আবদুল্লাহ-আল মামুন থিয়েটার স্কুল

দিনব্যাপী প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন

  সাংস্কৃতিক রিপোর্টার ২০ জানুয়ারি ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

এক-দুই করে ২৭ বছরে পদার্পণ করেছে আবদুল্লাহ-আল মামুন থিয়েটার স্কুল। দেশে বিশ্ববিদ্যালগুলোতে নাটকের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার বাইরে অন্যতম স্কুল এটি। দিনব্যাপী নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মঞ্চ নাটকের এই স্কুলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপিত হল। ছিল সেমিনার, আনন্দ শোভাযাত্রা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ‘আলোকশিখা জ্বলুক প্রাণে’ স্লোগানে শুক্রবার দিনব্যাপী শিল্পকলা একাডেমিতে অনুষ্ঠিত হয়েছে এ আয়োজন। তাই সারা দিনই শিল্পকলা একাডেমিতে বিরাজ করেছে উৎসবের আমেজ।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এ আয়োজনের শুরুতেই সকালে একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার কক্ষে ছিল ‘চিরায়ত নাট্যরীতি ও সমকালীন প্রযোজনা নিরীক্ষা’ শীর্ষক সেমিনার। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক আবদুস সেলিম। উপস্থিত ছিলেন আবদুল্লাহ আল-মামুন থিয়েটার স্কুলের অধ্যক্ষ নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা বিভাগের অধ্যাপক ইস াফিল শাহীন, বাচিকশিল্পী ও নাট্যনির্দেশক গোলাম সারোয়ার, ত্রপা মজুমদার, স্বপ্নদলের প্রধান জাহিদ রিপন, উৎসব উদযাপন পর্ষদের আহ্বায়ক সৈয়দ আপন আহসান প্রমুখ।

বিকালে ছিল আনন্দ শোভাযাত্রা। শিল্পকলা একাডেমির নন্দনমঞ্চ থেকে শুরু হয়ে এ শোভাযাত্রা জাতীয় প্রেস ক্লাব ঘুরে আবারও নন্দন মঞ্চ এসে শেষ হয়। থিয়েটার স্কুলের সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা হাতে বেলুন নিয়ে আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে। এতে নেতৃত্ব দেন রামেন্দু মজুমদার।

সন্ধ্যায় শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে ছিল উৎসব আনুষ্ঠানিকতা ও সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। এই অংশে প্রধান অতিথি ছিলেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর। রামেন্দু মজুমদারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন থিয়েটার স্কুলের সাবেক ছাত্র গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সেক্রেটারি জেনারেল আখতারুজ্জামান। স্বাগত বক্তব্য রাখেন উৎসব উদযাপন পর্ষদের আহ্বায়ক সৈয়দ আপন আহসান। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বীকৃতি-স্মারক প্রদান করা হয় স্কুলের তত্ত্বাবধায়ক খুরশীদ আলমকে।

আসাদুজ্জামান নূর বলেন, যারা এ প্রতিষ্ঠান থেকে মঞ্চের পাঠ নিচ্ছেন তারা সৌভাগ্যবান। কারণ, আমাদের সময়ে এমনটা ছিল না। স্কুলের ভালো ভালো শিক্ষকের কাছ থেকে তারা অনেক কিছু শিখতে পারছেন। তবে আসল কথা হল প্রচুর শ্রম ও সময় দিতে হবে মঞ্চের জন্য। আর নাটকের ভেতরে সারাক্ষণ বসবাস থাকতে হবে। আরও বড় কথা হচ্ছে, যত বেশি সংস্কৃতিবান মানুষ আমরা পাব, তত বেশি রুচিশীল সমাজের সৃষ্টি হবে।

রামেন্দু মজুমদার বলেন, এই স্কুল সৃষ্টির উদ্দেশ্য ছিল নাটক সম্পর্কে একটি ধারণা নিয়ে মঞ্চে কাজ শুরুর জন্য। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে আমরা এতগুলো বছর পার করেছি।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনার মধ্য দিয়ে শুরু হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন। এরপর ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ গানের সঙ্গে উদ্বোধনী নৃত্য পরিবেশন করেন থিয়েটার স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থীরা। এরপর যন্ত্রের সুর তোলেন দীপন সরকার। এরপর ছিল উদ্বোধনী বক্তব্যের পালা। যা শেষে আবারও শুরু হয় সাংস্কৃতিক আয়োজন। এ পর্যায়ে প্রথমেই ছিল নাটকের গান। পরিবেশনায় অংশ নেন রাশেদুল আউয়াল শাওন, তানজুম আরা পল্লী, সাইফ জোয়ার্দার, কল্যাণ, তানভীর সামদানী, মোহাম্মদ আতিক, মেহেলী রোজ ও শামীমা শওকত লাভলী। এরপর ছিল পূজা সেনগুপ্ত ও তার দলের পরিবেশনায় নৃত্য পরিবেশনা। সাংস্কৃতিক আয়োজনের সবশেষে ছিল বিভিন্ন নাটকের অংশের বিশেষ মঞ্চায়ন। যাতে অংশ নেন শেকানুল ইসলাম শাহী, তানজুম আরা পল্লী, হাশিম মাসুদ, লায়লা বিরকিস ছবি, ফখরুজ্জামান, লিটা খান, গৌরাঙ্গ বিশ্বাস স্বাধীন, এরশাদ হাসান ও তানভীর সামদানী। ১৯৯০ সালের ২৪ আগস্ট প্রয়াত জাতীয় অধ্যাপক কবীর চৌধুরীকে অধ্যক্ষ ও আবদুল্লাহ আল-মামুনকে উপাধ্যক্ষ করে যাত্রা শুরু করে থিয়েটার স্কুল। ২০০৮ সালে আবদুল্লাহ আল-মামুনের মৃত্যুর পর প্রতিষ্ঠানটির নতুন নামকরণ করা হয় আবদুল্লাহ আল-মামুন থিয়েটার স্কুল।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter