ডিএসসিসি কাউন্সিলর নির্বাচন ২০২০ : ১৪ নম্বর ওয়ার্ড

বেকারদের কর্মসংস্থান করার প্রতিশ্রুতি

  কাওসার মাহমুদ ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

মো. সেলিম, দিল জাহান ভুইয়া ও ইলিয়াসুর রহমান
মো. সেলিম, দিল জাহান ভুইয়া ও ইলিয়াসুর রহমান। ছবি: যুগান্তর

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ১৪নং ওয়ার্ডে বেকারদের কর্মসংস্থান করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থীরা। ওয়ার্ডটিতে ড্রেনেজ ও পয়োনিষ্কাশন ব্যবস্থার আধুনিকায়ন, পানি ও মশক সমস্যা সমাধান করার অঙ্গীকার করেছেন তারা।

এছাড়া পরিকল্পিত ও প্রশস্ত রাস্তা নির্মাণের পরিকল্পনা ও পরিবেশ দূষণ রোধ করে সর্বাধুনিক মডেল ওয়ার্ড গড়তে চান ওই সম্ভাব্যরা। এলাকাবাসীর দোয়া চেয়ে কেউ কেউ অগ্রিম পোষ্টার, লিফলেট ও দেয়াল লিখন দিয়ে প্রচারণা চালাচ্ছেন।

ভোটারদের সঙ্গে ঘরোয়া ও উঠান বৈঠকও করছেন কেউ কেউ। দলীয় মনোনয়ন পেতে উচ্চ পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গেও নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন তারা।

হাজারীবাগ থানাধীন ১৪নং ওয়ার্ডটি ডিএসসিসির আঞ্চল-৩ এর আওতাধীন। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা প্রায় ৮৪ হাজার হলেও ওয়ার্ডটিতে প্রায় ৫ লক্ষাধিক মানুষের বসবাস।

ওয়ার্ডটি ঘিঞ্জি ঘনবসতিপূর্ণ ছোটখাটো সরু গলির পাশাপাশি চামড়া শিল্প নগরী হিসেবে পরিচিত। চামড়া শিল্প সাভারে স্থানান্তর করায় এখানে অনেক শ্রমিক বেকার হয়ে পড়েছেন। এছাড়া অনেক ট্যানারি মালিকও দেউলিয়া হয়ে পড়েছেন। এটি সংসদীয় ঢাকা-১০ আসন অন্তর্ভুক্ত এলাকা।

এর আয়তন কয়েক বর্গকিলোমিটার। ওয়ার্ডটি ঝিগাতলা, ট্যানারি মোড়, বৌবাজার, হাজারীবাগ বাজার, গজমহল, সুলতানগঞ্জ, শিকারিটোলাসহ ১৫টি পাড়া-মহল্লা নিয়ে গঠিত।

ডিএসসিসির ১৪নং ওয়ার্ডের সম্ভাব্য ওয়ার্ড কাউন্সিলর হিসেবে আওয়ামী লীগ থেকে প্রার্থী হলেন বর্তমান কাউন্সিলর মোহাম্মদ সেলিম, হাজারীবাগ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইলিয়াসুর রহমান বাবুল ও ১৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলজাহান ভূঁইয়া।

এছাড়া জাতীয় পার্টি থেকে শাহ আলম খানের নাম শোনা গেছে।

হাজারীবাগ থানাধীন ডিএসসিসির ১৪নং ওয়ার্ড এলাকার গুরুত্বপূর্ণ স্থান ট্যানারি মোড়, সুলতানগঞ্জসহ পুরো এলাকার সর্বত্রই সড়কে তীব্র যানজট লেগেই থাকে। তাছাড়া এখানে স্যুয়ারেজ ব্যবস্থাহীন অপরিকল্পিত ও অপ্রশস্ত রাস্তা রয়েছে।

ব্যাটারিচালিত অবৈধ ৩ চাকার যানবাহন চলাচল বেশি থাকায় সড়কে অনিয়ম-অব্যবস্থাপনা লেগেই থাকে। ওয়ার্ডে স্থায়ী খেলার মাঠ ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার, ব্যায়ামাগার, পাঠাগার না থাকায় সমস্যায় রয়েছেন বাসিন্দারা।

তাছাড়া অভ্যন্তরীণ এলাকার নোংরা পরিবেশ ও ধুলাবালু বেশি থাকায় মশা-মাছির উপদ্রব এখানে অনেক বেশি। সন্ধ্যা নামতেই ঝাঁকে ঝাঁকে মশার আক্রমণ শুরু হয়।

এখানকার সড়কের দু’পাশেই এলোমেলোভাবে পার্কিং করা থাকে ব্যক্তিগত গাড়িসহ শত শত রিকশা। এখানে গাড়ি পার্কিংয়ের আলাদা সুব্যবস্থা দেখা যায়নি।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, বৃষ্টি হলেই অভ্যন্তরীণ সড়ক ও গলিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সেই পানি নামতেও দীর্ঘ সময় লাগে। এখানে ডিএসসিসির কমিউনিটি সেন্টার না থাকায় নিুবিত্ত ও মধ্যবিত্তদের বিয়েসহ সামাজিক অনুষ্ঠানের অতিরিক্ত খরচ বহন করতে হয়।

এছাড়া ওয়ার্ডের প্রায় স্থানে গ্যাসের সমস্যা রয়েছে। এ ওয়ার্ডে মাদকের আনাগোনা এখনও কমেনি বলে অভিযোগ এলাকাবাসীর।

বর্তমান কাউন্সিলর মো. সেলিম যুগান্তরকে বলেন, গজমহল শিশুপার্ক উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। আমি মনোনয়ন পেলে একটি নাগরিকবান্ধব ওয়ার্ড গড়ে তুলব।

ওয়ার্ডটির আরেক কাউন্সিলর প্রার্থী ও হাজারীবাগ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ইলিয়াসুর রহমান বাবুল যুগান্তরকে বলেন, আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে এলাকার গরিব, বেকার শ্রমিক ও বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়া মানুষের আত্মকর্মসংস্থান তৈরিতে কাজ করব। তাদের স্বাবলম্বী করে গড়তে যা করা প্রয়োজন তাই করব।

শিক্ষা বিস্তারে পদক্ষেপ নেয়ার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এলাকায় নাগরিক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার ইচ্ছা ব্যক্ত করেন। এছাড়া ওয়ার্ডের বিভিন্ন স্থানে দখল করা খাস জমি উদ্ধার করে ওই স্থানে খেলার মাঠ নির্মাণ করা হবে বলে জানান তিনি।

১৪নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি দিলজাহান ভূঁইয়া যুগান্তরকে বলেন, নাগরিকবান্ধব ওয়ার্ড করা হবে। এছাড়া খেলার মাঠ ও কমিউনিটি সেন্টার, ব্যায়ামাগার, পাঠাগার নির্মাণের প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন তিনি।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×