ভূপেন হাজারিকাকে নিয়ে শিল্পকলার নিবেদন

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ০৭ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভূপেন হাজারিকাকে নিয়ে শিল্পকলার নিবেদন
ভূপেন হাজারিকা। ছবি: সংগৃহীত

আলোচনা, সঙ্গীত পরিবেশনাসহ নানা আয়োজনে স্মরণ করা হল উপমহাদেশের বিখ্যাত সঙ্গীত শিল্পী ভূপেন হাজারিকাকে। তার ৮ম প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে ‘মোরা যাত্রী একই তরণীর’ শীর্ষক তিন দিনব্যাপী আলোচনা, সঙ্গীত ও নৃত্যানুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি, ব্যতিক্রম মাসডো, আসাম এবং অসম সাহিত্যসভা।

বুধবার ছিল এ আয়োজনের দ্বিতীয় দিন। এদিন সন্ধ্যায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে আলোক প্রজ্বালন ও ভূপেন হাজারিকার স্মৃতির প্রতি ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে ২য় দিনের অনুষ্ঠান শুরু হয়।

আলোচনা পর্বে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন ভারতের আসামের অসম সাহিত্যসভার সভাপতি ড. পরমানন্দ রাজবংশী ও আসামের সাবেক বিচারপতি বিপ্লব শর্মা।

আলোচনা শেষে সাংস্কৃতিক পর্বে সত্রীয়া নৃত্য পরিবেশন করে শ্রদ্ধাঞ্জলি শর্মা, প্রিয়াংকা সিনহা ও সম্রাজ্ঞী কায়ছোপ। ‘অষ্ট আকাশ হতে’ গানটি করে ইন্ডিয়ান আইডলের শ্রেষ্ঠ গায়িকা মানসী সহরিয়া, ‘হে জয় রগুনন্দন’ অসমিয়া সঙ্গীত পরিবেশন করে দিল্লি রাজ্যসভার সাবেক এমপি কুমার দীপক দাস, ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এবং ‘আজ জীবন খুঁজে পাবি’ ২টি সমবেত সঙ্গীত পরিবেশন করে ঢাকা সাংস্কৃতিক দলের শিল্পীবৃন্দ, আসামের বর্ণালি মহন্তোর নৃত্য পরিচালনায় সত্রীয়া নৃত্য, কৃষ্ণ বন্দনা, গোপী নৃত্য এবং গঙ্গা আমার মা পরিবেশন করে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি নৃত্যশিল্পীবৃন্দ, গোয়াল পারিয়া ফোক সঙ্গীত পরিবেশন করে জবা চক্রবর্তী, ভূপেন হাজারিকার ওপর মডার্ন ডান্স সময়ের অগ্রগতি পরিবেশন করে মরমি মেডি।

আসামের নৃত্য পরিচালক রুমিলা বড়োর নৃত্য পরিচালনায় বহু আঙ্গিকে সাজিয়ে দোপাটি মাথার খোঁপাটি গানের কথায় সমবেত নৃত্য পরিবেশন করে শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশিল্পীবৃন্দ, ভূপেন হাজারিকার গান প্রতিধ্বনি শুনি এবং জয় জয় নবজাতক পরিবেশন করে রুপম ভূঁইয়া, জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পী তরালী শর্মা পরিবেশন করে গঙ্গা আমার মাসহ ২টি গান, মঙ্গল হোক এ শতকে মঙ্গল সবার গানের কথায় সমবেত নৃত্য করে শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশিল্পীবৃন্দ।

এ ছাড়াও সঙ্গীত পরিবেশন করে মন্দীপ মহন্তো এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকী। আজ সন্ধ্যায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সমাপনী। সমাপনী সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি ও অসম সাহিত্যসভার যৌথ আয়োজনে অসম কলাতীর্থ ও এসবি মুভিজের নিবেদন কমলারানির গল্প অবলম্বনে ড. পরমানন্দ রাজবংশীর রচনা, প্রযোজনা ও পরিচালনায় মঞ্চস্থ হবে অসমিয়া নাটক ‘কমলাকুঁয়রীর সাধু’।

নতুন অ্যালবাম ‘অচিনপুরের গান’ প্রকাশিত : ছয়টি গান ও একটি আবৃত্তি নিয়ে ‘অচিনপুরের গান’ শিরোনামে ভিন্ন আঙ্গিকের অ্যালবাম প্রকাশ হল। বুধবার সন্ধ্যায় বাংলামোটরের বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে অ্যালবামটির মোড়ক উন্মোচন করেন নন্দিত সঙ্গীত শিল্পী বাপ্পা মজুমদার, পার্থ বড়ুয়া, গীতিকার সাবরিনা সুলতানা চৌধুরী, শেখ রানাসহ অনেকে। আরও উপস্থিত ছিলেন একেএম মোস্তাফিজুর রহমান, অভিনেত্রী তানিয়া হোসাইন, জয় শাহরিয়ার প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সাহস মুস্তাফিজ।

শেখ রানা ও সাবরিনা সুলতানা চৌধুরীর লেখা গানগুলো গেয়েছেন পার্থ বড়ুয়া, হাসান আবিদুর রেজা জুয়েল, বাপ্পা মজুমদার, পিন্টু ঘোষ, লাবিব কামাল ও ফোক ব্যান্ডদল ‘গানকবি’। সঙ্গে সাবরিনার লেখা একটি কবিতা আবৃত্তি করেছেন ত্রপা মজুমদার। ইউটিউবে অচিনপুর নামের চ্যানেল থেকে অ্যালবামের সব কটি ট্র্যাক শোনা যাবে।

কথামালায় সাহিত্যিক মনিরউদ্দীন ইউসুফের জন্মশতবর্ষ উদ্যাপন : কবি, ঔপন্যাসিক, প্রবন্ধকার, অনুবাদক, শিশুসাহিত্যিক ও মধ্যপ্রাচ্য সাহিত্য বিশেষজ্ঞ মনিরউদ্দীন ইউসুফ। আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আর স্মারক গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচনের মধ্য দিয়ে একুশে পদকপ্রাপ্ত মননশীল সাহিত্যিক মনিরউদ্দীন ইউসুফের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপন করা হয় শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে বুধবার সন্ধ্যায়।

মনিরউদ্দীন ইউসুফ জন্মশতবর্ষ জাতীয় উদ্যাপন পরিষদ আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী, ড. মাহমুদ শাহ কোরেশী, অধ্যাপক মোহাম্মদ হারুন উর রশিদ, গবেষক সমর পাল, কবি নাসির আহমেদ, কবি আসলাম সানী প্রমুখ।

পরিষদের সদস্য সচিব ড. হালিম দাদ খানের স্বাগত বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শুরু হয় অনুষ্ঠান। বক্তারা বলেন, গার্হস্থ্যজীবনের নানা টানাপোড়েনের মধ্যেও সাহিত্যকর্ম থেকে দূরে সরে যাননি মনিরউদ্দীন ইউসুফ।

ফলে মৌলিক রচনা ও অনুবাদ মিলিয়ে বাঙালিপাঠক নানা বিষয়ে তার কমবেশি ছয় হাজার পৃষ্ঠার ৩৭টি গ্রন্থ পেয়েছে। একজন সাহিত্যিক দৈহিকভাবে গত হয়েও পাঠকদের মাঝে বেঁচে থাকেন তার সাহিত্যকর্মের পঠন ও আলোচনার মাধ্যমে।

ইন্তেকালের পরও ১৫টি গ্রন্থ প্রকাশিত ও জীবতকালে প্রকাশিত ২২টি গ্রন্থের প্রায় সব কটি বাজারে চালু থাকা প্রমাণ করে মনিরউদ্দীন ইউসুফ উজ্জ্বলভাবে বেঁচে আছেন এবং বেঁচে থাকবেন যুগ-যুগান্তরে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×