মাদারটেকে অপ্রশস্ত সড়ক

যানজটে নাকাল এলাকাবাসী

রয়েছে গণপরিবহন সংকট * যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত

  মো. মাহবুবুর রহমান ভূঁইয়া ২০ জুলাই ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মাদারটেকে অপ্রশস্ত সড়ক
অপ্রশস্ত মাদারটেক-বাসাবো সড়ক। এ কারণে এ সড়কে লেগেই থাকে যানজট। ছবি: যুগান্তর

নগরীর মাদারটেকে প্রধান সড়কসহ অভ্যন্তরীণ সড়কগুলো অপ্রশস্ত। তাই এখানে যাত্রী ও পণ্যবাহী যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে।

গণপরিবহন সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। বছরের পর বছর এখানকার শিক্ষার্থী ও অফিসগামী মানুষের দুর্ভোগ পিছু ছাড়ছে না। এছাড়া অপ্রশস্ত রাস্তায় যানজট লেগেই থাকে।

এদিকে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মাদারটেক-বাসাবো সড়কটি প্রশস্ত করার পরিকল্পনা থাকলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

ডিএসসিসি ৪ নম্বর ওয়ার্ড এলাকা হচ্ছে সবুজবাগ থানাধীন মাদাটেক। মাদারটেকের অলি-গলি শাখা রাস্তাসহ প্রধান সড়ক মিলে প্রায় ৪৫ কিলোমিটার অপ্রশস্ত সড়ক রয়েছে। এখানে গণপরিবহন কম থাকায় অন্তত ৬ লক্ষাধিক মানুষের দুর্ভোগ ক্রমেই বাড়ছে।

এখানে সবচেয়ে বড় সমস্যা নন্দীপাড়া ব্রিজ থেকে বাসাবো বিশ্বরোড জামে মসজিদ পর্যন্ত অপ্রশস্ত ২ কিলোমিটার সড়ক। এটি ৬০ ফুট প্রশস্ত থাকার কথা থাকলেও স্থান ভেদে ২৫ থেকে ৩০ ফুট রয়েছে।

এ সড়কটির দুই পাশেই অবৈধ দোকানপাটসহ বিভিন্ন পাকা স্থাপনা রয়েছে। ২০১৫ সালে রাস্তাটি প্রশস্ত করার বিষয়ে পরিকল্পনা নেয়া হয়। পরবর্তীতে অজ্ঞাত কারণে ওই পদক্ষেপ বাস্তবায়ন হয়নি। এদিকে ডিএসসিসি বলছে, মাদারটেক-বাসাবো সড়কটি প্রশস্ত করার বিষয়টি অনুমোদন হয়নি।

সরেজমিন দেখা গেছে, দক্ষিণ বাসাবো হযরত বেলাল মসজিদ থেকে শহীদ জিয়া স্কুল পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তাটিও অপ্রশস্ত। এ সড়কটি ৬০ ফুট প্রশস্ত করা খুবই জরুরি বলে জানিয়েছেন এলাকাবাসী। এদিকে মাদারটেক চৌরাস্তা থেকে বাগানবাড়ী-কদমতলা ব্রিজ পর্যন্ত ১ কিলোমিটার সড়কটিও অপ্রশস্ত।

মাদারটেক চৌরাস্তা থেকে বাগানবাড়ী হয়ে কদমতলা ব্রিজ পর্যন্ত ২ কিলোমিটার অপ্রশস্ত সড়ক অন্তত ২০ ফুট প্রশস্ত করা প্রয়োজন। পূর্ব মাদারটেক থেকে সিঙ্গাপুরের গলি হয়ে দক্ষিণ বনশ্রী পর্যন্ত আধা কিলোমিটার সড়ক প্রশস্ত করা খুবই জরুরি।

পাশাপাশি বাগানবাড়ী থেকে পূর্ব বাসাবো পাটোয়ারীর গলি হয়ে প্রধান সড়ক পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার সড়কসহ অভ্যন্তরীণ আরও ৪ কিলোমিটার সড়ক প্রশস্ত করা জরুরি।

তাছাড়া পূর্ব মাদারটেক মাঝারগলি, সিঙ্গাপুর রোড, এলাহীবাগ আবাসিক এলাকাসহ উত্তর মাদারটেকের রাস্তাগুলো সাধারণত ১০ থেকে ১২ ফুট রয়েছে।

ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ইজিবাইক, সিএনজিচালিত অটোরিকশা, পায়ে চালিত রিকশাই মাদারটেকের প্রধান যানবাহন। তবে দুপরের পরে নিজেদের প্রয়োজনে কিছু যাত্রীবাহী লেগুনা ও ম্যাক্সি চলাচল করে।

কিন্তু জরুরি মুহূর্তে কিছুতেই তাদের দেখা মেলে না। এলাকাবাসীর অভিযোগ, মাদারটেকে যানজট নিত্যসঙ্গী। সকাল থেকে রাত সাড়ে ১০টার মধ্যেও কখনও যদি স্টাফ বাস বা বড় যানবাহন মাদারটেক-বাসাবো সড়কে প্রবেশ করে তাহলে দীর্ঘ যানজট লাগবেই।

মাদারটেক পাটোয়ারী গলির বাসিন্দা ইকবাল হাসান শিপন যুগান্তরকে বলেন, মাদারটেকবাসীকে দেখার কেউ নেই। গণপরিবহন সংকটে দুপুর বাদে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এখানে যানজটসহ নানা প্রতিবন্ধকতা লেগেই থাকে।

কদমতলা ব্রিজ থেকে বৌদ্ধ মন্দির পর্যন্ত রাস্তায় যানজট থাকবেই। এছাড়া মদিনাবাগ থেকে ওয়াসা রোড সালাম ডেইরির আগে বাসাবো বাজার পর্যন্ত সড়ক খুবই অপ্রশস্ত। আব্দুস সালাম নামে এক শিক্ষার্থী যুগান্তরকে বলেন, মাদারটেকের অপ্রশস্ত রাস্তার কারণে এখানে যাত্রীবাহী কোনো বাস চলাচল করে না।

অন্যান্য পরিবহনও এখানে চলে না বলে যাতায়াতে আমাদের অনেক কষ্ট হয়।

ডিএসসিসি ৪ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম হোসেন যুগান্তরকে বলেন, মাদারটেকের প্রধান সড়কটির প্রশস্তকরণ ও সংস্কার এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি। অন্যান্য প্রায় সব নাগরিক সুবিধা মাদারটেকে থাকলেও অপ্রশস্ত রাস্তার কারণে জনদুর্ভোগ এখানে তীব্র।

সেইসঙ্গে গণপরিবহন সংকট আরও প্রকট। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে এবং ২০১৬ সালের নভেম্বর মাসে মেয়র সাঈদ খোকনের নির্দেশ অনুযায়ী মাদারটেকের রাস্তার প্রশস্তকরণ জরুরি। আর রাস্তার উন্নয়ন হলে এখানকার গণপরিবহন সংকট ও যানজটসহ সব সমস্যাই সমাধান হয়ে যাবে।

ডিএসসিসি (অঞ্চল-২) সহকারী প্রকৌশলী মো. পারভেজ রানা যুগান্তরকে বলেন, মাদারটেক-বাসাবো সড়কটি বর্তমানে খুব ভালো।

তবে বৃহৎ জনগোষ্ঠীর স্বার্থে এ রাস্তাটিসহ ওখানকার অভ্যন্তরীণ রাস্তাগুলো প্রশস্ত করা প্রয়োজন। এখনও মাদরটেকের প্রধান সড়কটি বড় করার বিষয়ে অনুমোদন দেয়া হয়নি। কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ওই সড়কের ব্যাপারে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়া হবে।

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×