সামান্য বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা

মাতুয়াইলবাসীর দুর্ভোগ

  খোরশেদ আলম শিকদার ০৫ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

দুর্ভোগের মধ্যেই বসবাস করছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) ৬৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক মাতুয়াইল ইউনিয়নের বাসিন্দারা। সামান্য বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায় মাতুয়াইল-কোনাপাড়া মূল সড়ক। এছাড়া মাতুয়াইল বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের পূর্বপাশ থেকে খুরিয়াপাড়া, মোমেনবাগ এলাকার অলিগলি, মাতুয়াইল দক্ষিণপাড়া পুরাতন মসজিদ থেকে মাস্টারবাড়ী, লতিফ ভূঁইয়া কলেজ রোড, মাতুয়াইল মাতৃ ও শিশু স্বাস্থ্য ইন্সটিটিউট (মেডিকেল) রোড, বাইনারবাগ থেকে মুরগির খামার মোড় হাসেম মসজিদ পর্যন্ত সড়ক, ফার্মের মোড় থেকে সামসুল হক খান স্কুল অ্যান্ড কলেজ সড়কসহ ওই এলাকার অলিগলি এবং বাসাবাড়ি পানিতে ডুবে থাকে। বৃষ্টি হলে ওইসব এলাকায় কোথাও হাঁটুপানি আবার কোথাও কোমরপানি হয়। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয় বাসিন্দাদের।

এলাকাটি একদিকে নিচু, অপরদিকে এলাকার পানি ও পয়োনিষ্কাশনের ড্রেনেজ ব্যবস্থা অপ্রতুল। এর মধ্যে যেসব ড্রেন রয়েছে, তা-ও আবার ভরে গেছে। ফলে বাসাবাড়ির পয়োনিষ্কাশনের পানিতেই এলাকার নিুাঞ্চল তলিয়ে যায়। এর মধ্যে বৃষ্টি হলে আরও ভয়াবহ দুর্ভোগে পড়তে হয় বাসিন্দাদের। মোমেনবাগের ঐতিহ্যবাহী সালাহ উদ্দিন আহমেদ আদর্শ স্কুল অ্যান্ড কলেজের তিন পাশেই রয়েছে মাতুয়াইল-কোনাপাড়া সড়ক। সড়কটি একদিকে খানাখন্দে ভরা, অপরদিকে এলাকার বাসিন্দাদের পয়োনিষ্কাশনে ব্যবহৃত পানিতে সড়ক ডুবে যায়। এক ঘণ্টা বৃষ্টি হলে সড়কে হাঁটুপানি জমে। আর এ পানি এক সপ্তাহেও কমে না। এ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পড়তে হয় চরম দুর্ভোগে। শিক্ষার্থীদের জুতা-মোজা ভিজিয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করতে হয়। এতে শিক্ষার্থীরা পানিবাহিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। স্থানীয় একটি স্কুলের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী শহিদুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, সামান্য বৃষ্টিতে স্কুলের সড়কটি পানিতে তলিয়ে যায়। জুতা-মোজা ভিজিয়ে স্কুলে আসা-যাওয়া করে আমাদের পায়ে ঘা হয়ে গেছে। অনেকে ডায়রিয়া, আমাশয়সহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। শিক্ষার্থী নূর মোহাম্মদ সামসুজ্জামান হৃদয়ের বাবা মো. খালেকুজ্জামান যুগান্তরকে বলেন, বাচ্চারা পানি মাড়িয়ে বিদ্যালয়ে যেতে চায় না। জোর করে পাঠাতে হয়।

মাতুয়াইল দারোগাবাড়ীর বাসিন্দা এমএ ছিদ্দিক মিয়া যুগান্তরকে বলেন, আমরা এলাকার পয়োনিষ্কাশনের পানিতেই পানিবন্দি হয়ে থাকি। এখন আবার বৃষ্টির মৌসুম। বৃষ্টি হলে পানি রাস্তা ছাড়িয়ে বাসায় ঢুকে পড়ে। তিনি জরুরিভিত্তিতে ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নতির দাবি জানান। সালাহ উদ্দিন আহমেদ আদর্শ স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আমিরুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের লেখাপড়ায় এলাকায় ব্যাপক সুনাম রয়েছে। ফলে পিইসি, জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফলে শতভাগ পাসসহ জিপিএ-৫ অধিক হারে পেয়ে আসছে। বিদ্যালয়ে বর্তমানে ১ হাজার ৬০০ শিক্ষার্থী রয়েছে। বিদ্যালয়ে আসা-যাওয়ার সড়কগুলো সামান্য বৃষ্টিতেই ডুবে যায়। এতে করে বিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের খুব কষ্ট করে আসা-যাওয়া করতে হয়। অনেক শিক্ষার্থী এ ময়লা পানি মাড়িয়ে অসুস্থ হয়ে পড়েছে। তিনি সড়কগুলো মেরামত ও উঁচু করার দাবি জানান। মাতুয়াইল ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মো. রাশেদ আলী (লালু) যুগান্তরকে বলেন, ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আকস্মিক মারা যাওয়ায় ইউনিয়নটি অভিভাবকশূন্য হয়ে পড়ে। আমি ২০১৭ সালের ২৩ জুলাই দায়িত্ব নিই। সেই থেকে ইউনিয়নের বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লাঘবে সাধ্যমতো চেষ্টা করছি। সালাহ উদ্দিন আহমেদ আদর্শ স্কুল রোড এলাকাটি এমনিতেই নিচু। এর মধ্যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা অপ্রতুল। এ এলাকার সড়ক সংস্কারের বিষয়ে সিটি কর্পোরেশনকে তালিকা দেয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, আমাদের ইউনিয়ন পরিষদে ওয়ান পার্সেন্ট নামে একটি খাত ছিল। সে খাত থেকে আমরা জরুরি ভিত্তিতে অর্থ নিয়ে কাজ করতাম। সে খাতও এখন আমাদের হাতে নেই। ফলে বাসিন্দাদের দুর্ভোগ লাঘবে সাময়িকভাবেও কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছি না।

 

 

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
.