চট্টগ্রামের ষোলো আসনে ১০৩২ কেন্দ্র ‘ঝুঁকিপূর্ণ’

  আহমেদ মুসা, চট্টগ্রাম ব্যুরো ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮, ০০:০০ | প্রিন্ট সংস্করণ

চট্টগ্রামের ষোলো আসনে ১০৩২ কেন্দ্র ‘ঝুঁকিপূর্ণ’

চট্টগ্রামের ১৬টি আসনে অর্ধেকেরও বেশি ভোট কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। জেলা ও নগরীতে ভোট কেন্দ্র আছে এক হাজার ৮৯৯টি। এর মধ্যে এক হাজার ৩২টি ঝুঁকিপূর্ণ (পুলিশের ভাষায় গুরুত্বপূর্ণ)।

চট্টগ্রাম জেলায় ভোট কেন্দ্র রয়েছে এক হাজার ৩০২টি। ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করা হয়েছে ৮৩২টি। ৩৯১টিকে সাধারণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া দ্বীপাঞ্চলের ৭৯টি কেন্দ্রকে বিশেষ কেন্দ্র হিসেবে দেখা হচ্ছে। নগরীতে ভোট কেন্দ্র রয়েছে ৫৯৭টি। এসব ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২০০টি ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)।

৩৯৭ কেন্দ্রকে সাধারণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ ভোট কেন্দ্র রয়েছে চট্টগ্রাম ১৫ (সাতকানিয়া-লোহাগাড়া) আসনে। এ আসনের লোহাগাড়া থানা এলাকার ৫৯টি কেন্দ্রের মধ্যে সবগুলোই ঝুঁকিপূর্ণ মনে করছে জেলা পুলিশ। দুর্গম যোগাযোগ ব্যবস্থার কারণে বাঁশখালী ও ফটিকছড়ি এবং দ্বীপ এলাকা হওয়ায় সন্দ্বীপ আসনের অনেক কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ ।

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানায়, প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে পাঁচস্তরের নিরাপত্তা বলয় থাকবে। প্রথম স্তরে থাকবেন একজন এএসআই, দুই কনস্টেবল ও ১০ আনসার, গ্রামপুলিশ। দ্বিতীয় স্তরে একজন উপ-পরিদর্শকের নেতৃত্বে মোবাইল টিম থাকবে প্রতিটি ইউনিয়ন ও পৌরসভাভিত্তিক। তৃতীয় স্তরে থাকবে পরিদর্শক, সহকারী পুলিশ সুপার ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপারদের সমন্বয়ে গঠিত স্ট্রাইকিং রিজার্ভ টিম ও তদারকি টিম। চতুর্থ স্তরে বিজিবি ও কোস্টগার্ড এবং পঞ্চম স্তরে সেনাবাহিনী ও নৌবাহিনী টহলের দায়িত্বে থাকবে।

সিএমপি সূত্রে জানা গেছে, নগরীর কোতোয়ালি থানায় ৭১টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২৬টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৪৫টি সাধারণ ভোট কেন্দ্র, চকবাজার থানায় ২০টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে সাতটি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৩টি সাধারণ কেন্দ্র, বাকলিয়া এলাকায় ৩৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১১টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৮টি সাধারণ, সদরঘাট থানা এলাকায় ২৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৯টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৬টি সাধারণ কেন্দ্র, চান্দগাঁও থানায় ৬১টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২৫টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩৬টি সাধারণ কেন্দ্র, পাঁচলাইশ থানায় ৩৩টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৯টি ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্র, ২৪টি সাধারণ, বায়েজিদ বোস্তামী থানায় ১২টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩৭টি সাধারণ কেন্দ্র, খুলশী থানায় ১৩টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৪টি সাধারণ, ডবলমুরিং থানায় ১৪টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩১টি সাধারণ কেন্দ্র, হালিশহর থানায় ১০টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২০টি সাধারণ কেন্দ্র, পাহাড়তলী থানায় ১১টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৫টি সাধারণ, আকবর শাহ থানায় পাঁচটি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৩টি সাধারণ কেন্দ্র, বন্দর থানায় ১৫টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৮টি সাধারণ, ইপিজেড থানায় ১২টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২২টি সাধারণ কেন্দ্র, পতেঙ্গা থানায় ৫টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৯টি সাধারণ কেন্দ্র এবং কর্ণফুলী থানায় ১৬টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৬টি সাধারণ ভোট কেন্দ্র রয়েছে।

জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মীরসরাই থানা এলাকায় ৪৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৩৪টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১৫টি সাধারণ, জোরারগঞ্জ থানা এলাকায় ৫৫টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৫২টি ঝুঁকিপূর্ণ ও তিনটি সাধারণ, ফটিকছড়ি থানায় ৮৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ৭৮টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৯টি সাধারণ, ভুজপুর থানায় ৪৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৪৪টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৫টি সাধারণ, সন্দ্বীপ থানায় ৭৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ২৯টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৫০টি সাধারণ, হাটহাজারী থানায় ১০৬টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ৭৩টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩৩টি সাধারণ, রাউজান থানায় ৮৪টি কেন্দ্রের মধ্যে ২১টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৬৩টি সাধারণ, রাঙ্গুনিয়া থানায় ৬০টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ২৮টি সাধারণ, বোয়ালখালী থানায় ৪১টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩৬টি সাধারণ, পটিয়া থানায় ৪২টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৬৯টি সাধারণ, আনোয়ারা থানায় ৩০টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ৩৪টি সাধারণ, চন্দনাইশ থানায় ৫৮টি ঝুঁকিপূর্ণ ও ১০টি সাধারণ এবং আসন হিসেবে চন্দনাইশের সঙ্গে সংযুক্ত সাতকানিয়া উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের ৩৬টি ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ২৬টিকে ঝুঁকিপূর্ণ ও ১০টিকে সাধারণ ভোট কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করেছে পুলিশ।

জেলা পুলিশের বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন মাহমুদ সোহেল জানান, ‘জেলার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভোট কেন্দ্র রয়েছে বাঁশখালী, সাতকানিয়া-লোহাগাড়া ও সীতাকুন্ড এলাকায়। ফটিকছড়ি ও সন্দ্বীপ আসনেও অনেক গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র রয়েছে। জেলার ভোট কেন্দ্রগুলোতে ২০০টি মোবাইল টিমসহ সাড়ে তিন হাজার পুলিশ সদস্য নির্বাচনী দায়িত্ব পালন করবেন। ভোটারদের নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে আসা ও ফিরে যাওয়া, কেন্দ্র দখল এবং ব্যালট পেপার ছিনতাই প্রতিরোধে সবেচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে।’

ঘটনাপ্রবাহ : চট্টগ্রাম-৯: জাতীয় সংসদ নির্বাচন

আরও পড়ুন
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৯৮২৪০৫৪-৬১, রিপোর্টিং : ৯৮২৪০৭৩, বিজ্ঞাপন : ৯৮২৪০৬২, ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৩, সার্কুলেশন : ৯৮২৪০৭২। ফ্যাক্স : ৯৮২৪০৬৬ 

E-mail: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৯

converter
×