বসবাসের অযোগ্য ঝিগাতলা কলোনি

  যুগান্তর রিপোর্ট ২৩ মে ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ঝিগাতলা কলোনি
ছবি: যুগান্তর

ঝিগাতলা সরকারি ছয়তলা কলোনি বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। ভবনগুলো বছরের পর বছর সংস্কার করা হয় না। দেয়াল ভেঙে পলেস্তরা খসে পড়ে রড বেরিয়ে এসেছে। এতে যে কোনো সময় ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। ড্রেনেজ ব্যবস্থা ভালো না থাকায় ভবনের ভেতরে পয়োনিষ্কাশনের পানি চলে আসে। এ ভবনে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের প্রথম শ্রেণীর কর্মকর্তারা বসবাস করছেন। বাসিন্দারা জানান, আমাদের সমস্যাগুলো দেখার কেউ নেই। সামান্য কোনো কিছুর সমাধান পেতে সময় লাগে বছরের পর বছর।

কলোনির বাসিন্দা এসএ লতিফ যুগান্তরকে বলেন, এ কলোনিতে আমরা মানবেতর জীবনযাপন করছি। কলোনিতে কোনো নিরাপত্তাকর্মী নেই। সবচেয়ে খারাপ লাগার বিষয়, কোনো ভবনের সামনে প্রধান গেট নেই। সবগুলো খুলে ফেলা হয়েছে। যে যার মতো করে কলোনিতে প্রবেশ করছে। ভবনের বেশিরভাগ দরজা-জানালা অকেজো হয়ে আছে। এগুলো দেখার কেউ নেই। সরেজমিন দেখা যায়, ঝিগাতলা সরকারি ছয়তলা কলোনির প্রতিটি ভবনের প্রধান গেট নেই। কলোনিতে ড্রেনেজ ব্যবস্থার লাইন ভালো না থাকায় সামান্য বৃষ্টিতে ভবন তলিয়ে যায়। এছাড়া ভবনের চারপাশে ময়লা-আবর্জনা ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে। ভেতরে ভবনের পরিবেশ স্যাঁতসেতে হয়ে থাকে। রেশমা নামে কলোনির বাসিন্দা বলেন, গ্যাসের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হয়, সময়মতো রান্নাবান্না করা যায় না। সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহার করলে বাড়তি টাকা লাগে তাই কষ্ট করে হলেও গ্যাসের জন্য বসে থাকতে হয়। কলোনির বাসিন্দা কামরুল হাসান বলেন, এ কলোনিতে দুর্গন্ধযুক্ত পানি খেতে হয়। বিকল্প পানির ব্যবস্থা করা হচ্ছে না। তাছাড়া এ পানিও সবসময় পাওয়া যায় না। ২০১৩ সালে কলোনির বাসিন্দাদের একমাত্র সাবমারসিবল পাম্পটি ঠিক করার কথা থাকলেও এত বছর হয়ে গেছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত এ বড় পাম্পটি ঠিক করা হয়নি। এতে করে সরকারের এত দামি পাম্পটি এখন অকেজো হয়ে আছে। বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে। কিন্তু সমাধান হচ্ছে না।

ঝিগাতলা সরকারি ছয়তলা কলোনির কল্যাণ সমিতির সভাপতি মতিউর রহমান বলেন, সবসময় আমরা নিজেরা চেষ্টা করি কিভাবে কলোনিতে ভালো পরিবেশ তৈরি করা যায়। এ কলোনির ছোটখাটো কাজ আমাদের নিজস্ব অর্থায়ন থেকে করি। কিন্তু বর্তমানে কলোনির কিছু বড় বড় সমস্যা রয়েছে। এগুলো সমাধান করতে সরকারের সাহায্য আমাদের প্রয়োজন। তা না হলে এক সময় দেখা যাবে, বসবাসের অযোগ্য হয়ে যাবে কলোনি।

ঢাকা গণপূর্ত বিভাগ-২ এর ধানমণ্ডির উপবিভাগীয় প্রকৌশলী রাশেদ কবির যুগান্তরকে বলেন, আমাদের ইঞ্জিনিয়াররা কলোনির ভবনগুলো পরিদর্শন করেছে। তারা একটি প্রতিবেদনও দিয়েছে। আমরা সে প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। আশা করি খুব দ্রুত ভবনগুলো সংস্কার করা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×