কালিন্দী ইউপি ভবন পরিত্যক্ত ঘোষণা

  যুগান্তর রিপোর্ট ০১ অক্টোবর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

ভবন

কেরানীগঞ্জের কালিন্দী ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ের ভবনগুলো ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় কর্তৃপক্ষ পরিত্যক্ত ঘোষণা করেছে। দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চললেও সংস্কার হচ্ছে না। এ ইউপি কার্যালয়ের ভবনগুলো অনেক পুরাতন। ভবন পরিত্যক্ত হওয়ায় বর্তমান চেয়ারম্যানের বাসায় এ ইউপি কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে।

১৯৯৭ সালের পর থেকে ইউনিয়ন পরিষদের যিনি চেয়ারম্যান হন তিনি ভাড়া করা বাসায় কার্যক্রম চালিয়েছেন। অনেকে আবার নিজের বাসায়ও কার্যক্রম চালান। এ কারণে কেরানীগঞ্জের অন্যান্য ইউনিয়ন পরিষদে সবরকম ডিজিটাল সেবা থাকলেও এ ইউনিয়নে সেটা নেই।

স্থানীয় বাসিন্দা মানিক বলেন, আমরা ছোট বেলা থেকে দেখে এসেছি এ ভবনের অবস্থা খুব খারাপ। এগুলো দেখার যেন কেউ নেই। দীর্ঘদিন ধরে ভাড়া করা বাসায় অথবা চেয়ারম্যানের নিজ বাসায় ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম চালানো হয়।

কালিন্দী ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয় ঘুরে দেখা যায়, ভবনগুলো পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। মানুষের আনাগোনা না থাকায় এখন কুকুর বসবাস করছে। রাখা হয়েছে ঠেলাগাড়ি ও ভ্যান।

এছাড়া বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদের অস্থায়ী ভবনে দুপুরের দিকে গিয়েও কাউকে পাওয়া যায়নি।

সাবেক চেয়ারম্যান খালেকুজ্জামান বলেন, আমি যখন এ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলাম তখন এখানে কষ্ট করে হলেও কার্যক্রম চালিয়েছিলাম। নতুন ভবন করার জন্য সব কাজ করলেও সরকার পরিবর্তন হওয়ায় বাকি কাজগুলো করা যায়নি। কিন্তু আমার পরে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তাদের এ নিয়ে তেমনটা কাজ করতে দেখিনি। এখানে এখন একটা নিয়ম চালু হয়ে গেছে- যিনি নির্বাচিত হবেন, তার বাসায়ই চলবে ইউনিয়ন পরিষদের কাজ। আমি মনে করি, চেয়ারম্যানদের গাফলতির জন্য উপরের মহলে বিষয়টি না জানানোয় এ অবস্থা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা মো. ইয়ামিন যুগান্তরকে বলেন, স্থায়ী ভবন না থাকায় কালন্দী ইউনিয়নবাসী ডিজিটাল সেবা ঠিকভাবে পাচ্ছেন না। সেবা নিতে এসে জনসাধারণের কিছুটা সমস্যা হচ্ছে। তবে আমরা আশাবাদী দ্রুতই স্থায়ী ভবন নির্মাণের কাজ শুরু হবে।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহে এলিদ মাইনুল আমিন যুগান্তরকে বলেন, নিয়ম অনুযায়ী একটি ইউপি ভবন করতে গেলে ইউনিয়ন পরিষদের নিজস্ব ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ জমি থাকা প্রয়োজন। কালিন্দী ইউনিয়ন পরিষদ নিজস্ব পর্যাপ্ত জমি নেই। কেরানীগঞ্জ ঢাকার সন্নিকটে হওয়ায় এ এলাকায় জমির মূল্য অনেক। তাই ইউনিয়নের বাসিন্দাদের কথা চিন্তা করে বাসা ভাড়া নিয়ে ডিজিটাল সেবা প্রদান করা হবে। এতে এ এলাকার বাসিন্দারা সরকারি সবরকম সুযোগ-সুবিধা পাবেন বলে আমি আশাবাদী।

কালিন্দী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন দেশের বাইরে থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

কেরানীগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মোহাম্মদ শাহজাহান আলী যুগান্তরকে জানান, কালিন্দি ইউনিয়নের যে কোনো জায়গায় ২৫ শতাংশ অর্থাৎ ১০০ ফুট বাই ১২৫ ফুট জায়গা দিলেই নতুন ভবন করে দেওয়া হবে। একথা কালিন্দী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এবং উপজেলা চেয়ারম্যানকে জানানো হয়েছে।

ইউনিয়ন পরিষদের ভবনটি সরকারি টাকায় করা হয়নি। তাই সরকারি টাকায় তথা এলজিইডি মেরামত করবে না।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×