সোয়া লাখ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার পাঁচ

গার্মেন্ট লট ব্যবসার আড়ালে মাদক ব্যবসা

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

গার্মেন্ট লট ব্যবসার আড়ালে মাদক ব্যবসা করছে এমন একটি চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। নগরীর ভাটারা থেকে এক লাখ ২০ হাজার পিস ইয়াবাসহ তাদের গ্রেফতার করা হয়। সোমবার ভোরে র‌্যাব-১-এর একটি দল ভাটারার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে। এ চক্রটি কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে দেশের বিভিন্ন এলাকায় সরবরাহ করত। গ্রেফতার ব্যক্তিরা হল- সিরাজুল ইসলাম রুবেল, সুমাইয়া সুলতানা রিয়া, মফিজুল ইসলাম, শাকের ও জসিম উদ্দিন।

র‌্যাব জানায়, মূলত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর চোখ ফাঁকি দিতে নগরীর অভিজাত এলাকায় বাসা ভাড়া নেয় চক্রটি। ভাটারার ওই বাসায় অভিযান চালিয়ে একটি ব্যাগ থেকে বিশ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। পরে মাদক ব্যবসায়ীদের ব্যবহৃত একটি রেজিস্ট্রেশনবিহীন মাইক্রোবাসের ভেতর গোপন প্রকোষ্ঠে বিশেষ কায়দায় লুকানো অবস্থায় আরও এক লাখ পিস ইয়াবা উদ্ধার করা হয়। মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়েছে। তাদের ব্যবহৃত ৮টি মোবাইল ফোন এবং ইয়াবা বিক্রির ছয় হাজার ২০০ টাকাও জব্দ করা হয়েছে।

আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, গ্রেফতার সিরাজুল ইসলাম রুবেল ও তার স্ত্রী সুমাইয়া সুলতানা রিয়া ভাটারার ওই বাসায় ভাড়া থাকে। দুই বছর আগে তাদের বিয়ে হয়। সিরাজুল গার্মেন্টের লটের ব্যবসা করে। ওই ব্যবসার আড়ালেই তারা মাদক ব্যবসা করছে। ওই বাসাটি মাদক ট্রানজিট ও বিতরণের জন্য ব্যবহার করা হয়। গ্রেফতার মফিজুল মাইক্রোবাস চালক। মাইক্রোবাসটি মাদক পরিবহনের কাজে ব্যবহার করা হতো। ওই মাইক্রোবাসে যাত্রী পরিবহনের আড়ালে মাদক বহনের জন্য একটি গোপন প্রকোষ্ঠ তৈরি করা আছে। শাকের ও জসিম যাত্রীবেশে মাদক বহনকারী হিসেবে কাজ করে। কখনও কখনও এ চক্রটি টেকনাফ থেকে বাস বা ট্রেনে করেও ঢাকায় ইয়াবা নিয়ে আসে।

র‌্যাব-১-এর অধিনায়ক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম বলেন, ইয়াবাসহ গ্রেফতার ব্যক্তিদের জিজ্ঞাসাবাদে চক্রের আরও কয়েকজন সদস্যের বিষয়ে তথ্য পাওয়া গেছে। তাদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

র‌্যাব বলছে, ২০১৭ সালের জুলাই মাসে টেকনাফের দুই জন মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে রাজধানীর গুলিস্তানের একটি রেস্টুরেন্টে সিরাজুলের পরিচয় হয়। তারপর তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব হয়। টেকনাফের দুই ব্যক্তি সিরাজুলকে ইয়াবা ব্যবসার প্রস্তাব দেয়। এইভাবে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে সিরাজুল। পরিকল্পনা অনুযায়ী, সিরাজুল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরদারি এড়াতে বসুন্ধরা এলাকায় বাসা ভাড়া নেয়।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.