ডিএমপির শিক্ষাবৃত্তিতে ডিবিবিএলের ৫০ লাখ টাকা অনুদান

প্রকাশ : ০১ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

  যুগান্তর রিপোর্ট

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ পরিবারের মেধাবী সন্তানদের উচ্চ শিক্ষা গ্রহণ ও শিক্ষা সহায়তা হিসেবে ডিএমপির শিক্ষাবৃত্তি তহবিলে ৫০ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (ডিবিবিএল) কর্তৃপক্ষ। শনিবার ডিএমপি সদর দফতরে কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়ার কাছে ৫০ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করেন ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর আবুল কাসেম মো. শিরিন।

ডিবিবিএলের এই আর্থিক সহযোগিতার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, শিক্ষা সমাজের একটি বড় অংশ। ডিএমপির অধিকাংশ সদস্যের সন্তানেরা ভালো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পড়ালেখা করছে। কেউ কেউ আবার উচ্চ শিক্ষা নিচ্ছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। তাদের সীমিত বেতন দিয়ে পরিবারের খরচ চালিয়ে সন্তানদের লেখাপড়ার খরচ জোগানো অনেক কঠিন হয়ে পড়ে। আমরা চাই না টাকার অভাবে আমাদের কোনো সন্তান লেখাপড়া করা থেকে বাদ যাক। সে কথা ভেবে আমরা ডিএমপিতে শিক্ষাবৃত্তি চালু করেছি। প্রথমে আমাদের নিজস্ব ফান্ড থেকে এই তহবিল গঠন করা হলেও এখন এখানে সামাজিকভাবে দায়বদ্ধ থেকে অনেক ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান সহযোগিতা করছেন। সেই জন্য তাদের প্রতি আমরা কৃতজ্ঞ।

পল্লবীতে সাব্বির হত্যা মামলায় গ্রেফতার ২ : পল্লবী এলাকায় চাঞ্চল্যকর সাব্বির হত্যা মামলার আরও দুই আসামিকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন, রাসেল (২০) ও রণি। শনিবার পল্লবী এলাকা থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়। গোয়েন্দা পুলিশের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার শাহাদাত হোসেন সোমা এ তথ্য জানিয়েছেন।

উল্লেখ্য, ২০ সেপ্টেম্বর মিরপুর সেকশন ১১ নম্বরের সি ব্লকের প্যারিস রোড সিটি কর্পোরেশন মার্কেটের নির্মাণাধীন ৬ষ্ঠ তলা ভবনের ভেতরে সাব্বিরকে হত্যা করা হয়। পরে লাশ ওই ভবনের ২য় তলার ছাদে ফেলে রাখে পালিয়ে যায় হত্যাকারীরা। পরে ২১ সেপ্টেম্বর দুপুরে সাব্বিরের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় ২২ সেপ্টেম্বর পল্লবী থানায় হত্যা মামলা দায়ের করে সাব্বিরের পরিবার। ওইদিন হত্যার অভিযোগে সাজ্জাদকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরের দিন ওই হত্যাকাণ্ডে রাসেল, রণি এবং অন্য আসামিরা মিলে সাব্বিরকে হত্যা করেছে বলে সাজ্জাদ আদালতে স্বীকারোক্তি দেয়।