতিনিধি ১২ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বুড়িগঙ্গা নদীর তীরে পোস্তগোলা শ্মশানঘাট এলাকায় বৃহস্পতিবার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান চলার সময় হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে অভিযানের নেতৃত্বে থাকা অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ পাঁচজন আহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। জানুয়ারিতে শুরু হওয়া এ অভিযানে প্রথমবারের মতো এমন ঘটনা ঘটল। পরে আহত ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাস্থল থেকে প্রস্থান করলে অন্য একজন ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে প্রায় ঘণ্টাখানেক পর উচ্ছেদ অভিযান পুনরায় শুরু হয়।

বৃহস্পতিবার সকালে ধারাবাহিকভাবে উচ্ছেদ ও নদীর জায়গা উদ্ধার অভিযানে নামে বিআইডব্লিউটিএ। বুড়িগঙ্গার উত্তর পাড়ে পোস্তগোলা শ্মশানঘাট থেকে শ্যামপুর লঞ্চঘাট পর্যন্ত উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে ৯০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে বিআইডব্লিউটিএ।

উচ্ছেদ অভিযানে বাধা ও হামলার অভিযোগে শ্মশানঘাটের ইজারাদার রিপনের ছোট ভাই বাপ্পীসহ আটক তিনজনের প্রত্যেককে ৩ মাস করে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। বিআইডব্লিউটিএর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাবিবুর রহমান হাকিম ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের এ সাজা দেন।

ঢাকা নদীবন্দরের যুগ্ম পরিচালক একেএম আরিফ উদ্দিন জানান, অভিযান চলাকালে বেলা ১১টা নাগাদ শ্মশানঘাটের ইজারাদার ইব্রাহিম আহমেদ রিপন উচ্ছেদ কার্যক্রমে বাধা দেন। একপর্যায়ে রিপন তার দলবল নিয়ে অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ অন্য কর্মকর্তাদের ওপর হামলা চালায়। এতে ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাফিজুর রহমানসহ পাঁচজনের গায়ে আঘাত লাগে। তবে আঘাত গুরুতর নয়। জানা যায়, পুলিশ সদস্যরা হামলাকারীদের ঠেকাতে ব্যর্থ হলে অতিরিক্ত পুলিশ ডাকা হয়। তারা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ঢাকা নদীবন্দরের উপপরিচালক মিজানুর রহমান জানান, এতদিন নদীর তীরে অবৈধ দখলদারদের স্থাপনা গুঁড়িয়ে দেয়া হলেও দখলদাররা কিছু করার সাহস পায়নি।

৯০ অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ : বুড়িগঙ্গার উত্তর পাড়ে পোস্তগোলা শ্মশানঘাট থেকে শ্যামপুর লঞ্চঘাট পর্যন্ত উচ্ছেদ অভিযান চালিয়ে ৯০টি অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে বিআইডব্লিউটিএ। এর মধ্যে রয়েছে দোতলা ভবন ১টি, একতলা ভবন ১৫টি, আধা-পাকা ভবন ৪৫টি ও টিনের ঘর ২৯টি। এসব অবৈধ স্থাপনা অপসারণের মাধ্যমে নদীর প্রায় ৭ একর জায়গা দখলমুক্ত করা হয়। এ ছাড়াও নদীর তীরে দীর্ঘদিন ধরে ফেলে রেখে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টির কারণে বালু, পাথর, টিনসহ বিভিন্ন মালামাল নিলামের মাধ্যমে বিক্রি করে ১ কোটি ৪৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা পাওয়া গেছে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×