সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১২, ১৩ ও ১৪: নারীদের সুরক্ষায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা
jugantor
ডিএসসিসি কাউন্সিলর নির্বাচন ২০২০
সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১২, ১৩ ও ১৪: নারীদের সুরক্ষায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা

  মো. খোরশেদ আলম শিকদার  

২৬ জানুয়ারি ২০২০, ০০:০০:০০  |  প্রিন্ট সংস্করণ

সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১২, ১৩ ও ১৪: নারীদের সুরক্ষায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত ১২, ১৩ ও ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থীরা বাসিন্দাদের কল্যাণে কাজ করতে চান।

তারা ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসন, রাস্তার উন্নয়ন, মশক নিধন, মাদকমুক্ত সমাজ গড়ারও কথা বলছেন। বিশেষ করে নারীদের সুরক্ষায় যৌন হয়রানি প্রতিরোধ, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা চালু করার অঙ্গীকার করছেন তারা। সুবিধাবঞ্চিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত আসন ১২ : সাধারণ ৩৫, ৩৬ ও ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে এ ওয়ার্ড গঠিত। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা-৪৮ হাজার ৪৫০ জন। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন চারজন।

তারা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিউম্যান রাইটস ইমপ্লিমেন্টেশন কমিশন কোতোয়ালি থানার সভাপতি আনোয়ারা বেগম রেশমা সরদার (চশমা)। বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা দলের ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা সুরাইয়া বেগম (আনারস)। জাতীয় মহিলা পার্টি ঢাকা জেলার সভানেত্রী মনোয়ারা তাহের (মানু) (গ্লাস)। আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী শেফালী রানী মল্লিক (বই)।

আনোয়ারা বেগম রেশমা সরদার বলেন, হাসমত সরদার খান প্রসন্ন পোদ্দার লেন স্কুলের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমি মসজিদ-মন্দির, স্কুল ও নারী শিক্ষাসহ সমাজসেবামূলক কাজ করে যাচ্ছি।

পরিবারের ও আমার বিগত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বিবেচনায় আওয়ামী নেতাকর্মীসহ এলাকার বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমি আশাবাদী বাসিন্দাদের মূল্যবান ভোটে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ।

নির্বাচিত হলে ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসনে আধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা, কোরবানির বর্জ্য দ্রুত অপসারণ, মশক নিধন, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা পেতে সহায়তা করব।

সুরাইয়া বেগম বলেন, আমি তিনবার এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। আমার কাছে কেউ কোনো কাজের জন্য এসে ফেরত যায়নি। যখন কোনো কাজ নিয়ে এসেছে, আমি করে দিয়েছি।

আমি বাসিন্দাদের পরীক্ষিত কাউন্সিলর। যার ফলে নির্বাচন এলে আমাকে তাদের মূল্যবান ভোট দিতে কৃপণতা বা দ্বিধা করে না। আমি আশাবাদী এবারও তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন।

পুনরায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করব। আগের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বাসিন্দাদের আরও সেবা দিতে কাজ করব।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত আসন ১৩ : সাধারণ ৩৪, ৩৮ ও ৪১ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা এক লাখ। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন দু’জন। তারা হলেন আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী শাহিনুর বেগম (আনারস), বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী রেহানা ইয়াসমিন ডলি (হেলিকপ্টার)।

শাহিনুর বেগম বলেন, আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়নে কাজ করব। বিশেষ করে নারীদের বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা পেতে সুবিধাবঞ্চিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করব।

মাদকমুক্ত ওয়ার্ড গড়তে পাড়া মহল্লায় কমিটি করে মাদকমুক্ত ওয়ার্ড উপহার দেব। রেহানা ইয়াসমিন বলেন, বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। সুষ্ঠু ভোট হলে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ।

আর নির্বাচিত হলে নারীদের সুরক্ষায় যৌন হয়রানি প্রতিরোধ, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা পেতে কাজ করব।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ১৪ : সাধারণ ৩৯, ৪০ ও ৪৯ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ৮৪০ জন। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন চারজন।

প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক কাউন্সিলর লাভলী চৌধুরী (আলমারি), বিএনপি সমর্থিত বৃহত্তর সূত্রাপুর থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদা ইয়াসমিন রোজি (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাসিনা আক্তার (গ্লাস)। স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি পারভীন আক্তার পারুল (চশমা)।

ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, আমি বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। সুষ্ঠু ভোট হলে আমি বাসিন্দাদের বিপুল ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ। পাড়া মহল্লায় মাদকমুক্ত কমিটি করে মাদকমুক্ত ওয়ার্ড গড়তে প্রশাসনকে সহযোগিতা করব।

হাসিনা আক্তার বলেন, আমার ও আমার পরিবারের কার্যক্রম বিবেচনায় বাসিন্দাদের ব্যাপক জনসমর্থন পাচ্ছি। আশা করি বাসিন্দাদের মূল্যবান ভোটে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব। নির্বাচিত হলে জলাবদ্ধতা নিরসন ও আধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা করব।

ডিএসসিসি কাউন্সিলর নির্বাচন ২০২০

সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১২, ১৩ ও ১৪: নারীদের সুরক্ষায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা

 মো. খোরশেদ আলম শিকদার 
২৬ জানুয়ারি ২০২০, ১২:০০ এএম  |  প্রিন্ট সংস্করণ
সংরক্ষিত ওয়ার্ড ১২, ১৩ ও ১৪: নারীদের সুরক্ষায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা
ফাইল ছবি

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) সংরক্ষিত ১২, ১৩ ও ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের প্রার্থীরা বাসিন্দাদের কল্যাণে কাজ করতে চান।

তারা ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসন, রাস্তার উন্নয়ন, মশক নিধন, মাদকমুক্ত সমাজ গড়ারও কথা বলছেন। বিশেষ করে নারীদের সুরক্ষায় যৌন হয়রানি প্রতিরোধ, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা চালু করার অঙ্গীকার করছেন তারা। সুবিধাবঞ্চিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করতে চান প্রার্থীরা।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত আসন ১২ : সাধারণ ৩৫, ৩৬ ও ৩৭ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে এ ওয়ার্ড গঠিত। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা-৪৮ হাজার ৪৫০ জন। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন চারজন।

তারা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিউম্যান রাইটস ইমপ্লিমেন্টেশন কমিশন কোতোয়ালি থানার সভাপতি আনোয়ারা বেগম রেশমা সরদার (চশমা)। বর্তমান কাউন্সিলর বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা দলের ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা সুরাইয়া বেগম (আনারস)। জাতীয় মহিলা পার্টি ঢাকা জেলার সভানেত্রী মনোয়ারা তাহের (মানু) (গ্লাস)। আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী শেফালী রানী মল্লিক (বই)।

আনোয়ারা বেগম রেশমা সরদার বলেন, হাসমত সরদার খান প্রসন্ন পোদ্দার লেন স্কুলের সহ-সভাপতির দায়িত্ব পালন করছি। আমি মসজিদ-মন্দির, স্কুল ও নারী শিক্ষাসহ সমাজসেবামূলক কাজ করে যাচ্ছি।

পরিবারের ও আমার বিগত উন্নয়ন কর্মকাণ্ড বিবেচনায় আওয়ামী নেতাকর্মীসহ এলাকার বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। আমি আশাবাদী বাসিন্দাদের মূল্যবান ভোটে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ।

নির্বাচিত হলে ওয়ার্ডের জলাবদ্ধতা নিরসনে আধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা, কোরবানির বর্জ্য দ্রুত অপসারণ, মশক নিধন, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা পেতে সহায়তা করব।

সুরাইয়া বেগম বলেন, আমি তিনবার এ ওয়ার্ডের কাউন্সিলর। আমার কাছে কেউ কোনো কাজের জন্য এসে ফেরত যায়নি। যখন কোনো কাজ নিয়ে এসেছে, আমি করে দিয়েছি।

আমি বাসিন্দাদের পরীক্ষিত কাউন্সিলর। যার ফলে নির্বাচন এলে আমাকে তাদের মূল্যবান ভোট দিতে কৃপণতা বা দ্বিধা করে না। আমি আশাবাদী এবারও তাদের মূল্যবান ভোট দিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত করবেন।

পুনরায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করব। আগের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে বাসিন্দাদের আরও সেবা দিতে কাজ করব।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত আসন ১৩ : সাধারণ ৩৪, ৩৮ ও ৪১ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা এক লাখ। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন দু’জন। তারা হলেন আওয়ামী সমর্থিত প্রার্থী শাহিনুর বেগম (আনারস), বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী রেহানা ইয়াসমিন ডলি (হেলিকপ্টার)।

শাহিনুর বেগম বলেন, আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হলে এলাকার উন্নয়নে কাজ করব। বিশেষ করে নারীদের বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা পেতে সুবিধাবঞ্চিত নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কাজ করব।

মাদকমুক্ত ওয়ার্ড গড়তে পাড়া মহল্লায় কমিটি করে মাদকমুক্ত ওয়ার্ড উপহার দেব। রেহানা ইয়াসমিন বলেন, বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। সুষ্ঠু ভোট হলে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ।

আর নির্বাচিত হলে নারীদের সুরক্ষায় যৌন হয়রানি প্রতিরোধ, বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা, গর্ভবতী দিনমজুরের ভাতা পেতে কাজ করব।

ডিএসসিসি সংরক্ষিত ১৪ : সাধারণ ৩৯, ৪০ ও ৪৯ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত এ ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডে ভোটার সংখ্যা এক লাখ দুই হাজার ৮৪০ জন। সংরক্ষিত এ ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন চারজন।

প্রার্থীরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাবেক কাউন্সিলর লাভলী চৌধুরী (আলমারি), বিএনপি সমর্থিত বৃহত্তর সূত্রাপুর থানা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ফরিদা ইয়াসমিন রোজি (আনারস), স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য হাসিনা আক্তার (গ্লাস)। স্বতন্ত্র প্রার্থী ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি পারভীন আক্তার পারুল (চশমা)।

ফরিদা ইয়াসমিন বলেন, আমি বাসিন্দাদের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছি। সুষ্ঠু ভোট হলে আমি বাসিন্দাদের বিপুল ভোট পেয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হব ইনশাআল্লাহ। পাড়া মহল্লায় মাদকমুক্ত কমিটি করে মাদকমুক্ত ওয়ার্ড গড়তে প্রশাসনকে সহযোগিতা করব।

হাসিনা আক্তার বলেন, আমার ও আমার পরিবারের কার্যক্রম বিবেচনায় বাসিন্দাদের ব্যাপক জনসমর্থন পাচ্ছি। আশা করি বাসিন্দাদের মূল্যবান ভোটে আমি কাউন্সিলর নির্বাচিত হব। নির্বাচিত হলে জলাবদ্ধতা নিরসন ও আধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা করব।

 

ঘটনাপ্রবাহ : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন