সৌন্দর্য হারাচ্ছে মৌচাক-মগবাজার ফ্লাইওভার

ফ্লাইওভারের নিচে মাছবাজার

দুই পাশে রাস্তা থাকায় ঝুঁকি নিয়ে চলাচল * সৌন্দর্য হারাচ্ছে মৌচাক-মগবাজার ফ্লাইওভার

  মো. বিল্লাল হোসেন ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:৪৭ | প্রিন্ট সংস্করণ

ফ্লাইওভারের নিচে মাছবাজার
ফ্লাইওভারের নিচে মাছবাজার। ছবি: যুগান্তর

মালিবাগ-মৌচাক ফ্লাইওভারের নিচে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে চলছে মাছবাজার। এতে এ ফ্লাইওভার সৌন্দর্য হারাচ্ছে। অন্যদিকে ফ্লাইওভারের দু’পাশে রাস্তা চলে গেছে। এ রাস্তা পেরিয়ে মাছের বাজারে ঢুকতে হচ্ছে।

এতে প্রায় দুর্ঘটনা ঘটছে। এ বাজার স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা বিল্লাল গাজীর নেতৃত্বে বসেছে। অভিযোগ রয়েছে, তিনি নিয়মিত এ বাজার থেকে চাঁদা তুলেন। যদিও বিল্লাল গাজী চাঁদা নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, মালিবাগ-মৌচাক ফ্লাইওভারের ইস্কাটন এসপিআরসি অ্যান্ড নিউরোলজী হাসপাতালে সামনের অংশে ফ্লাইওভারের উঠার মুখে বাজার বসানো হয়েছে।

এ বাজারে মাছ, মুরগি ও তরিতরকারির দোকান রয়েছে। অন্য অংশে সিটি কর্পোরেশনের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের মালামাল রাখার অফিস। মাছের দোকান প্রায় ১৫-২০টি, ভ্যানগাড়ির ওপরে সবজির দোকান ৫-৭টি।

এছাড়া মুদি দোকান ও মুরগির দোকানও রয়েছে। বাজারে ঢোকার জন্য ফ্লাইওভারের বিভাজকের গ্রিল কেটে করা হয়েছে রাস্তা। গাড়ি চলাচল অবস্থায় হাতে ইশারা দিয়ে কাটা গ্রিলের অংশ দিয়ে বাজারে ঢুকছেন ক্রেতারা।

জানা যায়, প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত থাকে এ বাজার। মাছের দোকানের জন্য প্রতিদিন চাঁদা দিতে হয় ৪শ’, মুরগির দোকানের ৫শ’ ও সবজির দোকানের জন্য ১৫০ টাকা। কয়েকজন ব্যবসায়ী ভয়ে চাঁদা দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ব্যবসায়ী বলেন, চাঁদা দেয়া ছাড়া এখানে দোকান নিয়ে বসা যায় না। কিন্তু কী করব, পেটের দায়ে বসি। মহল্লায় অনেক টাকা বাকি পড়ে গেছে।

বাজার করতে আসা আফরিন শাহ সীফা যুগান্তরকে বলেন, ‘মর্নিংওয়াক শেষ করে বাসায় যাওয়ার পথে প্রায় এখানে বাজার করি। সবসময় বাজারের দুই পাশের রাস্তায় গাড়ি চলাচল করে।

তাই ঝুঁকি নিয়েই এ বাজারে আসতে হয়। তবে এটা ঠিক এ জায়গায় বাজার না বসিয়ে ফুলের গাছ লাগানো যেত। তাহলে ফ্লাইওভারের নিচের সৌন্দর্য বৃদ্ধি পেত।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, আগে এসব বাজার গলির ভেতরে ছিল। ফ্লাইওভার হওয়ার পর থেকেই এখানে বাজার বসছে। দুই পাশে গাড়ি চলে, মাঝখানে বাজার- এটা সবার জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। আমার মতে নিচের অংশে সবুজায়ন করা দরকার।

ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সেক্রেটারি মো. বিল্লাল গাজী বলেন, এ জায়গা প্রায় সাত-আট বছর ধরে রোডের পাশে বসত।

এখন ফ্লাইওভারের নিচে বসানো হয়েছে। মহল্লার লোকজন এখানে দোকান নিয়ে বসে। বাজার থেকে চাঁদা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখানে কোনো দোকান থেকে টাকা নেয়া হয় না। আমারসহ আরও অন্যান্য লোকের দোকান আছে। যারা আমাদের মিছিল-মিটিংয়ে যায় তাদের এখানে বসার সুযোগ দেয়া হয়েছে।

ডিএনসিসির ৩৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মুক্তার সরদার যুগান্তরকে বলেন, এ জায়গার দোকানগুলো আমি তিনবার তুলে দিয়েছে। তারপর মাছ বিক্রেতা ও দোকানিরা এসে কান্নাকাটি করে। এর মধ্যে পার্টির লোকজনও আছে।

 

 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter