বিমসটেক ট্রেড নেগোসিয়েশনকে কার্যকর করতে হবে : বাণিজ্যমন্ত্রী

  যুগান্তর রিপোর্ট ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ জানিয়েছেন, আঞ্চলিক বাণিজ্যে বিমসটেকের (বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভস ফর মাল্টি সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন) গুরুত্বই বেশি। মূলত এ কারণেই এ জোটের ট্রেড নেগোসিয়েশনকে অধিক হারে কার্যকর করতে হবে। যাতে বিমসটেকের মাধ্যমে আঞ্চলিক ও উপ-আঞ্চলিক বাণিজ্যে সুযোগ-সুবিধা বাড়ে এবং সংশ্লিষ্ট সবাই লাভবান হতে পারে।

রোববার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে বিমসটেক ট্রেড নেগোসিয়েটিং কমিটির ২১তম সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শুভাশীষ বসুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র সচিব মো. শহিদুল হক, বিমসটেকের সেক্রেটারি জেনারেল মো. মহিদুল ইসলাম। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (এফটিএ) মো. শফিকুল ইসলাম। সভায় বাংলাদেশ, ভারত, ভুটান, মিয়ানমার, নেপাল, শ্রীলংকা, থাইল্যান্ডের ৩৫ জন প্রতিনিধি অংশ নেন। রুলস অব অরিজিন, ট্রেড ইন সার্ভিস, ইনভেস্টমেন্ট, লিগ্যাল এক্সপার্ট, কাস্টমস কো-অপারেশন, ট্রেড ফেসিলিটেশনের বিষয়ে ওয়ার্কিং গ্রুপগুলো কাজ করবে।

দু’দিনব্যাপী সভার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তোফায়েল আহমেদ বলেন, বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভস ফর মাল্টি সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশনের (বিমসটেক) মাধ্যমে বাণিজ্যে ১৪টি সেক্টরে সুযোগ-সুবিধা বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে। এ জন্য ৬টি ওয়ার্কিং গ্রুপও গঠন করা হয়েছে। নিয়মিত বসে এ সম্ভাবনাকে কাজে লাগানো সম্ভব। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রফতানি বাণিজ্যে বাংলাদেশ এখন বেশ পরিচিত নাম। ১৯৭২-৭৩ সালে বাংলাদেশ ২৫টি পণ্য ৬৮টি দেশে রফতানি করে আয় করত ৩৪৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। গত বছর বাংলাদেশ ২০২টি দেশে ৭৪৪টি পণ্য রফতানি করে আয় করেছে ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। সেবা খাতের রফতানিসহ বাংলাদেশের রফতানির পরিমাণ ৪১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। ২০২১ সালে দেশের রফতানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৪ ডলার মার্কিন ডলার। দেশের বর্তমান জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৭.৮৬ ভাগ। এ কারণে বিমসটেক কার্যকরে বাংলাদেশ অগ্রণী ভূমিকা রাখছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৪ সালে ফ্রেমওয়ার্ক অ্যাগ্রিমেন্ট অব দ্য বিমসটেক-এফটিএ স্বাক্ষর করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ দ্রুত এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ ইতিমধ্যে জাতিসংঘের তিনটি শর্ত একসঙ্গে পূরণ করে এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হওয়ার প্রথম ধাপ অতিক্রম করেছে। ২০২৪ সালে বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হবে। এর তিন বছর পর বাংলাদেশ আর এলডিসিভুক্ত দেশের সুযোগ-সুবিধা পাবে না। বাংলাদেশ তখন বিভিন্ন দেশের সঙ্গে এফটিএ করে বাণিজ্য সুবিধা সৃষ্টি করবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

converter
×